kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সৌরভে ‘মুক্ত’ বিসিসিআই

২৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সৌরভে ‘মুক্ত’ বিসিসিআই

৩৩ মাস পর অবশেষে সুপ্রিম কোর্টের আদেশের শিকলমুক্ত হলো ভারতের ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। অবসান হলো আদালত কর্তৃক নিযুক্ত কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরস বা সিওএ যুগের। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হিসেবে আজ দায়িত্বভার গ্রহণ করলেন সৌরভ গাঙ্গুলি।  দাদাগিরির নতুন অধ্যায়ে অভিষেকের দিনে সাবেক এই ভারতীয় অধিনায়ক জানিয়েছেন, ‘যেভাবে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দিয়েছি, সেভাবেই বোর্ডকেও নেতৃত্ব দেব।’

আইপিএলে ম্যাচ গড়াপেটা, বোর্ডে দুর্নীতিসহ নানা ব্যাপারে ভারতের ক্রিকেট যখন প্রশ্নবিদ্ধ, তখন সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপে ক্রিকেট প্রশাসনের ভার দেওয়া হয় কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের হাতে।  সৌরভের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়া এবং দায়িত্বভার গ্রহণের মাধ্যমে শেষ হলো ৩৩ মাসের ‘সিওএ’ পর্বেরও। দায়িত্ব নিয়ে প্রথম বৈঠকেই সৌরভ জানিয়েছেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কথা, ‘স্বচ্ছতার ব্যাপারে দৃঢ় অবস্থান, দুর্নীতিমুক্ত এবং সবার সমান অধিকার; এই নিয়মেই বিসিসিআই চলবে। খেলোয়াড়দের উদ্দেশ্যে সৌরভের আশ্বাস, ‘আমরা এখানে জীবন সহজ করতে এসেছি, কারো জীবন কঠিন করতে নয়। সব কিছুই বিচার করা হবে পারফরম্যান্সের ওপর ভিত্তি করে। এখানে পারফরম্যান্সই একমাত্র মাপকাঠি।’ মহেন্দ্র সিং ধোনির ভবিষ্যৎ নিয়ে কী ভাবছেন, সেটাও জানালেন, ‘চ্যাম্পিয়নরা সহজে শেষ হয় না। আমিও দল থেকে বাদ পড়ে দুই বছর পর আবার ফিরেছি এবং আরো চার বছর খেলেছি। ধোনি ভারতের গর্ব, ক্রিকেটেরই সেরাদের একজন। ওর অর্জনের তালিকা শেষ হবে না।’ তবে এটাও জানিয়েছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে সিরিজে ধোনির না খেলার সম্ভাবনাই বেশি, কারণ বিশ্বকাপের পর ক্রিকেট মাঠেই যে নেই ধোনি। একই সঙ্গে বিরাট কোহলিকেও দিয়ে রাখলেন আস্থার বার্তা, ‘কোহলি এই মুহূর্তে ভারতীয় ক্রিকেটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি। আমরা তার কথা শুনব। আমিও অধিনায়ক ছিলাম। আমি জানি কিভাবে ব্যাপারগুলো সামলাতে হয়।’ বিজয়নগরের মহারাজা গজপতি রাজুর পর সৌরভই প্রথম বিসিসিআই সভাপতি, যাঁর জাতীয় দলের খেলা পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে। টিওআই

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা