kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ নভেম্বর ২০১৯। ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

বেলজিয়ামের পর ইতালি

১৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বেলজিয়ামের পর ইতালি

রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্ব পার করতে পারেনি ইতালি, প্লে-অফে সুইডেনের কাছে হেরে তারা হয়ে যায় দর্শক। আগামী বছরের ইউরোতে সেই ইতালিই পা রাখল আগেভাগে, দ্বিতীয় দল হিসেবে। রোমের স্তাদিও অলিম্পিকোতে গ্রিসকে ২-০ গোলে হারিয়ে ‘জে’ গ্রুপে সাতে সাত করে ফেলল রবার্তো মানচিনির শিষ্যরা। প্রথাগত নীলের বদলে পান্না সবুজ নতুন জার্সিতে মাঠে নেমেছিল ইতালি। ‘সবুজায়ন’টা ভালোভাবেই হয়েছে তাদের। ৯ পয়েন্টের ব্যবধানে গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে ইতালির জায়গা পাকা। বাকি তিন ম্যাচে ইতালি যদি হারে আর দুইয়ে থাকা ফিনল্যান্ড যদি সব জেতে তাহলেও শেষ পর্যন্ত মুখোমুখি জয়ে ইতালিই থাকবে ওপরে। তাই বলা যায় স্বাগতিকবিহীন ইউরোর পরবর্তী আসরে দ্বিতীয় দল হিসেবে নিজেদের জায়গা নিশ্চিত করল ইতালি।

২০০৪ সালে ইউরোর শিরোপা জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল গ্রিস। এরপর অবশ্য কখনোই ইউরোপের ফুটবলে পরাশক্তি হয়ে উঠতে পারেনি গ্রিকরা। তবে দৃঢ় রক্ষণের জোরে হতাশ করেছে অনেক প্রতিপক্ষকেই। ইউরোর বাছাই পর্বে এবার অবশ্য তাদের বেহাল দশা, সাত ম্যাচের ভেতর এখন পর্যন্ত তারা জিতেছে একটিই, সেটাও দুর্বল লিচেনস্টাইনের বিপক্ষে। তলার দিক থেকে দুইয়ে থাকা গ্রিসের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ইতালি জিততে না পারলেই হতো অঘটন, সেটা হয়নি তবে আশঙ্কা যে জাগেনি তা নয়। প্রথমার্ধ গোলশূন্য। বলের দখলে পিছিয়ে থাকা গ্রিসের কৌশল ছিল রক্ষণাত্মক, সেই রাস্তায় অনেকখানি সফলও হয়েছিলেন জন ভ্যান্ট শ্বিপ। ৬২ মিনিটে বুচালাকিসের হ্যান্ডবলের শাস্তি হিসেবে পেনাল্টি কিক পেয়ে যায় ইতালি। জর্জিনহো স্পটকিকে বল জালে জড়িয়ে ইতালিকে এগিয়ে দেন ১-০ গোলে। গোল খেয়ে খানিকটা আগল ভাঙে গ্রিস, গোল শোধে করে কিছু মরিয়া চেষ্টা। কিন্তু তাতে সাফল্য আসেনি বরং ৭৮ মিনিটে বের্নাদোশির গোল আরো পিছিয়ে দেয় গ্রিসকে। ২-০তেই বাজে শেষ বাঁশি। তাতেই ৩ পয়েন্ট আর ইউরোর টিকিট ইতালির। জয়ের পর জর্জিনহো জানালেন স্বস্তির কথা, ‘জয় এবং চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করতে পেরে আমরা খুবই খুশি। দারুণ একটা রাত, দারুণ অভিজ্ঞতা। গ্রিকরা প্রায়ই ১১ জন মিলে রক্ষণ করেছে, তাদের বিপক্ষে খেলা সহজ নয়। আমি গোল করে খুশি, তবে সবচেয়ে খুশি চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করে, কারণ সেটাই সবচেয়ে বড় ব্যাপার।’

ইতালি চূড়ান্ত পর্বে পা রাখতে পারলেও আটকে গেছে স্পেন। নিজেদের মাঠে নরওয়ে স্পেনকে আটকে দিয়েছে ১-১ গোলে। ইকের ক্যাসিয়াসকে টপকে স্পেনের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড গড়ার রাতে সের্হিও রামোসকে ফিরতে হয়েছে মাত্র ১ পয়েন্ট নিয়ে। ৪৭ মিনিটে সাউল নিগুয়েসের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল স্পেন। জয়ের কয়েক মুহূর্ত দূরে দাঁড়ানো অবস্থায় বক্সের ভেতর ফাউল করেন স্প্যানিশ গোলরক্ষক কেপা। নিজে দেখেন হলুদ কার্ড, সঙ্গে পেনাল্টি। স্পটকিকে কিং গোল করেন ম্যাচের ৯৪তম মিনিটে। শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি থেকে সমতা ফিরিয়ে ১-১ গোলে ড্র করে স্পেনের চূড়ান্ত পর্বে পা রাখাটা বিলম্বিত করল নরওয়ে। ম্যাচ শেষে রামোসের হতাশা, ‘শেষ মুহূর্তে এভাবে গোল খেয়ে পয়েন্ট হারানোটা খুবই হতাশার। যে দলটা হারলেই বিদায় নেবে, তাদের বিপক্ষে খেলাটা কঠিন।’ ১ পয়েন্ট পেয়ে নরওয়ের হয়েছে ৭ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট। শীর্ষে থাকা স্পেনের ৭ ম্যাচে ১৯। কাগুজে হিসেবে স্পেন যদিও এখনো চূড়ান্ত পর্বে উত্তীর্ণ হয়নি, তবে স্প্যানিয়ার্ডদের অপেক্ষাটাও বেশিক্ষণের হবে না। পরের ম্যাচটি সুইডেনের সঙ্গে, তাদের মাঠে, সেই ম্যাচে যদি নাও জেতে স্পেন তার পরও নভেম্বরে মাল্টার বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলেও চূড়ান্ত পর্বের টিকিট পেয়ে যাবে ‘লা ফিউরিয়া রোজা’রা। ডেনমার্ক ১-০ গোলে হারিয়েছে সুইজারল্যান্ডকে আর সুইডেন ৪-০ গোলে হারিয়েছে মাল্টাকে। প্রথম দল হিসেবে চূড়ান্ত পর্ব নিশ্চিত করা বেলজিয়াম ২-০ গোলে হারিয়েছে কাজাখস্তানকে। বেলারুশকে ২-১ গোলে হারিয়েছে নেদারল্যান্ডস। উয়েফা

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা