kalerkantho

মুখোমুখি প্রতিদিন

পাওয়ার প্লেতে বোলিং করে উইকেট পেয়েছি

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পাওয়ার প্লেতে বোলিং করে উইকেট পেয়েছি

প্রস্তুতি ম্যাচে জিম্বাবুয়ে দলের কাছে হেরেছে বিসিবি একাদশ। ম্যাচে প্রাপ্তি বলতে আফিফ হোসেনের বোলিং। ৪ ওভারে ১৯ রান দিয়ে আফিফ নিয়েছেন ৩ উইকেট। টি-টোয়েন্টি দলে ডাক পাওয়া আফিফ আশাবাদী একাদশে জায়গা করে নেওয়ার, ম্যাচের পর জানিয়েছেন সাংবাদিকদের

প্রশ্ন : প্রস্তুতি ম্যাচে নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে আপনি কতটা সন্তুষ্ট?

আফিফ হোসেন : প্রস্তুতি ম্যাচের মাধ্যমে ভালো প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ ছিল। ১০-১৫ রান আরো বেশি করার সুযোগ ছিল। বোলিংটা ভালো করেছি, এটা আমাদের আত্মবিশ্বাস দেবে।

প্রশ্ন : ব্যাটিংয়ের প্রস্তুতি নিয়ে কি সন্তুষ্ট?

আফিফ : শুরুটা ভালোই হয়েছিল, ১০-২০টা বেশি রান হলে আরো ভালো হতো। এই জায়গাতে আমরা পিছিয়ে ছিলাম। এটা হলে আমাদের জন্য আরো ভালো হতো। আমি মাত্র ১০ রান করে আউট হয়ে গেছি। মুশফিক ভাই, সাব্বির ভাইর ইনিংসগুলো বড় হলে আমাদের রানটা আরেকটু বেশি হতো।

প্রশ্ন : জাতীয় দলে দেড় বছর পর ফিরেছেন,এই লম্বা সময়ে আপনার মধ্যে কী পরিবর্তন এসেছে?

আফিফ : দেড় বছর লম্বা সময়। গত বছর ফেব্রুয়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টিতে খেলেছিলাম। এরপর জাতীয় দলে না খেললেও খেলার ভেতরেই ছিলাম। স্কিল লেভেল কোথায় পৌঁছেছে সেটা তো আমি বিবেচনা করতে পারব না। আমার খেলা দেখে অন্যরা বুঝতে পারবে। আমি ‘এ’ দল, এইচপিতে যতগুলো খেলা হয়েছে সবখানে খেলেছি, ওখানে ভালো খেলার চেষ্টা করেছি। ওটাই আমাকে অন্য জায়গায় ভালো খেলতে হেল্প করবে

প্রশ্ন : বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের হয়ে তো ব্যাট হাতেই বেশি ভালো করছিলেন। কাল বোলিংটা হঠাৎ বেশি ভালো হয়ে গেল, তিন উইকেট পেয়ে গেলেন...

আফিফ : ইমার্জিং দল আর ‘এ’ দলের হয়ে বোলিংটা কম করা হচ্ছিল। এখানে সুযোগ পেয়ে কাজে লাগাতে পেরেছি। পাওয়ার প্লেতে বোলিং করেছি, উইকেট পেয়েছি। এই আত্মবিশ্বাস কাজে দেবে।

প্রশ্ন : গোটা দলের বোলিং পারফরম্যান্স কেমন মনে হয়েছে, আরেকটু আঁটসাঁট বোলিং কি করা যেত না?

আফিফ : আরেকটু আঁটসাঁট বোলিং তো অবশ্যই করা যেত। আমরা শুরুর দিকে কিছু সুযোগ হাতছাড়া করেছি। কিছু ক্যাচ আমাদের হাত থেকে ফস্কেছে। সেটা না হলে ম্যাচটা অন্য রকম হতে পারত। আমাদের বোলারদের আরো ভালো বোলিং করার জায়গা ছিল।

মন্তব্য