kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১২ রবিউস সানি     

ফুটবলে শেষ সুযোগ আজ

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : সুযোগ একদম শেষ হয়ে যায়নি। এসএ গেমসে খাদের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ আছে বাংলাদেশ ফুটবলের। সুযোগটা নিতে হলে আজকের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জামাল ভূঁইয়াদের ফিরতে হবে চেনা ফর্মে।

হঠাৎ ফর্ম নিয়ে বিপাকে পড়েছে বাংলাদেশ ফুটবল দল। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে তাদের যা পারফরম্যান্স এবং শরীরী ভাষায় যেমন মরিয়া ভাব ছিল সেটা হঠাৎ উধাও হয়ে গেছে। কাঠমান্ডুতে গিয়ে একদম সাদামাটা দল হয়ে গেছে জামাল-নাবিবদের দলটি। এসএ গেমসে তাদের ফেভারিট ধরা হলেও প্রথম দুই ম্যাচের একটিও জিততে পারেনি বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দলটি। প্রথম ম্যাচে ভুটানের কাছে অপ্রত্যাশিত হারের পর গত পরশু এগিয়ে গিয়েও ড্র করেছে মালদ্বীপের সঙ্গে। এই পারফরম্যান্স দেখে সবার মতো বিস্মিত বাংলাদেশ দলের কোচ জেমি ডে-ও। বিশেষ করে ভুটানের বিপক্ষে ম্যাচ দেখে ভীষণ বিরক্ত হয়েছিরেন এই ব্রিটিশ কোচ, ‘স্বাভাবিক পারফরম্যান্সের চেয়ে অনেক পেছনে ছিল আমাদের দল। তাদের যেরকম দাপট থাকে, সেটার এতটুকুও দেখা যায়নি মাঠে। জয়টা ভুটানেরই প্রাপ্য ছিল।’

তার আশা ছিল পরের ম্যাচ থেকেই চেনা রূপে ফিরবে বাংলাদেশ। মালদ্বীপের বিপক্ষে আত্মঘাতী গোলে লিড নিয়েও ১-১ গোলে ড্র করে এক পয়েন্ট পেয়েছে কোনোরকমে। তবে হ্যাঁ, এই ম্যাচ দেখে জেমি খানিকটা আশাবাদী হয়েছেন, ‘প্রথম ম্যাচের তুলনায় অনেক ভাল ছিল তাদের পারফরম্যান্স। ম্যাচে ২-০ লিড নেওয়ার মতো অবস্থা হয়েছিল। রেফারি একটা গোল বাতিল করে দিয়েছে অকারণে। আরেকটা দারুন সুযোগও নষ্ট হয়ে যায় রেফারির বিতর্কিত বাঁশিতে। নইলে দুই গোলের লিড নিয়ে ম্যাচ শেষ করে দেওয়ার সুযোগ ছিল আমাদের।’ সেটি জিততে না পারলেও বাংলাদেশ কোচ আশা নিয়ে তাকিয়ে আছেন আজকের ম্যাচের দিকে, ‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আমাদের জয় ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই। আমাদের সুযোগ আছে এখনো, ৫ দলের মধ্যে সেরা দুইয়ে থাকতে পারলে হবে।’ ফাইনালের পথে থাকতে হলে আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিততেই হবে। শ্রীলঙ্কা অবশ্য এখনো কোনো ম্যাচ হারেনি। দুটো ম্যাচে মালদ্বীপ ও নেপালের সঙ্গে ড্রয়ের সুবাদে তাদের সংগ্রহ এখন ২ পয়েন্ট। কিন্তু সেটা কোনো বড় সমস্যা নয়। আজ তাদের বিপক্ষে জেতার লক্ষ্য নিয়ে মাঠ নামবে জামাল ভূঁইয়ার দল, ‘পারফরম্যান্সটাকে আমরা এখনো সেই মানে তুলে নিতে পারিনি। কিন্তু আজকের ম্যাচে সাবাই সেরাটা দেওয়ার জন্য তৈরি। এটাই একরকম ফাইনাল হয়ে গেছে আমাদের জন্য। এই ম্যাচ জিতে নিজেদের আত্মবিশ্বাস ফিরে পেতে চাই। আসলে দুটো ম্যাচে যেরকম খেলেছে বাংলাদেশ অতো নীচু সারির দল নয়।’ হঠাৎ করে তাদের পারফরম্যান্সে অধোগতির কারন খুঁজতে গিয়ে কোচ দেখছেন ‘টানা ম্যাচ খেলে তারা ক্লান্ত। এখানে পারফরম্যান্সে সেটা বারবার চোখে পড়ছে।’

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা