kalerkantho

রবিবার । ২২ চৈত্র ১৪২৬। ৫ এপ্রিল ২০২০। ১০ শাবান ১৪৪১

বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে করোনার থাবা

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে করোনার থাবা

লিওনেল মেসি, ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোদের বেতনে ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন ‘বুড়ো’ কার্লোস তেভেজ। অস্কার, হাল্ক, মাসচেরানোরাও আকাশছোঁয়া বেতনে পাড়ি জমান চীনের ফুটবলে। নতুন এই বাজার থমকে গেছে এখন। শীতকালীন দলবদলে চায়নিজ সুপার লিগের ক্লাবগুলোর খরচ মাত্র ২৮ মিলিয়ন ইউরো! করোনাভাইরাস সংক্রমণের ভয়ে চীনে যেতে চান না কেউ। এমনকি চীনের ক্লাব থেকে ম্যানইউতে ধারে খেলতে আসা অদিয়ন ইহালুর সঙ্গে শুরুতে অনুশীলন করতে চাননি সতীর্থরা। চীনজুড়ে প্রায় দুই হাজার ৮০০ জন মারা যাওয়ায় এই মৌসুমে স্থগিতই হয়েছে চায়নিজ সুপার লিগ।

শুধু চীনের ফুটবল নয়, করোনার থাবা ক্রীড়াঙ্গনজুড়েই। দক্ষিণ কোরিয়াতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন অনেকে। এ জন্য চীনের মতো কোরিয়ান ফুটবল লিগও স্থগিত। ভাইরাসটা ইউরোপিয়ান দেশগুলোর মধ্যে বেশি ছড়িয়েছে ইতালিতে। ঝুঁকি না নিতে সিরি ‘এ’র অনেক ম্যাচ স্থগিত করা হয়েছে এ জন্য। এর একটি ইন্টার মিলানের। সিরি ‘এ’র ম্যাচ আর ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্ট এক নয়। ইন্টার মিলানকে গতকাল ইউরোপা লিগে লুদাগোরেতসের বিপক্ষে খেলতে হয়েছে এ জন্য। সতর্কতা হিসেবে সান সিরো স্টেডিয়ামে সিদ্ধান্ত ছিল দরজা বন্ধ করে দর্শকহীন ম্যাচের।

জাপানের জে লিগেও প্রভাব পড়েছে করোনার। স্থগিত হয়েছে সাতটি ম্যাচ। শঙ্কা আছে টোকিও অলিম্পিক নিয়ে। আয়োজকরা অবশ্য আশা ছাড়েননি। সময়মতো টোকিওতে অলিম্পিকের আসর বসবে বলে আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। তবে টোকিওতে এরই মধ্যে বাতিল হয়ে গেছে মার্চে হতে যাওয়া ‘টেকিও ম্যারাথন’। নানজিংয়ে এ বছর হতে যাওয়া বিশ্ব ইনডোর অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ পিছিয়ে গেছে পুরো এক বছর। গলফে স্থগিত হয়েছে চায়না ওপেন। এমনকি মালেশিয়াতেও বাতিল হয়ে গেছে এপ্রিলে হতে যাওয়া ‘মেব্যাঙ্ক চ্যাম্পিয়নশিপ’। সিঙ্গাপুরে এইচএসবিসি ওমেন্স ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ গলফ নিয়ে প্রচারণা চলছিল বেশ। স্থগিত হয়ে গেছে মর্যাদার সেই টুর্নামেন্ট।

চীন যেহেতু সবার আতঙ্ক তাই সেই দেশে হতে চলা প্রায় সব টুর্নামেন্ট গেছে পিছিয়ে। এর অন্যতম ফর্মুলা ওয়ানের চায়না গ্রাঁপ্রি। এপ্রিলে হতে যাওয়া এই টুর্নামেন্ট কবে হবে জানে না কেউ। ব্যাডমিন্টনের মর্যাদার টুর্নামেন্ট চায়না মাস্টার্স হচ্ছে না হাইনানে। বাস্কেটবলে এশিয়া কাপের বাছাই পর্বে মুখোমুখি হওয়ার কথা ছিল জাপান ও চীনের। ম্যাচটা হচ্ছে না আপাতত। করোনার শঙ্কায় হচ্ছে না একই টুর্নামেন্টে বাছাই পর্বের ফিলিপাইন-থাইল্যান্ডের ম্যাচ। টেনিসে এপ্রিলে চীনে সূচি ছিল জিয়ান ওপেনের। করোনাভাইরাসের প্রভাব শেষ হলেই কেবল কোর্টে গড়াবে এটা। টেবিল টেনিসের বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ দক্ষিণ কোরিয়ার বুসানে মার্চের বদলে পিছিয়ে হবে জুনে। তবে শর্ত একটাই, শেষ হতে হবে করোনার প্রভাব। সিএনএন

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা