kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৪ আগস্ট ২০২০ । ২৩ জিলহজ ১৪৪১

বোর্ডের ‘দান বাক্সে’ও টান পড়েছে

১০ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বোর্ডের ‘দান বাক্সে’ও টান পড়েছে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রিকেটাররা ঈদের আগেই ৫০ শতাংশ পারিশ্রমিক চান ক্লাবগুলোর কাছে। ক্লাব আবার এই টাকা চায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে। আগের দিন এই চাহিদার কথা বেরিয়েছে খোদ মোহামেডানের ক্রিকেট কমিটি প্রধান মাসুদ আহমেদের মুখ থেকে। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে যখন একের পর এক সিরিজ এবং টুর্নামেন্ট স্থগিত হয়ে আয়-রোজগারে ভাটার টান, তখন বিসিবি প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরীও বলে রাখছেন, ‘বিসিবিরও তো অঢেল টাকা নেই যে দান বাক্স খুলে বসবে!’

এর আগে ‘প্লেয়ার্স বাই চয়েজ’ নামের দলবদল পদ্ধতি বিতর্কিত হলেও তাতে অন্তত পারিশ্রমিকের নিশ্চয়তা ছিল ক্রিকেটারদের। কিন্তু আন্দোলনের মাধ্যমে নিজের পছন্দমতো দল বেছে নেওয়ার স্বাধীনতা ফিরে পাওয়ার পর সেটি নেই। নেই বলেই পারিশ্রমিক পরিশোধে অনেক ক্লাবের গড়িমসিও আছে। আছে বোর্ডের কোর্টে বল ঠেলে দেওয়ার প্রবণতাও। এই অবস্থায় প্রথমেই নিজেদের বর্তমান অর্থনৈতিক বাস্তবতা মনে করিয়ে দিলেন নিজাম উদ্দিন, ‘দেখুন, আমাদের একটি বাজেটের মধ্যে চলতে হয়। চলতি বছরই আমাদের আয়ে বড় ধরনের প্রভাব পড়ছে আস্তে আস্তে। এশিয়া কাপ এই বছর না হওয়ায় একটি বড় অঙ্ক পাচ্ছি না। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেরও একই পরিণতি হলে আরো বড় অঙ্কের আয় থেকেও বঞ্চিত হব।’

তাই বলে খেলোয়াড় কিংবা ক্লাব, কোনো পক্ষের কাছ থেকে মুখও ফিরিয়ে নিচ্ছে না বিসিবি, ‘খেলাটির সর্বোচ্চ সংস্থা হিসেবে আমরা এটিও বলব না যে বিষয়টি (খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিক পরিশোধ) শুধুই ক্লাবের। আবার খেলোয়াড়দেরও একচেটিয়া এই দাবি করলে হবে না যে দিতেই হবে। খেলোয়াড়রা আমাদের প্রধান অংশীদার। এরপর ক্লাবগুলোও আছে। আমার মনে হয় আলোচনার মাধ্যমে আমরা ভালো একটি সমাধান বের করতে পারি।’ নিজেদের পছন্দমতো দল বেছে নেওয়ার ফর্মুলায় ক্রিকেটারদের ফিরে যাওয়া ভুল ছিল কি না, এমন প্রশ্নেরও কোনো জবাব দিতে চাননি বিসিবি প্রধান নির্বাহী, ‘এটি নিয়ে কথা বলার সঠিক সময় এটি নয়।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা