kalerkantho

বুধবার । ২২ জানুয়ারি ২০২০। ৮ মাঘ ১৪২৬। ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

এসএ গেমস

সুযোগ বাড়ল সোনা জয়ের!

১২ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : এসএ গেমসে স্বর্ণপদক বাড়বেই বাংলাদেশের! একে তো নিজেদের সামর্থ্য বেড়েছে, পাশাপাশি ভারত এবার ১০টি ডিসিপ্লিনে অংশ নিচ্ছে না। তাতে বেড়েছে পদকের সম্ভাবনা।

এই আঞ্চলিক গেমসে দু-একটি বাদে ভারত সাধারণত সব ডিসিপ্লিনে অংশ নেয়। এবার তারা সেভাবে সাড়া দেয়নি ১ নভেম্বর থেকে কাঠামাণ্ডু-পোখরায় শুরু হতে যাওয়া এসএ গেমসে। মোট ২৭টি ডিসিপ্লিনের গেমসে হলেও ভারত অংশ নিচ্ছে ১৭টিতে। নেপাল অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের একটি সূত্র এটা নিশ্চিত করেছে গতকাল। আর্চারি, ক্রিকেট, গলফ, কারাতে, কাবাডি, প্যারাগ্লাইডিং, টিটি, টেনিস, তায়কোয়ান্দো ও কুস্তিতে অংশ নিচ্ছেন না এ অঞ্চলের হেভিওয়েটরা। ৯ ও ১০ নভেম্বর নেপাল অলিম্পিকে সভার সুবাদে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) দুই কর্মকর্তা এখনো আছেন কাঠমাণ্ডুতে। কয়েকবার তাঁদের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। ভারত মোট কয়টি ডিসিপ্লিনে অংশ নিচ্ছে, এ ইস্যুতে বিওএ মহসাচিব সৈয়দ সাহেদ রেজাও গতকাল মুখ খুলতে চাননি। তবে নেপাল অলিম্পিকের একটি সূত্র ভারতীয়দের ১০ ডিসিপ্লিনে অংশ না নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্বর্ণপদক বাড়ার সুযোগ অবশ্যই আছে। বিশেষ করে আর্চারিতে বাংলাদেশের ভালো সম্ভাবনা আছে এখন। কয়েক দিন আগে রোমান সানাসহ অন্যদের গেমসে ভালো করার ইঙ্গিত দিয়েছে আর্চারি ফেডারেশন। আর্চারিতে দক্ষিণ এশিয়ায় সেরা ভারত, তাদের সঙ্গে লড়ে এখনো পর্যন্ত এসএ গেমসে সোনার মুখ দেখেননি বাংলাদেশের কোনো আর্চার। গত জুনে বিশ্ব আর্চারি ভারতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করায় তারা আসছে না গেমসে। 

ক্রিকেট-ফুটবলেও সোনার স্বপ্ন দেখতে পারে বাংলাদেশ। ক্রিকেটে অংশ নিচ্ছে না এশিয়ার দুই পরাশক্তি ভারত ও পাকিস্তান। ফুটবলে ভারত খেললেও নেই পাকিস্তান। গলফেও মিলতে পারে পদক। কারণ ভারতীয় গলফাররা আসছেন না। একই কারণে দেশের কারাতে, কাবাডি ও তায়কোয়ান্দোরও ভালো করার সুযোগ আছে।

২০১৬ সালে শিলং-গুয়াহাটিতে অনুষ্ঠিত এসএ গেমসে বাংলাদেশ জিতেছিল চারটি স্বর্ণপদক। কিন্তু এবার হঠাৎ করে এসএ গেমসকে ঘিরে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের প্রত্যাশা বড় হয়ে যায়। কিছুদিন আগে বিওএ মহসাচিব সৈয়দ সাহেদ রেজা কালের কণ্ঠকে বলেছিলেন নিজের আশাবাদের কথা, ‘আমার বিশ্বাস, এই গেমসে আগের চেয়ে ভালো করবে বাংলাদেশ। বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের ট্রেনিং ও খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স দেখে এবং বিচার-বিশ্লেষণ করে আমার এই বিশ্বাস জন্মেছে।’ এসএ গেমস উপলক্ষে চার মাসের ট্রেনিং প্রগামে তিনি খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সে উন্নতি দেখলেও বাস্তবে সেটা খুব চোখ পড়ছে না। তবে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী ভারত না এলে বাংলাদেশের সোনাসহ অন্যান্য পদকের সুযোগ বাড়বে বৈকি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা