kalerkantho

যেভাবে উপস্থাপিত হয়েছে বিষয়টা এ রকম নয়

সাকিবের সঙ্গে সম্পর্ক বিষয়ে মাহমুদ উল্লাহ

১৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



যেভাবে উপস্থাপিত হয়েছে বিষয়টা এ রকম নয়

আমার মনে হয় না দলের কারো সঙ্গে আমার কোনো গণ্ডগোল হয়েছে। আমরা যথেষ্ট ভালো বন্ধু। ড্রেসিংরুমে আপনারা চাইলে আসতে পারেন, আমরা কিভাবে কথা বলি বা কিভাবে মজা করি দেখতে পারেন। আমি আমার দিক থেকে শতভাগ চেষ্টা করে যাচ্ছি, যেন সবার সঙ্গে ভালোভাবে থাকতে পারি।

ক্রীড়া প্রতিবেদক : গণমাধ্যমকে এড়িয়ে চলছিলেন অনেক দিন। সেই বিশ্বকাপের আগ থেকেই। কাল অবশেষে শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বললেন; পাশাপাশি নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও দিয়েছেন ভিডিও বার্তা। নীরব মাহমুদ উল্লাহ সরব হয়ে উঠলেন হঠাৎই।

‘আমি মিডিয়ার বাইরে ছিলাম না। ভালো সুযোগের অপেক্ষায় ছিলাম। ভালো কিছু করে যেন আপনাদের সামনে আসতে পারি। আমার মনে হয় বিশ্বকাপটা মোটামুটি ভালোই খেলেছি। শেষ সিরিজটি খারাপ গিয়েছে’—বলেছেন মাহমুদ। মাঝে আরেক কারণেও বিতর্কিত হয়েছিলেন। বিশ্বকাপ চলাকালীন ড্রেসিংরুমে তাঁর ক্রোধের বিস্ফোরণের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ায়। এ বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যা এত দিন দেননি মাহমুদ। কাল নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেন এই ব্যাটসম্যান, ‘আমার মনে হয়, এ ধরনের জিনিস নিয়ে কথাবার্তা না বলাই ভালো। শুধু একটা কথা বলতে চাই। গণমাধ্যমে কিছু কিছু জিনিস যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, ঘটনা সেভাবে হয়নি। উপস্থাপন ভিন্নভাবে হতে পারত। শুধু এতটুকুই বলতে চাই।’ সাকিব আল হাসানকে ইঙ্গিত করে তাঁর ক্রোধ প্রকাশের যে খবর এসেছে, সেটি নিজেদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি নয় বলে জানান মাহমুদ, ‘আমার মনে হয় না দলের কারো সঙ্গে আমার কোনো গণ্ডগোল হয়েছে। আমরা যথেষ্ট ভালো বন্ধু। ড্রেসিংরুমে আপনারা চাইলে আসতে পারেন, আমরা কিভাবে কথা বলি বা কিভাবে মজা করি দেখতে পারেন। আমি আমার দিক থেকে শতভাগ চেষ্টা করে যাচ্ছি, যেন সবার সঙ্গে ভালোভাবে থাকতে পারি।’

মাঠের ক্রিকেটে মাহমুদের বড় সুখবর, ইনজুরি পুরোপুরি কাটিয়ে সহজাত অ্যাকশনের বোলিংয়ে ফেরা। কালও হাত পুরো ঘুরিয়ে বোলিং করেন। এতে বেশ স্বস্তিতে তিনি, ‘বোলিং আমার খেলার বড় একটি অংশ। সেটি আমাকে ব্যাটিংয়ে বাড়তি আত্মবিশ্বাস জোগায়। এত দিন তা মিস করছিলাম। আশা করি, সামনের সিরিজে বোলিং করতে পারব।’ কাফ মাসলের ইনজুরি কাটিয়ে নিজেকে শতভাগ ফিট বলেও দাবি করেন।

আফগানিস্তানের বিপক্ষে সামনের টেস্ট সিরিজ দিয়ে নতুন এক যুগে প্রবেশ করছে বাংলাদেশ ক্রিকেট। জাতীয় দলের নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন রাসেল ডমিঙ্গো। তাঁর সঙ্গে কাজ করার জন্য মুখিয়ে থাকার কথা জানান মাহমুদ, ‘এ কোচের সঙ্গে পরিচয় তেমন নেই। কারণ তাঁর সঙ্গে আমার কখনো সেভাবে সাক্ষাৎ হয়নি। এই প্রথম সরাসরি কথা হবে; দেখাও হবে। আমরা সবাই খুব রোমাঞ্চিত যে উনি যখন আসবেন, তখন আবার যেন ভালোমতো কাজ করতে পারি। দল হিসেবে কাজ করতে পারি।’ দলের প্রতিনিধি হয়ে নতুন কোচের কাছে নিজেদের প্রত্যাশার কথাও জানিয়ে দেন অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটার, ‘ডমিঙ্গোর প্রফাইল বেশ সমৃদ্ধ। দক্ষিণ আফ্রিকার কোচ ছিলেন বেশ কয়েক বছর। খুব ভালো কাজ করেছেন সেখানে। আশা করি, নতুন কোচের কাছ থেকে আমরা অনেক কিছু শিখতে পারব।’

ডমিঙ্গো ছাড়াও পেস বোলিং কোচ হিসেবে শার্ল ল্যাঙ্গাভেল্ট এবং স্পিন বোলিং কোচ হিসেবে ড্যানিয়েল ভেট্টোরির সঙ্গেও চুক্তি করেছে বিসিবি। আর কোচিং প্যানেলে আগে থেকে থাকা দুই দক্ষিণ আফ্রিকান সীমিত ওভারের ব্যাটিং কোচ নেইল ম্যাকেঞ্জি ও ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুকের সঙ্গে ডমিঙ্গো-ল্যাঙ্গাভেল্ট যোগ হওয়ায় এটিকে হাই প্রফাইল কোচিং প্যানেল হিসেবে দেখছেন মাহমুদ, ‘নেইলের সঙ্গে আমরা বেশ অনেক দিন কাজ করছি। সে অসাধারণ ব্যাটিং কোচ। তাঁর ছোটখাটো আইডিয়া এবং তখ্য আমাকে খুব সাহায্য করে। এ ছাড়া ভেট্টোরি আছেন। ল্যাঙ্গাভেল্টের সঙ্গে আমি খেলেছি সম্ভবত শ্রীলঙ্কান প্রিমিয়ার লিগে। উনি পেস বোলারদের জন্য খুব ভালো হবেন। আমি মনে করি বর্তমান কোচিং প্যানেলটাই অনেক হাই প্রফাইল। আমাদের সবার জন্যই তা ইতিবাচক হবে।’

নিজের ফর্মটাও যদি ইতিবাচক ধারায় ফেরাতে পারেন মাহমুদ, তাহলে হয়তো আর গণমাধ্যম এড়িয়ে চলার প্রয়োজন পড়বে না।

মন্তব্য