kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফিরে এসে স্মিথের ডাবল

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফিরে এসে স্মিথের ডাবল

সূর্য পূর্ব দিকে ওঠে। এটা যেমন সত্যি, স্টিভেন স্মিথ টেস্ট খেলতে নামলেই শতরান করবেন—এটাও বোধ হয় চিরায়ত সত্যি হওয়ার পথে! বল টেম্পারিংকাণ্ডে নেতৃত্ব খুইয়ে এক বছর নিষিদ্ধ থাকার পর ফিরলেন টেস্টে, এজবাস্টনে প্রত্যাবর্তনেই জোড়া শতক। লর্ডসে একটা ইনিংসই খেলতে পেরেছেন। মাথায় আঘাত পাওয়ার আগে করেছিলেন ৮০ রান, এরপর খানিকটা বিশ্রাম নিয়ে মাথা ঘোরাটা কিছুটা কমে আসার পর ব্যাট করতে এসে যোগ করেছেন আরো ১২ রান। শতরান হয়নি, তবে সুস্থ থাকলে যে লর্ডসেও শতরান করে ফেলতেন স্মিথ, তা নিয়ে কারোরই সন্দেহ নেই! হেডিংলিতে বিশ্রাম নিলেন, এরপর ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে খেলতে নেমে শতরান করেই থামেননি; আদায় করে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় ডাবল সেঞ্চুরি। থেমেছেন ২১১ রানে। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ৪৯৭ রানে ইনিংস ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া।

১৯৩০ সালের ইংল্যান্ড সফরে স্যার ডন ব্র্যাডম্যান রান করছিলেন একেবারে শতকের ঐকিক নিয়ম মেনে। প্রথম টেস্টে সেঞ্চুরি, দ্বিতীয় টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি আর তৃতীয় টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরি! স্মিথ যেন মনে করিয়ে দিচ্ছেন ব্র্যাডম্যানকেই। টেস্ট গড়ে ব্র্যাডম্যানের পরেই এখন স্মিথ, শতরানের সংখ্যায় মাত্র তিন পা পিছিয়ে। ব্র্যাডম্যানের ৫২ টেস্টে ২৯ শতরান, স্মিথ কাল করলেন ক্যারিয়ারের ২৬তম শতরান। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে দ্বিতীয় দিনের খেলার শুরুটাই হয়েছিল স্মিথের শতরানের সুবাস মেখে। আগের দিন ৬০ রানে অপরাজিত ছিলেন স্মিথ, কাল দিনের প্রথম সেশন শেষ হওয়ার পাঁচ মিনিট আগেই তুলে নিলেন শতরান। ওভারটনের করা বলটা স্কয়ার লেগে ঠেলে দিয়ে ডাবলস নিয়ে চলতি অ্যাশেজে নিজের তৃতীয় আর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সব শেষ আট ইনিংসে পঞ্চমবারের মতো তিন অঙ্কে পৌঁছনোর কীর্তি স্মিথের। শতরানের পর অবশ্য সামান্য ভাগ্যের ছোঁয়া পেয়েছেন স্মিথ, জ্যাক লিচের বলে স্লিপে ক্যাচ দিয়েছিলেন। কিন্তু নো বল হওয়ার কারণে বেঁচে যান। জীবন পেয়ে স্মিথও বড় করছেন ইনিংসটাকে। সঙ্গে পেয়েছেন টিম পাইনকে।

বল টেম্পারিংকাণ্ডে নিষিদ্ধ হওয়ার পর সামাজিকভাবে পর্যুদস্ত হয়েছে স্মিথের পরিবার। বাবা তাঁর ক্রিকেটের কিটব্যাগটাই ছুড়ে ফেলে দিয়েছিলেন। সেখান থেকে ফিরে এসে বিশ্বকাপেই দেখিয়েছিলেন মৃদু ঝলক, পুরোটা দেখা গেল ক্রিকেটের অভিজাততম সংস্করণে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের মাঠে তাদের বিপক্ষেই একের পর এক ম্যাচ জেতানো শতক। এজবাস্টন দুর্গ জয় করলেন জোড়া শতকে। হেডিংলিতে না খেলেও চলতি অ্যাশেজে ৫০০ ছাড়ানো রান হয়ে গেছে স্মিথের। ২০১৫ সালের অ্যাশেজে করেছিলেন ৫০৮ রান, ২০১৭-১৮ অ্যাশেজে ৬৮৭ রান আর এবারেও ৫০০ হয়ে গেছে। পর পর তিনটি অ্যাশেজে ৫০০-র বেশি রান করেছেন স্মিথ। শুধু তা-ই নয়, ইংল্যান্ডের মাঠে অ্যাশেজে তাঁর শতরানের সংখ্যা হয়েছে ছয়। এতগুলো শতক কোনো ইংরেজ ব্যাটসম্যানেরও নেই! ক্রিকইনফো

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা