kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৬ নভেম্বর ২০২০। ১০ রবিউস সানি ১৪৪২

পাকিস্তানে যাচ্ছে না প্রোটিয়ারা

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাকিস্তানে যাচ্ছে না প্রোটিয়ারা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরেছে পাকিস্তানে। শ্রীলঙ্কার পর দুই দফা বাংলাদেশ খেলে এসেছে সেখানে। তৃতীয় দফায় এক ওয়ানডে ও আরেকটি টেস্ট খেলতে যাবেন মমিনুল হক, লিটন দাসরা। আগামী মাসে দক্ষিণ আফ্রিকারও কথা ছিল পাকিস্তানে গিয়ে তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলার। সেই সম্ভাবনা গতকাল বাতিল করেছে দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট বোর্ড। ‘ব্যস্ততার’ কথা বলে সম্ভাব্য সিরিজ আপাতত বাতিল করেছে তারা। নতুন সূচি দুই বোর্ড মিলে আলোচনার পর জানাবে পরবর্তী সময়ে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য নিজেদের দেশ নিরাপদ প্রমাণে মরিয়া পাকিস্তান। শুরুতে বেঁকে বসলেও আইসিসির চাপে তিন ধাপে সেই দেশে সিরিজ খেলতে রাজি হয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকা না করে দিল ‘ব্যস্ততার’ কথা বলে। তাদের ব্যস্ততাটা কী? বিশ্বকাপের পর সব ফরম্যাট মিলিয়ে প্রোটিয়ারা খেলেছে মাত্র ১৩ ম্যাচ। টেস্ট খেলা দলগুলোর মধ্যে বেশি ম্যাচ খেলার তালিকায় তারা ১০ নম্বরে। এর পরও ‘ব্যস্ত’ বলে ক্রিকেটারদের ওপর থেকে চাপ কমাতে পাকিস্তান না যাওয়ার সিদ্ধান্ত তাদের।

আগামী মাসে দক্ষিণ আফ্রিকারও কথা ছিল পাকিস্তানে গিয়ে তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলার। সেই সম্ভাবনা গতকাল বাতিল করেছে দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট বোর্ড। ‘ব্যস্ততার’ কথা বলে সম্ভাব্য সিরিজ আপাতত বাতিল করেছে তারা। নতুন সূচি দুই বোর্ড মিলে আলোচনার পর জানাবে পরবর্তী সময়ে।

আগামীতে অবশ্য টানা সূচির মধ্যে থাকতে হবে কুইন্টন ডি কক, ফাফ দু প্লেসিসদের। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষে পাঁচ দিনের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে তারা। সেই সিরিজে থাকবে তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টি। ৭ মার্চ সেই সিরিজ শেষে প্রোটিয়ারা তিনটি ওয়ানডে খেলতে উড়ে আসবে ভারতে। সিরিজটা শেষ হবে ১৮ মার্চ। আর পাকিস্তানে শুরু হতে যাওয়া ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি লিগ পিএসএল শেষ হবে ২২ মার্চ। মাঝখানের চার দিন দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারদের দুবাইয়ে রাখতে চায় পিসিবি। এরপর রাওয়ালপিন্ডিতে এনে খেলাতে চায় তিন টি-টোয়েন্টির সিরিজ। প্রোটিয়ারা রাজি হচ্ছে না তাতে। এর অন্যতম কারণ ২৮ মার্চ শুরু হতে যাওয়া আইপিএল, যেখানে চুক্তিবদ্ধ তাদের বেশির ভাগ ক্রিকেটার। পিটিআই

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা