kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ৩০ জমাদিউস সানি ১৪৪১

দ্রুততম মানব হয়েও আক্ষেপ ইসমাইলের

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দ্রুততম মানব হয়েও আক্ষেপ ইসমাইলের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : গত বছরের জানুয়ারিতে ১০০ মিটারের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিলেন মোহাম্মদ ইসমাইল। সামার মিটে অবশ্য খেতাবটা ধরে রাখতে পারেননি তিনি। সে হিসেবে চট্টগ্রামে কাল খেতাব পুনরুদ্ধার করেছেন এই স্প্রিন্টার। ১০.৪০ সেকেন্ডে জিতেছেন ১০০ মিটার। কিন্তু এই পারফরম্যান্সেও যে আক্ষেপের শেষ নেই ইসমাইলের।

কারণ তাঁকে দৌড়াতে হয়েছে ঘাসের ট্র্যাকে। বিস্ময়করভাবে এবারের জাতীয় অ্যাথলেটিকস সিনথেটিক ট্র্যাকের বদলে হচ্ছে চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের ঘাসের মাঠে। স্প্রিন্টের ইভেন্টগুলোও হচ্ছে মাটিতে। এই যুগে এসে যে কাণ্ডে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে। কাল দ্রুততম মানব হওয়া ইসমাইলের কণ্ঠেও সেই অনুযোগ, ‘১০০ মিটারে আবার চ্যাম্পিয়ন হতে পেরে ভালো লাগছে। তবে ঘাসের ট্র্যাকে দৌড়ানোটা মোটেও ভালো ব্যাপার ছিল না আমাদের জন্য। সিনথেটিক ট্র্যাকে দৌড়েই আমরা অভ্যস্ত। এভাবে ঘাসের মাঠে জাতীয় অ্যাথলেটিকস হওয়াটা দুঃখজনক। এখানে দৌড়ানোও কঠিন। গতি কমে যায়, বাড়াতে গেলে ইনজুরির আশঙ্কা থাকে। এবারের আসরটাও সিনথেটিক ট্র্যাকে হলে আমার বিশ্বাস আবারও আমি রেকর্ড গড়তাম। ঘাসের ট্র্যাকের কারণেই সেটা হলো না। এই টাইমিংয়ের কোনো মূল্য নেই কোথাও।’ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে হাতঘড়িতেই ১০.২০ সেকেন্ডে দৌড়ে রেকর্ড গড়েছিলেন ইসমাইল। এবার সেই টাইমিং ছাড়িয়ে গেলেও তা রেকর্ড হিসেবে গণ্য হতো না ওই ঘাসের ট্র্যাকের কারণেই। এই ট্র্যাকে কাল ১২.২০ সেকেন্ডে দৌড়ে দ্রুততম মানবীর খেতাবটা ধরে রেখেছেন শিরিন আক্তার। এসএ গেমসে রুপা জয়ী হাইজাম্পার মাহফুজুল ইসলাম সোনা ধরে রেখেছেন জাতীয় এই মিটে। গতবার ২.১৫ লাফিয়ে নতুন রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি, এসএ গেমসে সেই উচ্চতাও পেরিয়ে গিয়েছিলেন (২.১৬) তিনি। তবে কাল ২ মিটার লাফিয়েই সোনা নিশ্চিত হয়ে গেছে তাঁর। অন্যান্য ইভেন্টের মধ্যে ১৫০০ মিটারে সুমি আক্তার, শটপুটে মোহাম্মদ ইব্রাহিম, মেয়েদের হাইজাম্পে জান্নাতুল, মেয়েদের শটপুটে শ্রাবণী মল্লিক ও ৫০০০ মিটারে সোনা জিতেছেন মোহাম্মদ আল আমিন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা