kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

সাধারণ সভা নিয়েই ফুটবলে উত্তাপ

১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাধারণ সভা নিয়েই ফুটবলে উত্তাপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বার্ষিক সাধারণ সভাকে ঘিরে ফুটবলাঙ্গন উত্তপ্ত। আগামীকাল গাজীপুরে অনুষ্ঠেয় এই সভার আগে বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন প্রতিদিন বসছেন ফুটবল ক্লাবগুলোর সঙ্গে। আর প্রতিপক্ষ তরফদার মোহাম্মদ রুহুল আমিন বিভিন্ন ব্যানারে অভিযোগের তীর ছুড়ছেন তাঁর দিকে।

কাল ঢাকার একটি হোটেলে সভা করেছে ক্লাব ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। সেটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ক্যাসিনো বিতর্কে জড়ানো এ কে এম মমিনুল হক সাঈদ। তাঁকে বাদ দিয়ে এই পদে বসেছেন প্রিমিয়ারে ওঠা পুলিশ ফুটবল ক্লাবের কর্মকর্তা, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার শেখ মোহাম্মদ মারুফ হাসান। ক্লাবগুলোর এই সংগঠনের সভাপতি তরফদার মোহাম্মদ রুহুল আমিন অভিযোগ করেছেন, ‘ক্লাবগুলোকে হঠাৎ ডিসেম্বরের তারিখে চেক দিচ্ছে বাফুফে। ফুটবলের জন্য ঘোষিত ২০ কোটি টাকা এখনো ফেডারেশনে ঢোকেনি। তার আগেই চেক দেওয়ার কারণ বাফুফের গত তিন বছরের সব কর্মকাণ্ড যেন তারা অনুমোদন দিয়ে দেয় বার্ষিক সাধারণ সভায়। এ জন্যই ডিসেম্বরের তারিখে ক্লাবগুলোকে অগ্রিম চেক দেওয়া হয়েছে।’ এর আগে বাফুফের দুই সহসভাপতি বাদল রায় ও মহিউদ্দিন আহমেদ মহি ফেডারেশনের আর্থিক বিবরণীর বিভিন্ন অনিয়ম-অসংগতি নিয়ে প্রশ্ন তুলে চিঠি দিয়েছেন। যদিও বাফুফের ফিন্যান্স কমিটির প্রধান সালাম মুর্শেদী এসব অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন ‘ভিত্তিহীন’ বলে।

এদিকে শনিবারের সাধারণ সভা নিয়ে বাফুফে গতকাল জরুরি সভা করেছে। আগের তিন বছরের কর্মকাণ্ড এবং অর্থ বিবরণী অনুমোদনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এই সভায় তারা ফুটবলের ভোটার সংখ্যা বাড়ানোরও একটি পরিকল্পনা করেছে। দ্বিতীয় বিভাগ ফুটবলে শীর্ষ ক্লাবের ভোট ১০ থেকে বাড়িয়ে ১৩-তে উন্নীত করতে চাইছে তারা। তৃতীয় বিভাগে সেরকম ৮ থেকে বাড়িয়ে ২১ ক্লাবকে ভোটাধিকার দেওয়ার পরিকল্পনা আছে বাফুফের। অর্থাৎ ঢাকার ক্লাব ক্যাটাগরিতে মোট ১৬টি ভোট বাড়ানোর প্রস্তাবনা উঠবে বার্ষিক সাধারণ সভায়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা