kalerkantho

রবিবার। ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭। ৯ আগস্ট ২০২০ । ১৮ জিলহজ ১৪৪১

কিংসের সাম্রাজ্যে আরো পাঁচ

১০ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কিংসের সাম্রাজ্যে আরো পাঁচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্লাবটি তো নামেই ‘রাজা’—বসুন্ধরা কিংস! এ তাঁবুতে যে একের পর এক রাজসিক সব ফুটবলার যোগ হবেন, তাতে আর আশ্চর্য কী! নতুন মৌসুমে তৃতীয় দফার চুক্তিতে কাল যেমন পাঁচজনকে আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের করে নিল তারা। অভিষেক মৌসুমে পেশাদার লিগ চ্যাম্পিয়ন ক্লাবটির স্বপ্নের আকাশ যে এবার আরো বড়, সেটিই যেন জানান দিচ্ছে একটু একটু করে।

প্রথম দিন গোলরক্ষক আনিসুর রহমান, ফরোয়ার্ড মাহবুবুর রহমান এবং ডিফেন্ডার ইয়াসিন খানের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করে বসুন্ধরা কিংস। পরের দফায় নিজ নিজ পজিশনের আরো তিন ‘রাজা’—তপু বর্মণ, আতিকুর রহমান ও রবিউল হাসান। কাল তৃতীয় দফায় দলভুক্ত করে গোলরক্ষক মিতুল হাসান, মিডফিল্ডার আলমগীর কবির রানা, গোলরক্ষক মাসুদুর রহমান মোস্তাক, ডিফেন্ডার নুরুল নাঈম ফয়সাল এবং রাইট ব্যাক মনির হোসেনকে। তাঁদের মধ্যে প্রথম চারজন আগের মৌসুমেও ছিলেন এ ক্লাবে, কাল তাঁদের চুক্তি নবায়ন করা হয়। আর শেষজনকে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব থেকে নিয়েছে বসুন্ধরা কিংস।

অভিষেক মৌসুমেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের শিরোপা জিতে বসুন্ধরা কিংস নিজেদের অস্তিত্বের জানান দেয় প্রবলভাবে। জিতেছিল স্বাধীনতা কাপের শিরোপাও। কিন্তু ফেডারেশন কাপ ফসকে যাওয়ায় ঘরোয়া ফুটবলের ‘ত্রিমুকুট’ জেতা হয়নি। এবার সে লক্ষ্য তো রয়েছেই; পাশাপাশি এএফসি কাপের সাফল্যেও চোখ ক্লাবটির। ফুটবলাররাও তা জানেন। চুক্তির পর কাল গোলরক্ষক মিতুল যেমন বলছিলেন, ‘গতবার আমরা দুটি শিরোপা জিতেছি; এবার ট্রেবল জিততে চাই।’ সমর্থকদের কাছে ‘মাচো ম্যান’ হিসেবে পরিচিত নুরুলের কথাটি শুনুন, ‘এবার আমরা এএফসি কাপে খেলছি। সেখানে অবশ্যই ভালো করতে চাই।’

নতুন মৌসুমের দল নিয়ে তৃপ্তি কোচ অস্কার ব্রুজোনেরও, ‘প্রথম মৌসুমে আমরা চেয়েছিলাম দেশসেরা ক্লাব হতে। সেটি হয়েছি। এখন নতুন মৌসুমে যেসব ফুটবলারকে দলে নিচ্ছি, তারা নিজেদের পজিশনে দেশের অন্যতম সেরা। আমরা প্রতিনিয়ত শক্তিশালী থেকে আরো শক্তিশালী হচ্ছি।’ বাংলায় ‘ধন্যবাদ’ বলে কথা শুরু করে বুঝিয়ে দেন, বাংলাদেশের এই ক্লাবকে কতটা হৃদয়ে ধারণ করছেন এই স্প্যানিশ কোচ।

আবেগ ও পেশাদারিত্বের মিশেলে বসুন্ধরা কিংসের এগিয়ে চলায় বড় অবদান ক্লাব সভাপতি ইমরুল হাসানের। নতুন মৌসুমে শক্তিশালী দল করার প্রতিশ্রুতি কাল আরো একবার শোনা গেল তাঁর কণ্ঠে, ‘আমরা যেসব ফুটবলারকে দলে নেওয়ার টার্গেট করেছি, সবাইকে নিতে পারলে এ ক্লাব হবে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সেরা ক্লাব। সে দল নিয়ে এএফসি কাপে খুব ভালো কিছু করতে চাই। যেন বাংলাদেশ ফুটবলের ভাবমূর্তি এশিয়া মহাদেশে উজ্জ্বল হয়।’

যে স্বপ্ন নিয়ে, যেমন পেশাদার কাঠামোতে এগোচ্ছে বসুন্ধরা কিংস— তাতে সেটি খুব অসম্ভব কিছু মনে হয় না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা