kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

শেষ ষোলোর ১৪ চূড়ান্ত

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



শেষ ষোলোর ১৪ চূড়ান্ত

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে অশ্বমেধের ঘোড়া হয়েই ছুটছে লিভারপুল। কিন্তু ঘরোয়া লিগে দুঃসময়েও যে আসরে তিনবছরের ভেতর দুইবার ফাইনাল খেলেছিল তারা, সেই উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের গ্রুপপর্বে ‘অলরেড’রা এবার ছিল একটু অনিশ্চয়তায়। নাপোলির বিপক্ষে দুই লেগ থেকে মাত্র ১ পয়েন্ট প্রাপ্তি ইউরোপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের শেষ ষোলোর সমীকরণটাকে করে তুলেছিল জটিল। তবে শেষ পর্যন্ত লিভারপুল শুধু গ্রুপ পর্ব উতরেই যায়নি,  গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই পা রাখছে নকআউট পর্বে। ওদিকে বার্সেলোনার কাছে হেরে ইউরোপায় নেমে যেতে হচ্ছে ইন্টার মিলানকে। ২-২ গোলে ড্র করেছে আরবি লিপজিগ ও অলিম্পিক লিওঁ, ‘জি’ গ্রুপের এই দুই দলই যাচ্ছে নকআউটে। গত মৌসুমের জায়ান্ট কিলার আয়াক্স আমস্টারডাম এবার আর পারেনি রূপকথা লিখতে। ক্রুইফের উত্তরসূরীদের নেমে যেতে হচ্ছে ইউরোপা লিগে। নিজমাঠে ভ্যালেন্সিয়ার সঙ্গে ১-০ গোলে হেরে গ্রুপে তৃতীয় হয়েছে আয়াক্স, তাদের গ্রুপ থেকে শেষ ষোলোয় যাচ্ছে চেলসি ও ভ্যালেন্সিয়া।

সলজবুর্গের মাঠে প্রথমার্ধটা গোলশুন্য কেটেছে ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যদের। অ্যানফিল্ডে অস্ট্রিয়ার এই ক্লাবের সঙ্গে রীতিমত ঘাম ঝরিয়ে জিতেছিল লিভারপুল, ৩-০তে পিছিয়ে থাকা সলজবুর্গ সমতা ফিরিয়ে এনেছিল ৬০ মিনিটের মাথায়। মো সালাহ’র গোলে শেষ পর্যন্ত ৪-৩ গোলে জিতে যে ৩ পয়েন্ট পেয়েছিল লিভারপুল, সেটাই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করেছে। শেষ ম্যাচে সলজবুর্গকে তাদের মাঠে হারিয়ে নাপোলিকে ১ পয়েন্টে পেছনে ফেলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই শেষ ষোলোয় ‘অলরেড’রা। ড্র’র নিয়মে তারা খেলবে বাকি ৭ গ্রুপের কোন এক রানার্সআপ দলের সঙ্গে, নকআউটে নিঃসন্দেহে যেটা বড় সুবিধা। গোলশুন্য প্রথমার্ধের পর ম্যাচের ৫৭ ও ৫৮ মিনিটে, নাবি কেইটা ও সালাহর গোল। দুই মিনিটে পর পর দুই গোলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ লিভারপুলের পায়ে। গিনির মাঝমাঠের ফুটবলার কেইটা লিভারপুলে এসেছিলেন সলজবুর্গ থেকেই, সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে তাঁর পায়েই খুলল গোলমুখের তালা। সতীর্থ সাদিও মানে ম্যাচশেষে মনে করিয়ে দিলেন সেই কথা,‘ খুব কঠিন ম্যাচ খেললাম, এমনটাই অবশ্য আশা করেছিলাম। আমরা দ্বিতীয়ার্ধে খেলার মান বাড়িয়েছি, নাবি সাবেক দলের বিপক্ষে অসাধারণ গোল করেছে। জয় আমাদের প্রাপ্য ছিল।’ একই গ্রুপে শেষ ম্যাচে গেঙ্ককে ৪-০ গোলে হারিয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে নাপোলিও। তবে দলকে জিতিয়েও চাকরি হারিয়েছেন নাপোলি কোচ কার্লো আনচেলোত্তি। ক্লাবের পক্ষ থেকে বিবৃতিতে জানান হয়েছে,‘ নাপোলি কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কোচ কার্লো আনচেলোত্তির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার। ক্লাব প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আনচেলোত্তির বন্ধুত্ব, সম্পর্ক ও পারস্পরিক শ্রদ্ধার জায়গায় এর কোন প্রভাব পড়বে না।’

ইন্টারের বিপক্ষে পরশু রাতে হারলেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়াটা আটকাতো না বার্সেলোনার। তাই তো মেসি-সুয়ারেসদের বাদ দিয়ে রিজার্ভবেঞ্চের শক্তি পরীক্ষা করার দল নিয়েই ইতালি এসেছিলেন এর্নেস্তো ভালভের্দে। গোলবারে নেতো; আক্রমণে আনসু ফাতি, কার্লেস পেরেজ, জুনিয়র ফিরপোরা। তাদের সঙ্গেও পেরে উঠল না আন্তনিও কন্তের ইন্টার মিলান। ২৩ মিনিটে পেরেজের করা গোলটা মধ্যবিরতির আগে ফিরিয়ে দিয়ে ইন্টারকে সমতায় এনে দিয়েছিলেন রোমেলু লুকাকু। খেলার নির্ধারিত সময় শেষের মিনিট চারেক আগে আনসু ফাতির গোলে ফের এগিয়ে যায় বার্সা। সবচেয়ে কম বয়সে চ্যাম্পিয়নস লিগে গোল করার রেকর্ডটা এখন ফাতির।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ৮ দলের শেষ ষোলো নিশ্চিত। দলগুলো হচ্ছে; বার্সেলোনা, বায়ার্ন মিউনিখ, জুভেন্টাস,লিপজিগ, লিভারপুল, ম্যানসিটি,প্যারিস সেন্ত জার্মেই ও ভ্যালেন্সিয়া। আর গ্রুপ রানার্স আপ হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে ৬ দল; বরুশিয়া ডর্টমুন্ড, চেলসি,লিওঁ, নাপোলি,রিয়াল মাদ্রিদ ও টটেনহাম। উয়েফা

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা