kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

মেয়েদের ফুটবল লিগ নিয়ে সার্কাস

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মেয়েদের ফুটবল লিগ নিয়ে সার্কাস

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফুটবলে অনিয়ম, অব্যবস্থাপনার অনেক অভিযোগ। তবে এবার মেয়েদের ফুটবল লিগ নিয়ে যা হচ্ছে তা আগের সব কিছুকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। বসুন্ধরা কিংসের মতো শীর্ষ ক্লাব আগ্রহ নিয়ে দল গড়লেও প্রিমিয়ারের আর কোনো ক্লাবকেই রাজি করাতে পারেনি বাফুফে। যাদের নেওয়া হয়েছে বেশির ভাগই অখ্যাত, অনেকের মতে প্যাডসর্বস্ব। তাদের নিয়েই দলবদল শেষ হয়ে যাওয়ার পর আবার নতুন দলবদলের নাটক, খেলা শুরুর তারিখ ঘোষণার পর অনির্দিষ্ট কারণে তা আবার স্থগিত করে দেওয়ার বিষয়গুলো তো ছিলই। এবার জানা গেছে নিবন্ধন করেছে এমন একটি দলকে খেলা শুরুর আগে বাদই দিয়েছে বাফুফে।

সুনামগঞ্জের স্বপ্নচূড়া ও আকেলপুর ফুটবল একাডেমির কর্তৃত্ব নিয়ে দুই পক্ষ বাফুফেতে আবেদন করে। ফেডারেশন তাদের মেলাতে না পেরে শেষ পর্যন্ত দলটিকে বাদই দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কাল তাদের বাদ দিয়েই ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে লিগ শুরুর নতুন সূচি ঘোষণা করা হয়েছে। দলবদল শেষ হয়ে যাওয়ার পর আবার নতুন করে ‘উইন্ডো’ খুলে দেওয়াতেই ঘোর আপত্তি ছিল বসুন্ধরা কিংসের। সেটাও হয়তো শেষ পর্যন্ত তারা মেনে নেবে লিগের স্বার্থে, কিন্তু কোনো দলকে অন্যায় সুবিধা দেওয়ার জন্য তা হলে ক্লাব সভাপতি ইমরুল হাসান স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘সে রকম হলে লিগেই আমরা অংশ নেব না। একে তো দলবদল হয়ে যাওয়ার পর আবার নতুন করে খেলোয়াড় নেওয়ার সুযোগ দেওয়াটা নিয়মবহির্ভূত। এখন যদি দেখা যায় সেই সুযোগটা দেওয়া হয়েছে বিশেষ কোনো ক্লাবের জন্য, তবে অবশ্যই আমরা তা মানব না।’

গত ১২ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফা দলবদল শেষ হয়ে গেলেও অদ্ভুত কারণে এই সময়ে দলগুলোতে কী কী পরিবর্তন এসেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন থেকেও তা এখনো জানানো হয়নি। ইমরুল হাসানও আছেন তা জানার অপেক্ষায়। আজ সেটি জেনে তারপরই সিদ্ধান্ত নেবেন তারা আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে লিগ শুরুর যে নতুন সূচি দিয়েছে বাফুফে তাতে খেলবেন কি না।

গত ২৬ জানুয়ারি মেয়েদের ফুটবল লিগের দলবদল শেষ হয়। কিন্তু গত ৮ ফেব্রুয়ারি কয়েকটি ক্লাবের আবেদনের কথা বলে বাফুফে আবার চার দিনের জন্য খেলোয়াড় নিবন্ধনের সুযোগ দেয়। ২৬ তারিখ শেষ হওয়া দলবদলে দেখা গিয়েছিল বসুন্ধরা কিংস জাতীয় দলের সিংহভাগকে দলে ভেড়ালেও জাতীয় দলে খেলা আরো কয়েকজন যেমন মার্জিয়া, আনুচিং মোগিনি, আনাই মোগিনি, সাজেদা, শামসুন্নাহার জুনিয়ররা কোনো দলই পাননি। এই খেলোয়াড় সবাই পরবর্তী সুযোগে কোনো বিশেষ একটি দলে নাম লিখিয়েছেন কি না, সেটিই এখন দেখার। গত ১২ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফা দলবদল শেষ হয়ে গেলেও অদ্ভুত কারণে এই সময়ে দলগুলোতে কী কী পরিবর্তন এসেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন থেকেও তা এখনো জানানো হয়নি। ইমরুল হাসানও আছেন তা জানার অপেক্ষায়। আজ সেটি জেনে তারপরই সিদ্ধান্ত নেবেন তারা আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে লিগ শুরুর যে নতুন সূচি দিয়েছে বাফুফে তাতে খেলবেন কি না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা