kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মসনদে ‘মহারাজ’ সৌরভ

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মসনদে ‘মহারাজ’ সৌরভ

ম্যাচ পাতানোর কালো অধ্যায় থেকে সৌরভ গাঙ্গুলির হাত ধরে ঘুরে দাঁড়িয়েছিল ভারত। এবার কলকাতার ‘মহারাজ’ হাল ধরতে চলেছেন শ্রীনিবাসনের অপশাসনে চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে পড়া ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের। নাটকীয়ভাবে বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে চলেছেন তিনি। ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় নির্বাচনের জন্য গতকাল ছিল মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন। গত পরশু রাতে দীর্ঘ আলোচনার পর ভারতীয় ৩০ রাজ্যের বোর্ড কর্তারা সমর্থন দেন সৌরভকেই। তাই একমাত্র প্রার্থী হিসেবে গতকাল মনোনয়ন জমা দেন ভারতের অন্যতম সেরা এই অধিনায়ক। আগামী ১০ মাস বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী বোর্ডের দায়িত্বে থাকবেন তিনি। লোধা কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী এরপর তিন বছরের জন্য চলে যেতে হবে বাধ্যতামূলক ‘কুলিং অফে’।

ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে পুষ্পপতি বিজয় আনন্দ গজপতি রাজু, যিনি ‘মহারাজকুমার বিজয়াঙ্গরম’ নামেই বেশি পরিচিত, ১৯৫৪ থেকে ১৯৫৬ পর্যন্ত ছিলেন বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট। এবার দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে সেই চেয়ারে বসতে চলেছেন আরেক মহারাজ বা ‘প্রিন্স অব ক্যালকাটা’খ্যাত সৌরভ। এই দুজনের মাঝে ২০১৪ সালে খণ্ডকালীন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন সাবেক আরো দুই ক্রিকেটার সুনীল গাভাস্কার ও শিবলাল যাদব। ১৯৯৬ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত ১১৩ টেস্ট ও ৩১১ ওয়ানডে খেলা সৌরভ পশ্চিমবঙ্গ থেকে জগমোহন ডালমিয়ার পর দ্বিতীয় ব্যক্তি হিসেবে বসতে চলেছেন বোর্ড প্রেসিডেন্টের চেয়ারে। দায়িত্বটা নিয়ে বোর্ডের খয়ে যাওয়া সুনাম ফেরানোই লক্ষ্য সৌরভের, ‘আমি আগের রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্তও নিশ্চিত ছিলাম না এমন কিছু হতে চলেছে। দায়িত্বটা যখন নিচ্ছি তখন বিসিসিআই ভাবমূর্তি সংকটে ভুগছে। এটা ভালো করার দায়িত্ব পাওয়া আমার জন্য বড় সুযোগ। চেষ্টা করব ঘরোয়া ক্রিকেটের উন্নতিতেও।’

জগমোহন ডালমিয়ার মৃত্যুর পর সিএবির শীর্ষ কর্তা হিসেবে পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। ডালমিয়া ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের বন্ধু। সৌরভও তা-ই হবেন বলে বিশ্বাস বিসিবি কর্তাদের। বিসিবির পরিচালক জালাল ইউনুস গতকাল তেমন আশাবাদই ব্যক্ত করেছেন, ‘বিসিসিআইয়ের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সব সময়ই ভালো। সৌরভ গাঙ্গুলি একজন বাঙালি, সাবেক ক্রিকেটারও। সে জন্য নিঃসন্দেহে বাড়তি সুবিধা পাব। তাঁর সঙ্গে যেকোনো বিষয়ে আলোচনা করতে স্বচ্ছন্দ বোধ করব।’  সৌরভের সঙ্গে অমিত শাহর ছেলে জয় শাহ হতে চলেছেন বোর্ড সেক্রেটারি। আর সাবেক প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুরের ছোট ভাই অরুণ ধুমাল হতে চলেছেন কোষাধ্যক্ষ। পিটিআই

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা