kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ফেদেরারকে হারালেন ‘বেবি ফেদেরার’

৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফেদেরারকে হারালেন ‘বেবি ফেদেরার’

তাঁর সার্ভ, ফোরহ্যান্ড, ব্যাকহ্যান্ড মনে করায় রজার ফেদেরারকে। তাই গ্রিগ্রর দিমিত্রভের নামই হয়ে গেছে ‘বেবি ফেদেরার’। সেই খুদে ফেদেরারের কাছেই হারলেন ২০ গ্র্যান্ড স্লাম জয়ী কিংবদন্তি। অঘটনের ইউএস ওপেনে গত পরশু কোয়ার্টার ফাইনালে কাঁধের চোটে জর্জর ফেদেরারকে ৩-৬, ৬-৪, ৩-৬, ৬-৪, ৬-২ গেমে হারালেন দিমিত্রভ। সেমিফাইনালে তিনি মুখোমুখি হবেন দানিয়েল মেদভেদেভের। আরেক কোয়ার্টার ফাইনালে মেদভেদেভ ৭-৬, ৬-৩, ৩-৬, ৬-১ গেমে হারিয়েছেন স্তানিসলাস ওয়ারিংকাকে। মেয়েদের শেষ আটে দাপুটে জিতেছেন সেরেনা উইলিয়ামস। ইউএস ওপেনে নিজের শততম জয়টা স্মরণীয় করেছেন ৪৪ মিনিটে ৬-১, ৬-০ গেমে চীনের ওয়াং উইয়াংকে হারিয়ে। শেষ আটের আরেক ম্যাচে এলিনা সেভিতলোনা ৬-৪, ৬-৪ গেমে হারান জোহানা কোন্টাকে।

এবারের ইউএস ওপেনটাই মহা-অঘটনের। প্রথম রাউন্ডে ছিটকে গিয়েছিলেন র‍্যাংকিংয়ের সেরা দশের চারজন। কয়েক দিন আগে চোটে পড়ে ম্যাচের মাঝপথে সরে দাঁড়ান বর্তমান চ্যাম্পিয়ন নোভাক জোকোভিচ। ফাইনালের পথে রজার ফেদেরারের পথটা মসৃণ হয় তাতে। তার পরও ঝরে গেলেন সেমিফাইনালের আগেই। গ্রিগর দিমিত্রভকে এর আগে সাতবারের দেখায় প্রতিবার হারিয়েছেন এই কিংবদন্তি। সেই দিমিত্রভ পাঁচ সেটের মহাকাব্যিক ম্যাচ জিতে প্রথমবার ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে। কাঁধের চোট ফেদেরারকে ভুগিয়েছে ম্যাচজুড়ে। এ নিয়ে অবশ্য কোনো অজুহাত নেই তাঁর, ‘ম্যাচজুড়ে ব্যথাটা অনুভব করে গেছি। এটা নিয়েই খেলতে পারি। আসলে দিনটা ছিল গ্রিগরের, আমার শরীরের না।’

২০১৪ সালের উইম্বলডন ও ২০১৭ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন সেমিফাইনাল খেলা ক্যারিয়ারের সেরা অর্জন দিমিত্রভের। এবার র‍্যাংকিংয়ে ৭৮ নম্বরে থেকে পৌঁছলেন ইউএস ওপেনের শেষ চারে। ১৯৯১ সালে জিমি কোনর্সের পর (১৭৪-এ ছিলেন) র‍্যাংকিংয়ে এত বেশি পিছিয়ে থেকে ইউএস ওপেনের সেমিফাইনাল খেলেননি আর কেউ। ২৯ মিনিটে প্রথম সেট হারার পরও দিমিত্রভ দৃঢ়ভাবে ফিরে এসেছেন ম্যাচে। চতুর্থ সেটের দশম গেমে পাঁচটি ব্রেক পয়েন্ট পেয়েও ফেদেরার কাজে লাগাতে পারেননি তাঁর আক্রমণাত্মক টেনিসে। এ জন্যই ম্যাচ শেষে তাঁর সন্তুষ্টি, ‘পাঁচ সেটের ম্যাচটা যে কেউ জিততে পারত। আমি এমন কিছু শট খেলেছি যা খেলা সহজ ছিল না। ইউএস ওপেনের মতো মঞ্চে ফেদেরারকে হারানো ভীষণ রোমাঞ্চের।’

নোভাক জোকোভিচ চোটের জন্য ছিটকে গিয়েছিলেন স্তানিসলাস ওয়ারিংকার বিপক্ষে। চতুর্থ রাউন্ডের ম্যাচটিতে ওয়ারিংকা অবশ্য জেতেন প্রথম দুই সেট। সেমিফাইনালে তিনি ফেভারিট হলেও পঞ্চম বাছাই দানিয়েল মেদভেদ জিতেছেন ৭-৬, ৬-৩, ৩-৬, ৬-১ গেমে।

মেয়েদের এককে সেরেনা উইলিয়ামস খেলছেন মার্গারেট কোর্টের ২৪ গ্র্যান্ড স্লামের রেকর্ডে ভাগ বসাতে। ২৩ গ্র্যান্ড স্লাম জেতা এই কিংবদন্তি ৩৭ বছর বয়সেও নিজের সেরা ছন্দে। গতপরশু কোয়ার্টার ফাইনালে দাঁড়াতেই দেননি চীনের ওয়াং উইয়াংকে। মাত্র ৪৪ মিনিটে তাঁকে বিধ্বস্ত করেছেন ৬-১, ৬-০ গেমে। ম্যাচে তাঁর উইনার্স ২৫টি। এমন দাপুটে জয়ের পর সেরেনার সন্তুষ্টি,‘ জানতাম পরের রাউন্ডে যেতে নিজের সেরাটা খেলতে হবে। সেটা আমি পেরেছি। শারীরিকভাবে খুব ভালো অনুভব করছি। এই ফিটনেসটা ধরে রাখতে চাই।’

ছয় বারের ইউএস ওপেন চ্যাম্পিয়ন সেরেনা ২০১৭ সালে সন্তান জন্ম দেয়ার পর গ্র্যান্ড স্লাম জিতেননি আর। যদিও ফাইনালে পৌঁছান তিনবার। সবশেষ ইউএস ওপেন ফাইনালেও হেরেছেন নাওমি ওসাকার কাছে। সেই ওসাকা বাদ পড়েছেন সেমিফাইনালের আগে। শেষ চারের ম্যাচে সেরেনার প্রতিপক্ষ এলিনা সেভিতলোনা। ইউক্রেনের এই তারকা কোয়ার্টার ফাইনালে ৬-৪, ৬-৪ গেমে হারান জোহানা কোন্টাকে। এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা