kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

সুপার ক্লাসিকোতেই ফিরছেন মেসি

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সুপার ক্লাসিকোতেই ফিরছেন মেসি

মুখোমুখি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। ফুটবলপ্রেমীদের রোমাঞ্চিত হতে আর কী চাই? সৌদি আরবের কিং সৌদি ইউনিভার্সিটি স্টেডিয়ামে আজকের ‘সুপার ক্লাসিকোর’ মাহাত্ম্য আরো বাড়ছে লিওনেল মেসি ফেরায়। কোপা আমেরিকায় ব্রাজিল নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরেই আর্জেন্টাইন অধিনায়ক নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তিন মাস। সেই ব্রাজিলের বিপক্ষেই আজ ফিরছেন তিনি। তবে মেসির মতো কিংবদন্তির ফেরায় উদ্বিগ্ন নন  ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক থিয়াগো সিলভা, ‘মেসি অসাধারণ খেলোয়াড়, প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন, বিশ্বসেরা। ওর ফেরায় আমরা উদ্বিগ্ন নই। বরং মেসির মুখোমুখি হওয়ার সুযোগ পাওয়াটা বিশেষ কিছু। দুই দলের জয়ের সম্ভাবনা ৫০-৫০। আশা করছি ওদের চেয়ে বেশি অনুপ্রাণিত হয়ে খেলব আমরা।’

সব শেষ দেখায় কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে ব্রাজিলের কাছে হেরেছিল আর্জেন্টিনা। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে লিওনেল মেসি পান আবার লাল কার্ড। এরপর দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে রীতিমতো ধুয়ে দেন মেসি। ‘দুর্নীতিগ্রস্ত এই সংস্থা ব্রাজিলকে জেতানোর সব আয়োজন করে রেখেছে’—এমন মন্তব্য করাতেই হন নিষিদ্ধ। সেই মেয়াদ শেষের পর প্রথম ম্যাচটি ব্রাজিলের বিপক্ষে খেলছেন আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বোচ্চ গোল করা মেসি। তাঁকে ফিরে পেয়ে খুশি কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি। তবে মেসি না থাকলেও নিজের দল নিয়ে সব সময় আত্মবিশ্বাসী আর্জেন্টাইন কোচ, ‘পাঁচ থেকে ছয়জন খেলোয়াড় আমার দলটার মেরুদণ্ড। এরপর আপনি হারতে বা জিততেই পারেন, কারণ সেরা দল সব সময় জেতে না। এর পরও বলছি, আমাদের হারানো সহজ নয়।’

কোপা আমেরিকার ব্যর্থতা কাটিয়ে আর্জেন্টিনা ঘুরে দাঁড়িয়েছে দারুণভাবে। মেসি, সের্হিয়ো আগুয়েরো ছাড়া হারেনি টানা চার ম্যাচ। কোপা আমেরিকায় চিলিকে হারানোর ম্যাচটি ধরলে অপরাজিত টানা পাঁচ ম্যাচ। সব শেষ ম্যাচে ইকুয়েডরকে গুঁড়িয়ে দিয়েছে ৬-১ গোলে। প্রবল প্রতিপক্ষ জার্মানির সঙ্গে ড্র ২-২ গোলে। মেসির সঙ্গে আগুয়েরো ফেরায় আক্রমণের ধার আরো বাড়ার কথা আর্জেন্টিনার। সঙ্গে আছেন জুভেন্টাসে ছন্দে থাকা পাউলো দিবালা। সব শেষ ম্যাচে এসি মিলানের বিপক্ষে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর বদলি হয়ে নেমে গোল করেছেন তিনি। তাই সেরা একাদশে মেসি, আগুয়েরোর সঙ্গে দিবালাকে খেলানোর কথাই জানাচ্ছে আর্জেন্টাইন সংবাদমাধ্যম।

চোটের জন্য ব্রাজিল অবশ্য পাচ্ছে না ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় নেইমারকে। একই কারণে দলে নেই ম্যানচেস্টার সিটির গোলরক্ষক এদেরসন আর আয়াক্সের ফরোয়ার্ড দাভিদ নেরেস। কোচ তিতে দলে রাখেননি অভিজ্ঞ দানি আলভেস, মার্সেলো, ফের্নান্দিনহো, দগলাস কস্তার সঙ্গে রিয়াল মাদ্রিদের তরুণ প্রতিভা ভিনিসিয়াস জুনিয়রকে। জাতীয় দলের হয়ে কখনো মাঠে না নামা ছয়জনকে নিয়ে পরীক্ষা চালাতে চান তিতে। নেইমার না থাকলেও ‘নতুন নেইমার’ রদ্রিগো হতে পারেন আক্রমণের সেরা বাজি। চ্যাম্পিয়নস লিগে সবচেয়ে কম বয়সে ‘পারফেক্ট হ্যাটট্রিক’ করায় তাঁকে নিয়ে স্বপ্ন দেখতেই পারে ব্রাজিল।

কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতলেও সব শেষ চার ম্যাচে ব্রাজিল ছন্দহীন। ড্র তিনটিতে আর হারতে হয়েছে এক ম্যাচ। সব শেষ ম্যাচে নাইজেরিয়ার সঙ্গে ড্র ১-১ গোলে। ২০০৩-০৪ মৌসুমে টানা পাঁচ ম্যাচ ড্রর পর জয়হীন থাকার এটাই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নজির ব্রাজিলের। সেবার আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ৩-১ ব্যবধানের জয়ে ড্রর বৃত্ত ভেঙেছিল তারা। এমন ইতিহাস আজ সৌদি আরবের ‘সুপার ক্লাসিকোয়’ কি বাড়তি অনুপ্রেরণা জোগাবে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের? আশাবাদী ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুস, ‘ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা মানেই ফুটবল রোমাঞ্চ। ওদের দলে অনেক তারকা। এর পরও আশা করছি জিতব আমরাই।’ রয়টার্স

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা