kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রুদ্ধশ্বাস শেষ ওভার!

২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : আরেকটি রুদ্ধশ্বাস অপেক্ষার দিন গেল গতকাল! মনে করা হচ্ছিল শেষ ওভারের খেলা হয়ে যাবে সন্ধ্যা নামার আগেই। কিন্তু সে ওভারটা হলো রাতে, মিরপুরে বিসিবি কার্যালয়ের কৃত্রিম আলোর নিচে!

অপেক্ষা এমনিতেই বিরক্তিকর। তার ওপর পত্রিকার সময়সীমা বলে একটা কথা আছে। অথচ আন্দোলনরত ক্রিকেটারদের প্রতিনিধি হয়ে সন্ধ্যায় মিডিয়ার মুখোমুখি হওয়া আইনজীবী কিনা ক্রিকেট শেখানো শুরু করলেন মিডিয়াকে! আন্দোলন ঘোষণার দিন সাকিব আল হাসানরা পড়ে শুনিয়েছিলেন ১১ দফা। মাঝে এক দিন বিরতির পর গতকাল জানা গেল দাবি বেড়েছে দুটি। সেই নতুন দুটি দাবি জানতে উদগ্রীব মিডিয়াকে কেন যে ব্যারিস্টার সাহেব ক্রিকেট ‘পড়াতে’ সময় ব্যয় করলেন, বোঝা গেল না। এক অধৈর্য সহকর্মী তো পেছনে থেকে চেঁচিয়ে বললেন, ‘এগুলা আমরা জানি। আপনি শেষ দুই দফা পড়ে শোনান!’

তিনি শুনিয়েছেন, যা বিসিবি কার্যালয়ে নিজের অফিস রুমে বসে সহকর্মীদের নিয়ে শুনেছেন নাজমুল হাসান। কে জানে, ক্রিকেটারদের আইনজীবীর অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তার কারণে বিরক্ত হয়েই কিনা এক পরিচালক ফোনে জানালেন, ‘ওরা আইনজীবী দিয়ে এসব বলাচ্ছে যখন তখন আমরাও আইনজীবী দিয়ে আগে ওদের দাবিগুলোর যৌক্তিকতা বুঝে নিতে চাই।’

বোর্ডের তরফে রক্তচাপ বেড়ে বিস্ফোরক হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। দুপুরের পর বোর্ড সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে আসার আগেই সব দাবি মেনে নিয়ে আলোচনায় বসার আহ্বান জানান প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী। সেমতে ফোনে যোগাযোগ করেও কোনো ক্রিকেটারকে পাননি তিনি। এরপর বোর্ড সভাপতি কার্যালয়ে পা রাখার পর থেকে পরিচালকদের অনেকেও চেষ্টা করেছেন ক্রিকেটারদের বার্তা দিতে। কিন্তু তাতেও কাজ হয়নি।

বিকেলের দিকে অনেকটা আশাহত হয়েই মিডিয়ার মুখোমুখি হন বিসিবি পরিচালক জালাল ইউনুস। তিনি আবার জানান, ‘আমরা দাবি মেনে নেব। এখন অপেক্ষায় আছি ক্রিকেটাররা কখন আসে। আমরা ৫টা পর্যন্ত অপেক্ষা করব। প্রয়োজনে আরো অপেক্ষা করতে পারি।’ তাতেও অবশ্য ক্রিকেটারদের তরফ থেকে সাড়া মেলেনি। উল্টো সন্ধ্যায় গুলশানের একটি হোটেলে ক্রিকেটাররা সংবাদ সম্মেলন করবেন—খবরটা শোনার পর গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টি হয় বিসিবিতে। একদল হতাশ তো আরেক দল ক্ষুব্ধ ক্রিকেটারদের আচরণে।

তবে ডিনার টাইম শুরুর আগেই বরফ গলতে থাকে দুই পক্ষে। সবুজ সংকেত পেয়ে গুলশানের হোটেল থেকে ক্রিকেটাররা যান বিসিবির কার্যালয়ে বোর্ড সভাপতির সঙ্গে আলোচনায় বসতে। আলোচনাও শেষ হয় ফলপ্রসূভাবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা