kalerkantho

শনিবার । ১৬ নভেম্বর ২০১৯। ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

আবার স্বপ্নভঙ্গের বেদনা

১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আবার স্বপ্নভঙ্গের বেদনা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : দেশ ছাড়ার আগে অনূর্ধ্ব-১৯ বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক আকবর আলী জানিয়েছিলেন শিরোপার স্বপ্নের কথা। সেই স্বপ্নপূরণের পথে বহুদূরই হেঁটে গিয়েছিল বাংলাদেশ, শেষ মুহূর্তে আবারও স্বপ্নভঙ্গের বেদনা। ভারতের কাছে ৫ রানের হারে অধরাই থাকল যুব এশিয়া কাপের শিরোপা।

অথচ শুরুটা ছিল কি দারুণ আশাজাগানিয়া! আসরের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ও সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক অর্জুন আজাদ শূন্য রানেই ক্যাচ দেন উইকেটের পেছনে। এরপর তিলক বর্মাও কট বিহাইন্ড। ৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলা ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দলের মান বাঁচান অধিনায়ক ধ্রুব জুড়েল (৩৩) ও শাশ্বত রাওয়াত (১৯)। এরপর আবারও ব্যাটিংধস, করণ লাল এক প্রান্ত আগলে রেখে ৩৭ রান করলেও অন্য প্রান্তে আসা-যাওয়ার মিছিলে ভারত অল আউট ১০৬ রানে। ৭.৪ ওভারে ১৮ রানে ৩ উইকেট মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীর, ৬ ওভারে ৮ রানে ৩ উইকেট শামীম হোসেইনের।

স্বপ্নপূরণের পথে বহুদূরই হেঁটে গিয়েছিল বাংলাদেশ, শেষ মুহূর্তে আবারও স্বপ্নভঙ্গের বেদনা। ভারতের কাছে ৫ রানের হারে অধরাই থাকল যুব এশিয়া কাপের শিরোপা।

৫০ ওভারে জয়ের জন্য করতে হবে ১০৭ রান। এমন সহজ লক্ষ্যের পেছনে ছোটাও যে কতটা কঠিন, বাংলাদেশের ব্যাটিং শুরুর আগে সেটা অনুমানও করা যায়নি। প্রথম ওভারেই তানজিদ হাসানকে লেগ বিফোর উইকেট আউট দিয়েছেন আম্পায়ার, যদিও সিদ্ধান্তটা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ। কিন্তু পরে মাহমুদুল হাসান, তৌহিদ হৃদয়রা যেভাবে আউট হয়েছেন তাতে নিজেদের দায়টাই বেশি। ১৬ রানে ৪ উইকেট চলে যাওয়ার পর আকবর জোরালো চেষ্টা করেছেন দলকে জেতানোর, ৩৬ বলে ২৩ রান করে বোলারের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়েই তাঁর প্রচেষ্টার সমাপ্তি। মৃত্যুঞ্জয় এসে চেষ্টা করেছেন দ্রুত রান তুলে একটা মরিয়া সুযোগ নেওয়ার, ২ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ২১ রান তুলে তাঁকেও ফিরতে হয়েছে। রাকিবুল হাসান আর তানজিম হাসান সাকিব একটা অসম্ভব স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন; কিন্তু তাঁরাও টিকে থাকতে পারলেন না শেষ পর্যন্ত। ম্যাচের ৩৩তম ওভারের তৃতীয় বলে আউট হলেন সাকিব, শেষ বলে শাহীন আলম। এখানেই শেষ বাংলাদেশ, অল আউট ১০১ রানে। জয় তখনো ৫ রান দূরে। ৫ উইকেট নিয়ে অথর্ব আনোলেকার হয়েছেন ম্যাচসেরা।

গত বছর দেশের মাটিতে যুব এশিয়া কাপে ভারতের ১৭২ রান তাড়া করতে গিয়ে ১৭০ রানে অল আউট হয়েছিল বাংলাদেশ, যে ম্যাচে ছিলেন আকবর, হৃদয়, মৃত্যুঞ্জয়রা। এবার ভারতকে আরো অল্পতে গুটিয়ে দেওয়া গেলেও শেষ পর্যন্ত জেতা হলো না, হারের ব্যবধানটা বেড়ে হয়েছে ৫ রানের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা