kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

মুখোমুখি প্রতিদিন

সুযোগ কাজে লাগানোর জন্য প্রস্তুত ছিলাম

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সুযোগ কাজে লাগানোর জন্য প্রস্তুত ছিলাম

বিকেএসপিতে প্রস্তুতি ম্যাচে শতরান করেছেন তানজিদ হাসান তামিম। সদ্যই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতে আসা বাংলাদেশ দলের যে ছয় ক্রিকেটারকে সুযোগ দেওয়া হয়েছে বিসিবি একাদশে, তামিম তাঁদেরই একজন। শতরানের ইনিংস খেলার পর তামিম জানালেন তাঁর অনুভূতির কথা

প্রশ্ন : শতরানের জন্য অভিনন্দন। যখন ব্যাট করতে আসেন, তখন দলের পরিস্থিতিটা সহজ ছিল না। যদিও প্রস্তুতি ম্যাচ..., অন্য প্রান্ত থেকে অধিনায়কের সমর্থন কেমন পেয়েছেন?

তানজিদ হাসান তামিম : আসলে সত্যি কথা বলতে (আল-আমিন ভাই) আমাকে অনেক সমর্থন করেছে। আমি ভাইকে ধন্যবাদ দিতে চাই। যখন ক্রিজে আসি তখন পরিস্থিতিটা সত্যি অন্য রকম ছিল, আমরা চাপে ছিলাম। তো ভাইয়া আমাকে শুধু বলেছেন আমি যেন আমার স্বাভাবিক খেলাটা খেলি। আমি যখন অন্যমনস্ক হয়ে যাচ্ছিলাম তখন ভাই আমাকে সাহায্য করেছেন, স্বাভাবিক থাকতে বলেছেন। ভাই অনেক অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান, উনার সেঞ্চুরিটাও উপভোগ করছি।

প্রশ্ন : অনূর্ধ্ব-১৯ দলে তো খেলেছেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে। মানিয়ে নিতে সমস্যা হয়নি?

তামিম : আসলে দলে অনেক সিনিয়র ক্রিকেটার ছিলেন। আমিও প্রস্তুত ছিলাম যেখানেই সুযোগ আসে যেন কাজে লাগাতে পারি।

প্রশ্ন : অনেকটা হুট করেই আপনাদের ডেকে পাঠানো হয়েছিল এই ম্যাচে খেলার জন্য। বড়দের দলের বিপক্ষে খেলার অভিজ্ঞতাটা কেমন ছিল?

তামিম : অবশ্যই দারুণ অভিজ্ঞতা। জিম্বাবুয়ে একটা টেস্ট খেলুড়ে দেশ, আমরা অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতে এসেছি, এসেই জাতীয় দলের সঙ্গে খেলা। এটা একটু চাপেরই ছিল, কিন্তু আমরা চাপ হিসেবে নেই নাই, চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। অনেক উপভোগ করছি।

প্রশ্ন : বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে তো সাদা বলেই খেলা হয়েছে বেশি। লাল বলে খেলতে কি খানিকটা অসুবিধা হচ্ছিল?

তামিম : আসলেই সাদা বল দুই বছর খেলে লাল বলে খেলা কঠিন ছিল। আমরা কেবল মানিয়ে নিতে চেষ্টা করেছি। আসলে আমি অলটাইম নরমাল থাকার চেষ্টা করছি। আমার জোনে বল পেলে মেরেছি।

প্রশ্ন : স্ট্রোক খেলার এই প্রবণতাটা কি স্বাভাবিক নাকি পাল্টা-আক্রমণে যাওয়ার জন্যই বেশি আক্রমণাত্মক খেলেছেন?

তামিম : এটাই আমার স্বাভাবিক খেলা।  আমার জোনে যে বলটা পাই সেটা মারার চেষ্টা করি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা