kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

আবেগে ভাসছেন জোকোভিচ

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আবেগে ভাসছেন জোকোভিচ

জিতেছেন ১৬টি গ্র্যান্ড স্লাম। এটিপি ট্যুর মাস্টার্স ৩৪টি। র‌্যাংকিংয়ের চূড়ায় ছিলেন ২৭৫ সপ্তাহ। ক্যারিয়ারজুড়ে স্মরণীয় স্মৃতির কমতি নেই নোভাক জোকোভিচের। সেই তাঁর জীবনে অন্যতম মধুর স্মৃতি হয়ে থাকবে সিডনিতে এটিপি কাপে প্রথম শিরেপাটা। কারণ এটা ব্যক্তিগত নয়, জিতেছেন নিজের দেশ সার্বিয়ার হয়ে, সতীর্থদের সঙ্গে। আরেক কারণ গত পরশুর ফাইনালে প্রতিদ্বন্দ্বী রাফায়েল নাদালের স্পেনকে হারানো। টেনিসের নতুন সংযোজন এটিপি কাপের প্রথম শিরোপা জয় নিয়ে তাই উচ্ছ্বসিত জোকোভিচ। দেশের পতাকা জড়িয়ে সতীর্থদের সঙ্গে আনন্দে মাতাটা ভুলবেন না কখনই, ‘আমার বাকি জীবনে কখনো ভুলব না এই অভিজ্ঞতা। ক্যারিয়ারের অন্যতম মধুর স্মৃতি এটা।’

টেনিসকে আকর্ষণীয় করতে গ্র্যান্ড স্লামের পাশাপাশি এটিপি বছরজুড়ে আয়োজন করছে এটিপি ৫০০ টুর্নামেন্ট। ডেভিস কাপের আদলে এবার তারা আয়োজন করে ফেলল আন্তর্জাতিক এটিপি কাপ। ২৪ দেশের এই টুর্নামেন্ট নিয়ে শুরু থেকে আপত্তি ছিল রজার ফেদেরারের। এ জন্য নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন তিনি। খেলেনি তাঁর দেশ সুইজারল্যান্ডও। তাই শিরোপার দাবিদার ছিল নোভাক জোকোভিচের সার্বিয়া ও রাফায়েল নাদালের স্পেন। কদিন আগে স্পেনকে ডেভিস কাপের শিরোপা এনে দেওয়ায় রাফায়েল নাদালের দল এগিয়ে ছিল অনেকটা। কিন্তু হার্ডকোর্টে তিনি অসহায় আত্মসমর্পণ করেছেন জোকোভিচের কাছে। টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় ম্যাচে নাদালকে সরাসরি সেটেই হারান জোকোভিচ। প্রথম সেট ৬-২ গেমে জেতার পর দ্বিতীয়টি জেতেন ৭-৬-এ। অথচ প্রথম ম্যাচে সার্বিয়ার দুসান লাজোভিচকে ৭-৫, ৬-১ গেমে হারিয়ে স্পেনকে এগিয়ে দিয়েছিলেন রবার্তো আগুত। জোকোভিচের দুর্দান্ত টেনিসে সেই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি স্পেন।

হার্ডকোর্টে এ নিয়ে নাদালকে টানা ৯ ম্যাচ হারালেন জোকোভিচ। র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকা নাদাল হার্ডকোর্টে সব শেষ জোকারকে হারিয়েছিলেন ২০১৩ সালে! দ্বৈতে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ ছিল নাদালের। কিন্তু চোট আর ক্লান্তিতে প্রত্যাহার করে নেন নিজেকে। তাঁর অনুপস্থিতি কাজে লাগিয়ে পাবলো ক্যারোনা বুস্তা ও ফেলিশিয়ানো লোপেজ জুটিকে ৬-৩, ৬-৪ গেমে হারিয়ে দেন জোকোভিচ-ভিক্তর ত্রিকোরি জুটি। সিডনির এই টুর্নামেন্ট জিতে আবেগেই ভাসছেন জোকোভিচ, ‘এটা দলীয় প্রচেষ্টার ফল। আমার ক্যারিয়ারের অর্জন নিয়ে ভীষণ সন্তুষ্ট। তবে দেশের হয়ে, পছন্দের বন্ধুদের সঙ্গে খেলতে পারার সঙ্গে তুলনীয় হতে পারে না আর কিছু।’ বিবিসি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা