kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

শুরুতেই ধাক্কা খেল কিংস

গতিময় ফুটবলে দুই দলই দর্শক মাতাচ্ছিল। তবে কেরালা সুযোগ কাজে লাগিয়েছে, অপ্রত্যাশিত অসাধারণ গোলও পেয়েছে তারা। অন্য প্রান্তে কিংস ফিনিশিংয়ে কিছুটা দুর্বল, ভাগ্যও সঙ্গী ছিল না। শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপে বাংলাদেশ লিগ চ্যাম্পিয়নদের শুরুটা হয়েছে তাই হার দিয়ে, তার ব্যবধানও কম নয় ৩-১।

শাহজাহান কবির, চট্টগ্রাম থেকে   

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



শুরুতেই ধাক্কা খেল কিংস

ছবি : রবি শঙ্কর

টুর্নামেন্টের আগের দুটি ম্যাচ মোটামুটি একতরফা হলেও চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে কাল কিংস-কেরালার ম্যাচের শুরু থেকেই উত্তেজনা। গতিময় ফুটবলে দুই দলই দর্শক মাতাচ্ছিল। তবে কেরালা সুযোগ কাজে লাগিয়েছে, অপ্রত্যাশিত অসাধারণ গোলও পেয়েছে তারা। অন্য প্রান্তে কিংস ফিনিশিংয়ে কিছুটা দুর্বল, ভাগ্যও সঙ্গী ছিল না। শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপে বাংলাদেশ লিগ চ্যাম্পিয়নদের শুরুটা হয়েছে তাই হার দিয়ে, তার ব্যবধানও কম নয় ৩-১।

আসরের ফেভারিট কিংসের জন্য এটা বড় এক ধাক্কাই। ৩-০-তে পিছিয়ে পড়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নামা মতিন মিয়া একটি গোল শোধ করেছেন, স্ট্রাইকার জালাল কেদুর একটি হেড পোস্টে, একটি শট ক্রসবারে। ভাগ্য সঙ্গে থাকলে অন্তত পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়তে পারত কিংস। কিন্তু সেটি হলো না। টুর্নামেন্টের শুরুতেই তাই কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে অস্কার ব্রুজোনের দল। কাল ৩ গোলে পিছিয়ে পড়েও যে ম্যাচ খেলেছে তারা এই ছন্দে অবশ্য সেই কঠিন চ্যালেঞ্জ পেরোনোর কথা ভাবতেই পারে তারা। কিংস কোচও আত্মবিশ্বাসী, ‘পরের ম্যাচে অবশ্যই আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে, সেই সামর্থ্য এই দলের আছে।’ কিংসের পরের ম্যাচ আই লিগেরই আরেক দল চেন্নাই সিটির বিপক্ষে, যারা কাল মালয়েশিয়ার তেরেঙ্গানুর কাছে হেরেছে ৫-৩ গোলে। লি টাকের তেরেঙ্গানু কাল গোকুলামের মতোই নিজেদের শক্তি দেখিয়েছে। কিংসের জন্য সেরা দুইয়ে থেকে শেষ চারে চাওয়া সে জন্যও কঠিন।

ডেনিয়েল কলিনড্রেস, বিপলু আহমেদ ও লেবানিজ স্ট্রাইকার জালালকে নিয়ে কাল ৪-৩-৩ ফরম্যাশনে খেলছিল কিংস। মাঝ মাঠে বখতিয়ার দুশোবেকভ, রবিউল হাসান ও ইমন মাহমুদ। রবিউলের নেওয়া কর্নারে কলিনড্রেসের হেড পোস্টে থাকলে ম্যাচের ১৩ মিনিটে কিংসই এগিয়ে যেত। ডিফেন্সে সেন্টার ব্যাক ইয়াসিনের সঙ্গী বিশ্বনাথ ঘোষ। তপু বর্মণের মাঠে ফিরতে এখনো মাসখানেক, তাই বিকল্প ব্যবস্থা। কিন্তু তাতে উতরানো যায়নি। উগান্ডার দীর্ঘদেহী ফরোয়ার্ড হেনরি কিসেকার বাঁ দিক থেকে ক্রস পায়ে কিংসের দুই ডিফেন্ডারের মাঝ থেকেই বল জালে পাঠিয়ে দেন ম্যাচের ২৪ মিনিটে। ৩৩ মিনিটে দ্বিতীয়বার পিছিয়ে পড়ে কিংস নাথানিয়েল গার্সিয়ার একটি অসাধারণ ফ্রিকিকে। প্রায় ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগোর এই উইঙ্গারের বুলেট গতির শট হাওয়ায় সামান্য বাঁক নিয়ে ঢুকে যায় জালে। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার আগেই অবশ্য ব্যবধান কমাতে পারত, কলিনড্রেসের ক্রসে রবিউলের ডাইভিং হেড ক্রসবার ঘেঁষে বেরিয়ে না গেলে।

বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচে ফিরবে ব্রুজোনের দল, কিক অফের পরপরই এক কাউন্টার অ্যাটাকে বাংলাদেশি সমর্থকদের বিস্ময়ে ডুবিয়ে তৃতীয় গোলটিও পেয়ে যায় গোকুলাম। এবার নাথানিয়েলের কাট ব্যাকে হেনরির কোনাকুনি শট জালে। শীর্ষ লিগে নাম লেখানোর পর এমন পরিস্থিতিতে আর কখনোই পড়তে হয়নি কিংসকে। ফেডারেশন কাপের ফাইনালে আবাহনীর কাছে ৩-১ গোলে হেরেছিল, কিন্তু সেখানেও প্রথম গোলটি ছিল কিংসের। সেই কিংস ম্যাচের ৪৬ মিনিটে ৩-০-তে পিছিয়ে ভাবা যায়! ভাগ্য যে এদিন সঙ্গে নেই তাদের। নইলে গোকুলামের তৃতীয় গোলের পরপরই রবিউলের ক্রসে জালালের ওমন হেড কেন পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যাবে। ৭৩ মিনিটে মতিন ব্যবধান কমান। তার আগে জালালের হেড লাগে পোস্টে, আরেক বদলি খেলোয়াড় এলিটা কিংসলের শট গোললাইন থেকে ফিরে এলে মতিন সেই ফিরতি বলই জালে পাঠিয়েছেন বাঁ পায়ের গড়ানো শটে। এরপর মুহূর্তেই আবার জালালের শট ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে। ম্যাচের শেষ ১৫-২০ কিংসের এই মরিয়া চেষ্টায় উত্তেজনা ফিরেছিল তাই এমএ আজিজে, কিন্তু ম্যাচে আর ফেরা হয়নি কিংসের।

অন্য ম্যাচের নায়ক ব্রুনো সুজোকি। ৫ গোলের চারটিই যে করেছেন তেরেঙ্গানু স্ট্রাইকার। লি টাকের পেল মেকিংয়ে প্রথম গোলটি করেছিলেন অবশ্য রহমত মিন মাকাসুম। তেরেঙ্গানু খেলোয়াড়দের ত্বরিত মুভমেন্টে অনেকটা অসহায় ছিল চেন্নাই সিটির ডিফেন্স। নিজেদের ভুলে ২৩ মিনিটে সেই লিড হারাতে হয়েছে তেরেঙ্গানুকে। পরে আবার গোলরক্ষকের ভুলেই এগিয়ে যায় চেন্নাই। কিন্তু তেরেঙ্গানু ৩৭ মিনিটে ২-২ করে বিরতির আগে আবার ৩-২-এ এগিয়েও যায় সুজোকির গোলে। দ্বিতীয়ার্ধে হ্যাটট্রিক পূরণ করেছেন এই জাপানিজ-ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার। ম্যাচ শেষ হওয়ার মিনিট কয়েক আগে নিজের চতুর্থ আর দলের হয়ে পঞ্চম গোলটিও করেছে তেরেঙ্গানু ফরোয়ার্ড। শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি থেকে অবশ্য হারের ব্যবধান কমিয়ে স্কোরলাই ৫-৩ করেছে চেন্নাই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা