kalerkantho

শনিবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৪ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

মুখোমুখি প্রতিদিন

বিপিএলে নিজের ব্যাটিংয়ে সন্তুষ্ট

২০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিপিএলে নিজের ব্যাটিংয়ে সন্তুষ্ট

আট ম্যাচে ৩১.৬৬ গড়ে ১৯০ রান। বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সিলেট থান্ডারের যে দুর্দশা গেছে, তাতে মোসাদ্দেক হোসেন নিজের এই পারফরম্যান্সকে ভালোই মানছেন। কাঁধের ইনজুরির কারণে শেষ দিকের ম্যাচগুলো খেলতে পারেননি। একই কারণে নেই পাকিস্তান সফরের দলেও। ইনজুরি কাটিয়ে দ্রুত চেনা ছন্দে ফেরার আশাবাদ এই ব্যাটিং অলরাউন্ডারের

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : মন খারাপ?

মোসাদ্দেক হোসেন : ইনজুরির কারণে বেশ কিছুদিন মাঠের বাইরে। সে কারণে মন খারাপ। আর জাতীয় দলের পাকিস্তান সফরে যাওয়ার মতো অবস্থাই তো আমার নেই। সুস্থ হতে আরো ১০-১২ দিন লাগবে।

প্রশ্ন : বিপিএলেও নিশ্চয়ই একই লক্ষ্য ছিল। সেখানে নিজের ব্যাটিংকে কিভাবে মূল্যায়ন করবেন?

মোসাদ্দেক : সিলেট দলের যে অবস্থা ছিল, তাতে নিজের ব্যাটিংয়ে আমি সন্তুষ্ট। আট ম্যাচ খেলেছি, ১৯০ রান করেছি, গড় ৩১-এর মতো। খারাপ তো না। হারের মধ্যে থাকা দলে খেলেছি। ওপরের দিকে দ্রুত উইকেট পড়ে যেত। তখন আমার ও মিঠুন ভাইকে দায়িত্ব নিতে হয়েছে। মনে হতো, আমরা আউট হয়ে গেলে সিলেট ১০০-র মধ্যে অলআউট হয়ে যাবে। এ অবস্থায় নিজের ব্যাটিং যেটুকু করেছি, তাতে সন্তুষ্ট। খারাপ এক দলে খেলে নিজে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি, এই আর কি!

প্রশ্ন : ১২ ম্যাচের মধ্যে ১১টিতেই হেরেছে সিলেট থান্ডার। এমন দলে খেলার সময় নিজেকে উদ্দীপ্ত করা কতটা কঠিন?

মোসাদ্দেক : আমার মনে হয়, দল তৈরির সময়ই ম্যানেজমেন্ট ভুল করে ফেলেছে। আর তো আর অন্য কোনো দলে গিয়ে খেলার সুযোগ ছিল না। এ অবস্থার মধ্যেই তাই নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

প্রশ্ন : আপনার ইনজুরির এখন কী অবস্থা?

মোসাদ্দেক : রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে ফিল্ডিংয়ের সময় বাঁ কাঁধে ব্যথা পাই। প্রথম ১৪ দিন তো পুরোপুরি বিশ্রামে ছিলাম। এরপর কয়েক দিন হলো চিকিৎসা শুরু হয়েছে। পুরোপুরি সেরে উঠতে আরো ১০-১২ দিন লাগবে। পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে আমার তাই খেলার কোনো সুযোগই ছিল না। এ কারণেই নির্বাচকরা দলে রাখেননি।

প্রশ্ন : পরবর্তী লক্ষ্য?

মোসাদ্দেক : আগে ইনজুরি থেকে সেরে ওঠা। এরপর ঢাকা লিগে ভালো খেলা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা