kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৯  মে ২০২০। ৫ শাওয়াল ১৪৪১

বেতন নিয়ে টানাপড়েন ইংলিশ লিগে

৭ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনাভাইরাসের প্রভাবে খেলা বন্ধ থাকায় বিশাল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতির মুখে ক্লাবগুলো। বন্ধ হয়ে যাওয়া ফুটবল যদি আর শুরু না হয় তাহলে শুধু ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের দলগুলোরই ক্ষতি হবে ১.১৩৭ বিলিয়ন পাউন্ড। মৌসুম বাতিল হয়ে গেলে শুধু সম্প্রচার স্বত্ব বাবদই ৭৬২ মিলিয়ন পাউন্ড ফেরত দিতে হবে। এই বিশাল ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবং চাকরি টিকিয়ে রাখতে বেতনের ৩০ শতাংশ কর্তনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল খেলোয়াড়দের। মালিক এবং লিগ কর্তৃপক্ষের ওই প্রস্তাবে না বলে দিয়েছেন ফুটবলাররা। 

খেলোয়াড়দের বেতন কমানো প্রসঙ্গে এক ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করে প্রিমিয়ার লিগ কর্তৃপক্ষ। প্রতিটি ক্লাবের অধিনায়ক ও কোচসহ ৫০ জনেরও বেশি প্রতিনিধি অংশ নেন ওই আলোচনায়। লিগ ও ক্লাব কর্তৃপক্ষ বোঝানোর চেষ্টা করে তারা কেন খেলোয়াড়দের বেতন কমাতে চাচ্ছে। কিন্তু ওই আলোচনা ভেস্তে যায় খেলোয়াড়রা ইতিবাচক সাড়া না দেওয়ায়। বেতনে ছাড় নিয়ে ধনকুবের মালিকদের সাহায্য না করে বরং পুরো টাকা বেতন নিয়ে যাঁর যাঁর নিজেদের মতো করে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে চান খেলোয়াড়রা। প্রয়োজনে নগদ সহায়তাও দেবেন তাঁরা। করোনার বিপক্ষে লড়াইয়ে যাঁর যাঁর সাধ্যমতো সাহায্য করছেনও অবশ্য তাঁরা।


শুধু সম্প্রচার স্বত্ব বাবদই ৭৬২ মিলিয়ন পাউন্ড ফেরত দিতে হবে। এটা পুষিয়ে নিতে  বেতনের ৩০ শতাংশ কর্তনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল খেলোয়াড়দের।

এ ক্ষেত্রে খেলোয়াড়রা পাশে পাচ্ছেন ইংল্যান্ডের পেশাদার ফুটবলারদের সংগঠন প্রফেশনাল ফুটবলার অ্যাসোসিয়েশনকেও (পিএফএ)। ফুটবলারদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে পিএফএর দাবি খেলোয়াড়দের বেতন কমানো হলেই বরং নেতিবাচক প্রভাব পড়বে জাতীয় স্বাস্থ্যসেবায়। এ নিয়ে তাদের যুক্তি হচ্ছে, ১২ মাসের জন্য খেলোয়াড়দের বেতন ৩০ শতাংশ কমানো হলে বেঁচে যাবে ৫০০ মিলিয়ন পাউন্ড। তাতে সরকার রাজস্ব হারাবে ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড। এই বিশাল অঙ্কের টাকা সরকার ইচ্ছা করলে জাতীয় স্বাস্থ্যসেবায়ও ব্যয় করতে পারবে। তাই বেতন না কমানোর পক্ষে অবস্থান নিয়েছে পিএফএ। গণহারে বেতন কমানো যুক্তিযুক্ত মনে করছেন না ডার্বি কাউন্টির ইংলিশ ফরোয়ার্ড ওয়েইন রুনিও, ‘আমার বয়স এখন ৩৪। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে আয়ও করেছি অনেক। আমি হয়তো বললে কিছু ছাড় দিতে পারি। কিন্তু আমার মতো আর সব খেলোয়াড়ের অবস্থা নেই।’ বিবিসি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা