kalerkantho

বুধবার । ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩ জুন ২০২০। ১০ শাওয়াল ১৪৪১

দেশিদের নিয়ে লিগ শেষ করতে চান নাবিল

২২ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশিদের নিয়ে লিগ শেষ করতে চান নাবিল

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বেঞ্চে থাকা দেশি ফুটবলারদের ভাগ্য খুলে যেতে পারে! শুধ দেশিদের নিয়ে বাকি মৌসুম শেষ করার একটা প্রস্তাবনা দিয়েছেন জাতীয় দল কমিটির প্রধান কাজী নাবিল আহমেদ।

করোনায় থেমে থাকা ফুটবল লিগ নিয়ে এত দিন দুশ্চিন্তায় ছিল শুধু ক্লাবগুলো। ফেডারেশন বা লিগ কমিটি ছিল নির্বাক দর্শকের ভূমিকায়। এই প্রথম ফেডারেশনের এক সহসভাপতি সরব হয়েছেন নিজস্ব চিন্তা নিয়ে। সহসভাপতি কাজী নাবিল আহমেদের প্রস্তাবনা হলো, শুধু দেশি ফুটবলারদের খেলিয়ে লিগের বাকিটুকু শেষ করা, ‘এই সময়ে বিদেশিদের বসিয়ে বেতন দেওয়া ও ঢাকায় নিরাপদে রাখাও ক্লাবগুলোর জন্য বাড়তি চাপ। বিদেশিদের সঙ্গে এখনই পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে চুক্তি শেষ করে ক্লাবগুলো এবার দেশিদের নিয়ে লিগ শেষ করার কথা ভাবতে পারে। প্রতিটি ক্লাবে ২০ জন করে দেশি ফুটবলার আছে। বেঞ্চে থাকা দেশি ফুটবলারদের খেলানোর চমৎকার সুযোগ এটা। বাফুফে সভাপতি ও লিগ কমিটির প্রধানকে এই প্রস্তাবনার কথা জানিয়েছি আমি।’ গত ১৫ মার্চ আবাহনী-মুক্তিযোদ্ধা ম্যাচ দিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে গেছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ। ১৩ দলের এই লিগে সাত দলের ছয় ম্যাচ আর বাকি ছয় দলের পাঁচ ম্যাচ করে শেষ হয়েছে।

এর পরই দেশের ফুটবল পড়েছে করোনারভাইরাসের কবলে। ক্লাবগুলোর দুশ্চিন্তা শুরু হয় বিদেশিদের বেতন-ভাতা নিয়ে, পাঁচজন করে বিদেশিকে টানতে হাঁপিয়ে ওঠে দলগুলো। নাবিল আহমেদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী, এখনই বিদেশিদের সঙ্গে আলোচনা করে চুক্তির ইতি টেনে দিলে ক্লাবের চাপটা কমে অনেকখানি। এরপর? ‘পরিস্থিতির যখন উন্নতি হবে এবং সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে দেশিদের নিয়ে লিগের বাকি ম্যাচগুলো আমরা শুরু করতে পারি। অনুশীলন শুরুর আগে প্রত্যেক খেলোয়াড়কে দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে এবং স্বল্প দর্শক নিয়ে নিরাপদে খেলা চালানোর ব্যবস্থা করতে পারি আমরা’, বলেছেন কাজী নাবিল আহমেদ। অবশ্য খেলা শুরুর সম্ভাব্য সময় কখন, এ নিয়ে তিনি অন্ধকারে। তবে বৈশ্বিক ফুটবল পরিস্থিতি বিবেচনায় তিনি মনে করেন, ‘বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ফুটবল মাঠে গড়ানোর উদ্যোগ শুরু হয়েছে। কয়েকটি দেশে স্বল্প দর্শক কিংবা দর্শকহীন খেলা হচ্ছে বা খেলানোর চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। ওসব দেশেও কিন্তু করোনা পুরোপুরি নির্মূল হয়নি। আমরা কবে শুরু করত পারব জানি না, তবে এখনই রূপরেখা চূড়ান্ত করে রাখা উচিত, যেন ক্লাবগুলো নিজের মতো প্রস্তুত হতে পারে।’ তবে তাঁর দেশি ফুটবল খেলানোর প্রস্তাবনায় বিপদে পড়বে দেশের এএফসি কাপের দল বসুন্ধরা কিংস। চ্যাম্পিয়নদের পক্ষে কি বিদেশি ছাড়া এএফসি কাপ খেলা সম্ভব? বাফুফে সহসভাপতির জবাব, ‘তাদের মতো করে তারা বিদেশি রাখতে পারে।’

করোনাভাইরাস এক বৈশ্বিক বিপদ। তাই এই সময়ে বাফুফের জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান ভিন্ন পরীক্ষা চলাতে চান ফুটবল নিয়ে, ‘করোনার বিপদে ফুটবল নিয়ে ভিন্নভাবে ভাবার সুযোগ আছে। এটা আমাদের দেশি খেলোয়াড়দের তৈরি হওয়ার সুযোগ। অনেক বছর তো বিদেশি নিয়েই খেলেছি আমরা। দেশিদের না হয় একটু সুযোগ দিয়ে দেখি। এটা আমার নিজস্ব চিন্তা বা প্রস্তাবনা, এ নিয়ে লিগ কমিটির সভায় আলোচনা হতে পারে।’ এই প্রস্তাবনার ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে লিগ কমিটির ওপর, ক্লাব প্রতিনিধিরা কতটা সায় দিচ্ছেন তার ওপর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা