kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ০৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৭ রবিউস সানি ১৪৪১     

টাইব্রেকারে হারল মেয়েরা

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে ভারতের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে অবশেষে টাইব্রেকারে হার মেনেছে বাংলাদেশ। ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ের খেলা ড্র ছিল গোলশূন্যভাবে। শ্যুট আউটে বাংলাদেশকে ৫-৩ ব্যবধানে হারায় ভারত।

শ্যুট আউটের প্রথম শটটিই মিস করে বাংলাদেশ। মিস হয় তৃতীয়টিও। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের খেলায় বাংলাদেশের ডিফেন্ডাররা কোনো ভুল করেননি। পুরো ম্যাচে কোনো দলই অবশ্য তেমন পরিষ্কার কোনো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। ছেলেদের সিনিয়র জাতীয় দলের মতো কিশোরীরাও রক্ষণ সামলে প্রতি-আক্রমণের কৌশল নিয়ে খেলে। ভারতীয়রা একের পর এক আক্রমণ করেও আঁটসাঁট রক্ষণে তাই আটকে যায়। বাংলাদেশের কিশোরীরাও বল পেয়েই দ্রুত আক্রমণে উঠেছে। দুই ফরোয়ার্ড রোজিনা আক্তার ও শাহিদা আক্তার বার কয়েকই আতঙ্ক ছড়িয়েছে ভারতীয় ডিফেন্সে। তবে পরিষ্কার গোলের সুযোগ হয়নি। ১৯ মিনিটে কাউন্টারে ওঠা শাহেদাকে ওয়ান অন ওয়ানে ফিরিয়েছে ভারতীয় গোলরক্ষক। বাংলাদেশের গোলরক্ষক রুপ্না চাকমাও খেলছিল আস্থা নিয়ে। 

ভারতীয় মেয়েরা বাংলাদেশের বক্সের সামনে দ্রুত পাস খেলে জায়গা বের করতে চাইছিল। কিন্তু ডিফেন্স লাইনের অনমনীয়তায় সেভাবে সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না তারা। আধঘণ্টার সময় বাঁ দিক থেকে আসা ক্রসে ভারতীয় স্ট্রাইকার লিন্ডা কম বল পোস্টে ঠেললেও গোলরক্ষক রুপ্না ছিল তৈরি।

মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৫ সাফে ভারত-বাংলাদেশের এটা ছিল টানা তৃতীয় ফাইনাল। ঢাকায় প্রথম আসরের শিরোপা জেতা বাংলাদেশ ভুটানেই দ্বিতীয় আসরে সেই শিরোপা ধরে রাখতে পারেনি। হার ছিল ১-০ গোলে। এবার ছিল সেই শিরোপা পুনরুদ্ধারের মিশন। তবে দুই দলই খেলেছে পাল্লা দিয়ে। লিগ পর্বেও অপরাজিত ছিল এই দুই দল। ভুটান ও নেপালকে হারিয়ে তারা ফাইনালে ওঠে। শিরোপার মীমাংসাটা শেষ পর্যন্ত হলো টাইব্রেকারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা