kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

অনলাইনে এবার উশু

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসকে ফাঁকি দিয়েও চলছে খেলাধুলা। এই যেমন ভারতে কিছুদিন আগে হয়ে গেল অনলাইন জাতীয় উশু চ্যাম্পিয়নশিপ। অবশ্যই তাউলু ইভেন্টগুলোই শুধু হতে পেরেছে সেখানে। যেখানে প্রতিপক্ষের (মুখোমুখি) ব্যাপার নেই, শারীরিক কসরত দেখাতে হয় একা একা। অনলাইন স্ট্রিমিংয়ে তা দেখে অন্য শহর থেকেও বিচারকরা তার মার্কিং করতে পারেন। এবার ভারত থেকেই অনলাইনে আন্তর্জাতিক উশু চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজন হতে যাচ্ছে। এর মধ্যে বাংলাদেশেও আমন্ত্রণ পাঠানো হয়েছে। প্রস্তুতি শুরু করেছে বাংলাদেশ উশু ফেডারেশনও।

ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসেন ভিন্ন মাধ্যমে হলেও খেলায় ফেরার এই সুযোগটা নিতে চাইছেন, ‘খেলোয়াড়দের একেবারে নিষ্ক্রিয় করে রাখতে ভালো লাগছে না। ভারতের আমন্ত্রণপত্রটা পেয়ে আমার কাছে মনে হয়েছে এটা একটা ভালো উদ্যোগ। আমরা এরই মধ্যে খেলোয়াড়দের প্রস্তুতি নিতে বলে দিয়েছি। ওদের অবশ্য ঢাকায় এসেই অনলাইনে এই প্রতিযোগিতাটায় অংশ নিতে হবে। কারণ উশুর জন্য অনুমোদিত ম্যাটেই খেলাটা হবে। আমরা সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্টসংখ্যক খেলোয়াড়কে আলাদা আলাদা পারফরম করাব, এখান থেকেই তা লাইভ হবে।’ গত এসএ গেমসে তাউলুর চাঙ্কুয়ান ইভেন্টে রুপা জেতা ওমর ফারুকও এটাকে দারুণ সুযোগ দেখছেন, ‘লকডাউনের মধ্যে বাসার ছাদে যৎসামান্য অনুশীলন করছি। অনলাইনে প্রতিযোগিতাটা হবে শুনে ভালো লাগছে। এখন আরো সিরিয়াসলি অনুশীলনটা করতে হবে। প্রতিযোগিতার আগে ফেডারেশন আলাদা আলাদাভাবে ডেকে নিয়ে একটা বাছাইও করবে। যাওয়া-আসার নিজস্ব ব্যবস্থা থাকবে। আশা করি প্রতিযোগিতাটা ভালোই হবে।’ দুলাল হোসেন জানিয়েছেন, মূলত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে নিয়েই এই চ্যাম্পিয়নশিপটা হবে। এর মধ্যে নেপাল এবং শ্রীলঙ্কা উশু ফেডারেশনের সঙ্গেও এ নিয়ে ইতিবাচক আলোচনা হয়েছে তাঁর। টুর্নামেন্টের তারিখ এখনো চূড়ান্ত না হলেও আগামী জুলাইয়ে তা হবে বলেই আশা করা হচ্ছে।

মন্তব্য