kalerkantho

সোমবার  । ১৬ চৈত্র ১৪২৬। ৩০ মার্চ ২০২০। ৪ শাবান ১৪৪১

অনুজ্জ্বল রিয়াল-বার্সা যখন এল ক্লাসিকোতে

এবার ফর্মের কারণে দুই দলের কোনোটিকেই যে এগিয়ে রাখা যাচ্ছে না, এ বিরল ঘটনাই। পরিসংখ্যানে অবশ্য বার্সা এগিয়ে। শেষ সাত এল ক্লাসিকোতে তারা হারেনি। ঘরের মাঠে সর্বশেষটি গোলশূন্য ড্র, অন্য ছয়বারের তিনবার তাদের জয়।

২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অনুজ্জ্বল রিয়াল-বার্সা যখন এল ক্লাসিকোতে

এল ক্লাসিকোর উত্তাপে ঘাটতি হয় না কখনো। বিশ্বসেরা দ্বৈরথে কালও হয়তো স্ফুলিঙ্গ ছুটবে। তবে বার্সেলোনা, রিয়াল মাদ্রিদের সাম্প্রতিক ফর্ম বলতে গেলে টিমটিমে। দুই দলের সর্বশেষ দুটি ম্যাচই তার উত্কৃষ্ট উদাহরণ। যে ম্যানচেস্টার সিটির কাছে আগে কখনো হারেনি রিয়াল, তারাই গত বুধবার রাতে বার্নাব্যুতেই হেরে গেছে চ্যাম্পিয়নস লিগ নিয়ে বিপত্তিতে থাকা সিটির কাছে। বার্সেলোনা নাপোলির মাঠে গিয়ে করেছে ড্র। লিগে দুই দলের মোট পয়েন্ট এই মুহূর্তে ১০৮, গত ১৩ বছরের মধ্যে যা দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। ফর্মে উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে দুই দলই।

রিয়ালের সাবেক খেলোয়াড় ও কোচ বার্নড সুস্টার মনে করেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর অভাবটাই এখনো পূরণ হয়নি রিয়াল মাদ্রিদে, ‘রোনালদো ক্লাব ছাড়ার পর ওদের নাম্বার নাইনের ঘাটতিটা রয়েই গেছে, গত দুই বছরেও এটা পূরণ হয়নি।’ আরেক সাবেক খেলোয়াড় ও কোচ হোর্হে ভালদানো তো বলেছেন, ‘এই দলের কাছে এর চেয়ে বেশি আশাও করি না আমি।’ বিরক্ত তিনি বার্সাকে দেখেও, ‘রিয়াল যে বাজে সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, এটাই যেন ওদের একমাত্র সুবিধার দিক। নিজেরা কিছুই করতে পারছে না।’ ২৫ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা বার্সার চেয়ে ২ পয়েন্ট পিছিয়ে রিয়াল। এই দুই দলের লড়াইকে এবার, ‘রুগ্ণ দুই হাঁসের প্রতিযোগিতা’ ছাড়া আর কিছুই মনে হচ্ছে না ভালদানোর। সুস্টার... তো স্পেনে এবার ইউরোপীয় ট্রফি আসার কোনো সম্ভাবনাই দেখেন না, ‘অলস একটা লিগ হচ্ছে। মান বেশ খারাপ। আমার মনে হয় না চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপাজয়ী হিসেবে এবার স্প্যানিশ কোনো দলকে দেখা যাবে।’

এবারের এল ক্লাসিকোতে কাউকে যে ফেভারিট হিসেবে দেখা যাচ্ছে না তার এটিও একটি কারণ। বার্সা-রিয়ালের চিরন্তন দ্বৈরথে কে কখন জিতবে এমনিতেও বলা যায় না। তবে এবার ফর্মের কারণে দুই দলের কোনোটিকেই যে এগিয়ে রাখা যাচ্ছে না, এ বিরল ঘটনাই। পরিসংখ্যানে অবশ্য বার্সা এগিয়ে। শেষ সাত এল ক্লাসিকোতে তারা হারেনি। ঘরের মাঠে সর্বশেষটি গোলশূন্য ড্র, অন্য ছয়বারের তিনবার তাদের জয়। বার্সার কোচ হিসেবে কেকে সেতিয়েনের এটা অবশ্য প্রথম ক্লাসিকো। কিন্তু সেতিয়েনের রেকর্ডেও আশা দেখতে পারেন কাতালানরা। এর আগে লাস পালমাস ও এবং তাঁর বার্সায় আসার আগের ক্লাব রিয়াল বেতিসের হয়ে চারবার তিনি বার্নাব্যু সফর করেছেন। যার দুটিতেই জয়, একটি হার ও ড্র অন্যটি। জয় বেতিসের হয়ে সর্বশেষ দুই সফরেই। ২০১৫-১৬ মৌসুমে লাস পালমাসকে নিয়ে প্রথম সফরে রাফায়েল বেনিতেজের রিয়ালের কাছে হেরে গিয়েছিলেন তিনি ৩-১। পালমাসের হয়ে পরের সফরে ৩-১-এ এগিয়ে ছিল তাঁর দল, রোনালদোর শেষমুহূর্তের দুই গোলে সেই ম্যাচ ড্র ৩-৩-এ। বেতিসের হয়ে বার্নাব্যুতে সর্বশেষ দুটি ম্যাচই তিনি জিতেছেন জিনেদিন জিদানের বিপক্ষে ১-০ ও ২-০তে। বিবিসি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা