kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

আজ ফিরছেন মাহমুদ উল্লাহ

১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আজ ফিরছেন মাহমুদ উল্লাহ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতের বিপক্ষে কলকাতা টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংস। ইনিংস হার এড়াতে লড়ছে তখন বাংলাদেশ। মাহমুদ উল্লাহর স্বচ্ছন্দ ব্যাটিংয়ে ছিল আশার আলো। কিন্তু হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে পড়ার কারণে তো মাঠ থেকে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়েই বেরিয়ে যেতে হয় এ ব্যাটসম্যানকে।

এরপর ঠিক তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে। যে কারণে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) প্রথম দুই ম্যাচে মাঠে নামতে পারেননি। অবশেষে ইনজুরি থেকে মাহমুদ সেরে উঠেছেন পুরোপুরি। আজ রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফিরছেন অভিজ্ঞ এ ব্যাটসম্যান।

ভারত সফরে জাতীয় দলের অন্যদের মতো মাহমুদও ভুগছিলেন রানখরায়। প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অপরাজিত ১৫ রান করার পথে ছক্কায় দলকে ম্যাচ জেতান বটে। পরের দুই ম্যাচে ৩০ ও ৮ রানে থেমে যেতে হয়। ইন্দোরে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে ১০ ও ১৫ রান করায় সমালোচনা ধেয়ে আসে মাহমুদের দিকে। দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ছয় রানে আউট হওয়ার পর আরো বেশি করে। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে দুঃসময় কাটানোর প্রতিশ্রুতি ছিল তাঁর ব্যাটে। ১৩ রানে চতুর্থ উইকেট পতনের পর ক্রিজে যান মাহমুদ। বিরুদ্ধ স্রোতে পাল্টা আক্রমণকে করে তোলেন অস্ত্র। ৩৯ রান করতে খেলেন মোটে ৪১ বল। যে ইনিংসে বাউন্ডারিই সাতটি। কিন্তু উমেশ যাদবের বলে একটি রান নিতে গিয়ে ব্যথা পান হ্যামস্ট্রিংয়ে। সেটি এমনই যে উঠে যেতে হয় মাঠ থেকে।

তখনো অবশ্য ভাবা যায়নি, ইনজুরির কারণে মাহমুদকে এত দীর্ঘ সময় মাঠের বাইরে থাকতে হবে। দলের প্রয়োজনে পরদিন মাঠে নামার সম্ভাবনার কথাও শোনা যায় টিম ম্যানেজমেন্টের কাছ থেকে। কিন্তু সে অবস্থায় ছিলেন না তিনি। দেশে ফেরার পর শুরু হয় পুনর্বাসন। ইনজুরির মাত্রা বেশি থাকায় বিপিএলের প্রথম দুই ম্যাচে মাঠে নামা হয়নি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের নিয়মিত অধিনায়কের। কাল সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে দলটির পক্ষ থেকে আজ তাঁর ফেরার কথা জানানো হয়। বিসিবির ফিজিও বায়েজিদুল ইসলাম সব ধরনের পরীক্ষা শেষে মাহমুদকে খেলার জন্য ফিট হিসেবে ঘোষণা করেন।

মাহমুদ ছাড়া চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স ম্যাচ খেলেছে দুটি। সিলেট থান্ডারের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ তাঁর অভাব অনুভূত হতে দেননি সতীর্থরা। পাঁচ উইকেটের দাপুটে জয় পায় দলটি। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে একেবারে উল্টো অবস্থা। এবার খুলনা টাইগার্সের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। নিজেরা ধুঁকে ধুঁকে ১৪৪ রান করে। সেটি খুলনা টপকে যায় রাজসিক আধিপত্যে; ৩৭ বল এবং ৮ উইকেট অক্ষত রেখে।

মাহমুদের প্রত্যাবর্তন তাই চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের জন্য দারুণ সুখবর। শুধু অলরাউন্ডার নয়, একজন অধিনায়ককেও যে ফেরত পাচ্ছে তারা। নিয়মিত অধিনায়কের অনুপস্থিতিতে ইমরুল কায়েস নেতৃত্ব দেবেন বলে প্রথম ম্যাচের আগে জানানো হয়। কিন্তু মাঠে টস করতে নামেন ক্যারিবিয়ান রায়াদ এমরিট। প্রথম দুই ম্যাচেই অধিনায়ক ছিলেন তিনি। আজ রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে প্রত্যাবর্তনে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের নেতৃত্বও দেবেন মাহমুদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা