kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আতশ কাচের নিচে মুস্তাফিজের ফিটনেস

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আতশ কাচের নিচে মুস্তাফিজের ফিটনেস

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ফাস্ট বোলারের জন্য আদর্শ কন্ডিশন আর উপযোগী উইকেট, কিন্তু গত ফেব্রুয়ারিতে হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ নামে মুস্তাফিজুর রহমানকে ছাড়াই। আনকোরা আর অনভিজ্ঞ পেস বোলিং আক্রমণ নিয়ে নামা সফরকারীরা তাদের সেরা বোলারকে রেখেছিল বিশ্রামে। এটি অবশ্য হঠাৎ ঘটা কোনো ব্যাপার নয়, নিয়মিতই হয়ে আসছে। বাঁহাতি পেসারের ওপর থেকে ভার কমাতে কখনো তাঁকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। আবার কখনো তিনি নিজেও টানা খেলার ধকল নেওয়ার মতো অবস্থায় থাকেন না। আসন্ন ভারত সফরেও টানা দুই টেস্ট খেলার মতো অবস্থায় থাকবেন কি না, তৈরি হয়েছে সেই সংশয়ও।

যে সংশয়কে আরো উসকে দিয়েছে তাঁর সব শেষ অবস্থা এবং প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের বক্তব্য। জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) অন্তত প্রথম দুই রাউন্ড খেলার কথা বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের। কিন্তু ১০ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া প্রথম রাউন্ডেই গোড়ালির চোটের কারণে খেলা হয়নি মুস্তাফিজের। তবে আগামীকাল থেকে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে খেলার কথা আছে তাঁর। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রাজশাহীর বিপক্ষে নামলেও খুলনার হয়ে নিজের সেরা কতটা মেলে ধরতে পারবেন, তাও এখনো নিশ্চিত নয়। কারণ ‘কাটার মাস্টার’ সেরে উঠছেন তবে পুরোপুরি কি না, সেটিই বোঝা যাবে এই ম্যাচে।

ভারত সফরের দল ঘোষণার আগে তাই মিনহাজুল আজই মুস্তাফিজের বোলিং দেখতে উড়ে যাচ্ছেন খুলনায়। তাঁর সামনেই ফিটনেসের প্রমাণ দিতে হবে সাতক্ষীরার তেঁতুলিয়া থেকে উঠে আসা পেসারকে। প্রধান নির্বাচকও জানিয়েছেন যে ‘দ্য ফিজ’কে তিনি ফিট অবস্থায়ই পেতে চান, ‘(দলে জায়গা পেতে) ওকে অবশ্যই ফিটনেস প্রমাণ করতে হবে।’

কিন্তু এই একটি ম্যাচেই কি তা দিতে পারবেন মুস্তাফিজ? প্রশ্নটি উঠছেই কারণ ফিজিওর তরফ থেকে যে এখনো তাঁকে পুরোদমে ব্যবহারের ছাড়পত্র মেলেনি। ফিজিওর ধরিয়ে দেওয়া সেই ব্যবস্থাপত্রের কথা এসেছে মিনহাজুলের কথায়ও, ‘ফিজিও আমাদের একটি গাইডলাইন দিয়েছেন। ওর প্রথম ম্যাচ থেকেই খেলার কথা ছিল (এনসিএলে)। যেহেতু ওর গোড়ালিতে একটু সমস্যা আছে, এ কারণে পুরোপুরি ভার সে নিতে পারছে না।’ পারছেন না যখন, তখন তাঁর ফিটনেসের বিষয়ে নিশ্চিত হতে অনেক কিছুই দেখার আছে মিনহাজুলদের। ভারত সফরের দল ঘোষণার আগে খুলনা-রাজশাহী ম্যাচ থেকে সেসবই দেখে নিতে চান মিনহাজুল, ‘এখন সে সেরে উঠছে। দেখার বিষয় যে সে কত ওভার বল করতে পারে।’

বোলিং করারও একটি মাত্রা বেঁধে দিয়েছেন ফিজিও, ‘ফিজিও একটি গাইডলাইন দিয়েছেন যে (এনসিএলের) দ্বিতীয় ম্যাচে সে দিনে ১৫ ওভারের বেশি বোলিং করতে পারবে না। তা করতে পারছে কি না, সেটি আমরা দেখব। এবং ওর ফিটনেসের বিষয়ে চিন্তা করব।’ যদিও ভারত সফরে প্রথম টেস্ট শুরু হতে এখনো ঢের দেরি। ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু হবে ইন্দোরে। ২২ নভেম্বর থেকে কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। এর আগে ৩, ৭ ও ১০ নভেম্বর হবে টি-টোয়েন্টি সিরিজের তিনটি ম্যাচ। ম্যাচপিছু মাত্র ৪ ওভার বোলিংয়ের সে চ্যালেঞ্জ নিতে নিশ্চিতভাবেই আগ্রহী হবেন তিনি। টিম ম্যানেজমেন্টও তাঁকে ছাড়া নামতে চাইবে না। কিন্তু এরপর টানা দুই টেস্ট খেলতে পারবেন তো মুস্তাফিজ? মিনহাজুল অবশ্য এই বিষয়ে ঢুকতে চাইলেন না, ‘এটি পুরোপুরি টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। মাঠে আমরা কাজ করি না। ফিটনেস ট্রেনার ও বোলিং কোচ আছেন। মুস্তাফিজ কতটুকু বোলিং করতে পারবে বা টানা দুই টেস্ট খেলতে পারবে কি না, সে আপডেট দেবেন ওনারাই।’ গত বেশ কিছুদিন ধরে মুস্তাফিজকে বিশেষ করে লম্বা দৈর্ঘ্যের ম্যাচে যেভাবে ব্যবহার করে আসা হচ্ছে, তাতে ভারত সফরেও টেস্ট সিরিজে তাঁকে বিশ্রামে রাখা হলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। এ ক্ষেত্রে যে তাঁকে ‘ভারমুক্ত’ রাখার নীতিই অবলম্বন করে আসা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা