kalerkantho

বুধবার । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭। ১২ আগস্ট ২০২০ । ২১ জিলহজ ১৪৪১

অনুশীলন শুরুর খবর শুনে খুশি রোমান

১১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অনুশীলন শুরুর খবর শুনে খুশি রোমান

ক্রীড়া প্রতিবেদক : করোনা মহামারির মধ্যেই শুরু হবে আর্চারি ট্রেনিং ক্যাম্প। খবরটা কারো জন্য ভীতি-জাগানিয়া হলেও রোমান সানার জন্য খুব আনন্দের। বাংলাদেশ আর্চারির এ মহা তারকা নাকি আরো আগেই ট্রেনিং ক্যাম্প আশা করেছিলেন, ‘এ খবর আমার জন্য আনন্দের। এক মাস ধরেই শুনছিলাম জুলাইয়ে ট্রেনিং শুরু হবে; কিন্তু হচ্ছিল না। গতকাল (পরশু) মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে আলাপে বোধ হয় ট্রেনিংয়ের সিদ্ধান্ত হয়েছে। সত্যি বললে, এত দিনের বন্ধে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে, বিশেষ করে পারফরম্যান্স নিচে নেমেছে। প্রতিদিনের ট্রেনিংই আসলে এই খেলায় আত্মবিশ্বাস জোগায়।’

গত মার্চে তাঁর তুমুল অলিম্পিক প্রস্তুতির সময় বন্ধ হয়ে যায় ট্রেনিং ক্যাম্প। এর পর থেকে তিনি বাড়িতে। সেখানে কোচের নির্দেশনা মেনে একা একা তীর-ধনুকের কিছু ব্যায়াম করেছেন, ‘কোচ যেভাবে অনলাইনে দেখিয়েছেন, বাড়িতে বসে সেই অনুযায়ী ১০ দিন ধরে তীর-ধনুক নিয়ে কাজ করছি। আশা করছি, ট্রেনিং মাঠে ১০-১৫ দিন গেলে তীর টানার শক্তিটা আবার ফিরে পাব হাতে। এরপর কয়েক মাস ট্রেনিং করলে আবার আগের জায়গায় পৌঁছাতে পারব।’ এ জন্য জার্মান কোচও অনুশীলন সূচি সাজাচ্ছেন। কিন্তু পারফরম্যান্স যাচাই করতে হলে কম্পিটিশনও লাগে। তিনি আশা করেন, সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের পর গেম খেলে নিজের স্কোর যাচাই করতে পারবেন।

প্রায় চার মাস ঘরে বসে কাটানোর পর আর্চারদের স্কোর কমে যাওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন কোচ। রোমান সানা নিজেও বুঝতে পারছেন অলিম্পিক প্রস্তুতির (গত মার্চের) সেই নিশানা এখনই ফিরবে না তাঁর তীরে। ইতিমধ্যে টোকিও অলিম্পিকও পিছিয়ে গেছে আগামী বছর জুলাইয়ে। সুতরাং নিজেকে আবার সেরার জায়গায় ফেরানোর সুযোগ আছে টোকিও অলিম্পিকের টিকিট পাওয়া এই রিকার্ভ আর্চারের। অলিম্পিকের আগেই অবশ্য তাঁর আরেকটি লক্ষ্য আছে, ‘এখনো আমাদের দলগতে অলিম্পিক কোয়ালিফাই করার সুযোগ আছে। তাই দলের সবাইকে ভালো প্রস্তুতি নিতে হবে।’ আগামী জুনে প্যারিস বিশ্বকাপে অলিম্পিক কোটা প্লেসের অর্জনের লড়াইয়ে শামিল হতে হবে তাঁদের। তাই আপাতত ছেলে ও মেয়েদের রিকার্ভ দলকে নিয়েই ট্রেনিং ক্যাম্প শুরু করার ইচ্ছা ফেডারেশনের। টঙ্গীতে অনুষ্ঠেয় ক্যাম্পে ট্রেনিংয়ে করোনাভীতি দেখছেন না তিনি, ‘টঙ্গীতে আমাদের ক্যাম্প অনেক নিরিবিলি পরিবেশে হয়। করোনাকালের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বজায় রেখেই আমরা ট্রেনিং করতে পারব।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা