kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সল্ট লেকে স্বপ্নচোখে জামাল ভূঁইয়া

১৫ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সল্ট লেকে স্বপ্নচোখে জামাল ভূঁইয়া

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ভারতীয় ফুটবল হিমালয়ের চূড়ায় থাকলেও অতলে তলিয়ে যায়নি বাংলাদেশের ফুটবল। তাই বুঝি লাল-সবুজের কোচ-অধিনায়ককে ঘিরে আগ্রহের শেষ নেই ভারতীয়দের। ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে সেই আগ্রহ মেটাতে গিয়েই জামাল ভূঁইয়া বলে বসেন, ‘কাল (আজ) ভারতকে গুঁড়িয়ে দিতে চাই, আমাদের ওপর কোনো চাপ নেই।’ এমন হুংকারের পর যা হয়, কথার পিঠে চলে আসে অনেক কথা। সেসবের জবাব দিতে দিতেই জামাল-জেমি সংবাদ সম্মেলনে কাটিয়ে দিলেন ৪০ মিনিট।

তাঁর হুংকারের মূলে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের গত দুই ম্যাচ। আফগানিস্তান ও কাতারের বিপক্ষে ম্যাচ দুটি হারলেও বাংলাদেশের প্রাপ্তি হয়েছে অনেক। বিশেষ করে কাতার ম্যাচে দুর্দান্ত খেলার পর তারা ভয়ডরহীন এবং দারুণ আত্মবিশ্বাসী। তাতে যেন দুই দলের র‌্যাংকিংয়ের বিশাল পার্থক্য ঘুচিয়ে ফেলার স্বপ্ন দেখছেন জামাল ভূঁইয়া। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলছেন, ‘এই ম্যাচে আমরা জিতলে বদলে যাবে বাংলাদেশের ফুটবল। এটা আমাদের ফুটবলে উন্নতির বড় সুযোগ করে দেবে।’ দেশের ফুটবলের চেহারা ফেরানোর জন্যই আজ সল্ট লেক স্টেডিয়ামে লাল-সবুজের জয়টা যেন খুব জরুরি। ভারতের ফুটবল এগোচ্ছে তুমুল গতিতে। ঘরোয়া ফুটবলে লিগের সঙ্গে ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবল লিগ যোগ হওয়ায় তাদের সামগ্রিক ফুটবলের সামগ্রিক হাওয়াটাই বদলে গেছে। তারা এখন আর বাংলাদেশের কাতারের দল নয়। টক্কর দেয় অনেক বড় বড় দলের সঙ্গে। কিন্তু সেই গতিতে এগোতে পারছে না বাংলাদেশ। সামগ্রিক ফুটবলেও সংস্কারের চেহারা নেই। এর মধ্যেও গত বছর থেকে জেমি ডে’র অধীনে নেতিয়ে পড়া লাল-সবুজের দলে যোগ হয়েছে নতুন উজ্জীবনী শক্তি।

সেই জোর তো আছেই, সঙ্গে দীর্ঘদিনের চেনা প্রতিবেশী মিলিয়ে এই ভারত যেন জামালদের কাছে অত বড় প্রতিপক্ষ ঠেকছে না! তাই অবলীলায় জয়ের কথা বলতে পারছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।

শুধু জয়ের স্বপ্ন নয়, খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্য রকম এক আত্মবিশ্বাসও ভর করছে। ‘আমি মনে করি, দুই দলই এই ম্যাচের জন্য অপেক্ষা করছে। দুর্দান্ত একটা ম্যাচ হবে এটা। ভারতের সঙ্গে আমাদের অনেক ইতিহাস আছে। তাই প্রত্যেকে এই ম্যাচের দিকে তাকিয়ে আছে’—বলেছেন জামাল ভূঁইয়া। এই ম্যাচটা ভারতের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। তারা এশিয়া কাপ খেলে, এখন দেখছে বিশ্বকাপের স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন টিকিয়ে রাখতে হলে আজ জিততেই হবে। সেরকম কোনো স্বপ্নে বাঁধা নয় বাংলাদেশের ফুটবল, তারা চাইছে খেলার উন্নতির ধারায় ভারতের বিপক্ষে একটি জয় মিললে তা দেশের ফুটবলের জন্যই হবে বিশাল অনুপ্রেরণা। এখনো পর্যন্ত দুই দলের ২৮ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছে শুধু তিনটি আর ভারতের জয় ১৫টি, বাকি ১০ ম্যাচ ড্র। তাই ভারতের বিপক্ষে ২৯তম ম্যাচের ওপর দেশের ফুটবলের অনেকখানি নির্ভর করছে। কিন্তু ম্যাচ যে ৭০ হাজার ভারতীয় দর্শকের সামনে। আমাদের দেশেই যারা দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে খেলে তারা কি অত প্রতিপক্ষ দর্শকের চাপ সইতে পারবেন? মামনুল ইসলাম ব্যাপারটাকে ভাবছেন অন্যভাবে, ‘ওদের মাঠে দর্শকরাই হবে আমাদের জেদ। এত দর্শকের মধ্যে আমাদের মধ্যে ভালো খেলার তাগিদটা বেশি কাজ করবে। তাদের জন্য চাপ হবে আর আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা