kalerkantho

লঙ্কানদের জালে সাত গোল কিশোরদের

২৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



লঙ্কানদের জালে সাত গোল কিশোরদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ৫-২ এর পর ৭-১। অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ মাতাচ্ছে বাংলাদেশের কিশোররা। ভুটানকে ৫-২ গোলে হারানোর পর গতকাল দ্বিতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কার জালে ৭ গোল জড়িয়েছে রাকিবুল ইসলামরা। অধিনায়ক রাকিব গোল পেয়েছে, তবে এদিন ‘হিরো’ আল আমিন রহমান। অনূর্ধ্ব-১৫ দলের এই স্ট্রাইকার কাল অনেক দিন মনে রাখার মতো এক ম্যাচ খেলেছে। ৭ গোলের পাঁচটিই তার।

গতবারের চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এবার শিরোপা ধরে রাখার মিশন বাংলাদেশের কিশোরদের। তার শুরুটা হলো এমন সম্ভাবনা জাগানিয়া। যদিও ভারত ও নেপালের বিপক্ষে তুলনামূলক কঠিন দুটি ম্যাচই এখনো বাকি। গতবার বাংলাদেশ শিরোপা জেতে পাকিস্তানকে ফাইনালে হারিয়ে। ভারতের এবারের আসরে তারা অংশ নিচ্ছে না। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে সেবার নেপালের বিপক্ষে জয় ছিল ২-১ ব্যবধানে, সেমিফাইনালে ভারতের বিপক্ষে জয় টাইব্রেকারে। শ্রীলঙ্কা অংশ নেয়নি নেপালের সেই আসরে। ছিল মালদ্বীপ। সেই মালদ্বীপকেই ৯-০ গোলে ভাসিয়ে নিজেদের সামর্থ্য জানান দিয়েছিল বাংলাদেশের কিশোররা। কাল লঙ্কানদের গোলবন্যায় ভাসিয়ে আবারও তারা শিরোপার দাবি জোরালো করল।

কল্যাণীতে কাল ম্যাচ তো নয়, বাংলাদেশের কিশোররা নিজেদের ফুটবলীয় দক্ষতার প্রদর্শনী দিয়েছে। ৭টি গোলে সেই ছাপ। ৩২ মিনিটে প্রথম গোল, বাঁ প্রান্তে থ্রু পাস পেয়ে বক্সে ঢুকে কোনাকুনি শটে বল জালে জড়ায় আল আমিন রহমান। ৪২ মিনিটে রাকিবুল ইসলামের গোল চারজনকে কাটিয়ে, প্রায় মাঝমাঠ থেকে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়দের পা থেকে বল কেড়ে টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা গোল উপহার দিয়েছে বাংলাদেশ অধিনায়ক। বিরতির আগেই বাঁ প্রান্ত ধরে দলীয় বোঝাপড়ায় আল আমিনের পরের গোলটি। বাংলাদেশ দলের প্রথম গোলটি পেতেই যা দেরি হয়েছে। আধঘণ্টায় সেটি পেয়ে যাওয়ার পর আর থামাথামি নেই। দ্বিতীয়ার্ধের খেলা শুরুর পর ৪৮, ৫৯, ৬৬ ও ৭১ মিনিটে আরো ৪ গোল কিশোরদের। ৪৮ মিনিটে চতুর্থ গোলটি আল মিরাদের, লম্বা থ্রো-ইনে পোস্টের মুখে বল পেয়ে জালে জড়াতে ভুল করেনি আগের ম্যাচেও জোড়া গোল করা এই স্ট্রাইকার। তবে এদিনটি পুরোপুরিই ছিল আল আমিনের। ৫৯ মিনিটে পেনাল্টি থেকে হ্যাটট্রিক পূরণের পর ষষ্ঠ ও সপ্তম গোলটিও তার। শ্রীলঙ্কা অবশ্য ৫-১ করেছিল ডিফেন্সের সামান্য অমনোযোগিতার সুযোগে। কিন্তু তা ম্যাচের গতিতে কোনো প্রভাবই রাখতে পারেনি। আল আমিনের শেষ দুটি গোল প্রায় একই ফর্মুলায়, প্রথমটিতে ডান দিক থেকে কাটব্যাক পেয়েছিলেন, পরেরটি বাম দিক থেকে। বক্সের মাঝামাঝি থেকে নেওয়া তার প্লেসিং শট ফেরানোর সাধ্য ছিল না লঙ্কান গোলরক্ষকের।

সাফে এখনো পর্যন্ত সব কিছু চলছে প্রত্যাশা মেনেই। কোচ মোস্তফা আনোয়ার পারভেজ খেলোয়াড়দের পিঠ চাপড়ে দিয়েছে বলেছেন, ‘যেকোনো জয়ই গুরুত্বপূর্ণ। আর এমন বড় ব্যবধান খেলোয়াড়দের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেয়। আমার বিশ্বাস ওরা পরের ম্যাচগুলোতেও ছন্দটা ধরে রাখবে।’ সেটা গুরুত্বপূর্ণও। কারণ আরেক ফেভারিট ভারতও সমানতালে পারফরম করে যাচ্ছে। কাল দ্বিতীয় ম্যাচে ভুটানকে হারিয়েছে তারা ৬-০ গোলে। তাতে ১১ গোল নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষেই আছে দলটি। বাংলাদেশ ১২ গোল করলেও হজম করেছে ৩টি, গোল ব্যবধানে পিছিয়ে তাই আনোয়ার পারভেজের দল দ্বিতীয় স্থানে। নেপালের বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচটি কাল, ভারত-বাংলাদেশ হবে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচ।

মন্তব্য