kalerkantho

সপ্তম স্বর্গে অ্যাকারম্যানই প্রথম

৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সপ্তম স্বর্গে অ্যাকারম্যানই প্রথম

একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে একজন বোলার করতে পারেন সর্বোচ্চ ২৪টি বৈধ ডেলিভারি। এর মধ্যে ৭টিতেই উইকেট! এমন বিস্ময়কর কীর্তি গড়েছেন এমন একজন, যাঁর মূল পরিচয় বোলার নয় ব্যাটসম্যান। কলিন অ্যাকারম্যানের জন্ম দক্ষিণ আফ্রিকায়। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে ব্যাট হাতে দারুণ কৃতিত্ব দেখানোর পর যখন তাঁকে দক্ষিণ আফ্রিকার টেস্ট দলে ভাবা হচ্ছিল, তখনই ‘কলপাক’ হয়ে কাউন্টি খেলতে চলে আসেন ইংল্যান্ডে। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি টুকটাক অফ স্পিন করতেন, ৯০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে তাঁর উইকেটের সংখ্যা ছিল ৩১। ৯১তম ম্যাচের পর সেটা হয়ে গেছে ৩৮, কারণ এক ম্যাচেই যে তাঁর শিকার ৭ উইকেট! ইংল্যান্ডের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতায় লিস্টারশায়ারের হয়ে বার্মিংহামের বিপক্ষে মাত্র ১৮ রান খরচায় ৭ উইকেট তুলে নিয়েছেন অ্যাকারম্যান। তাই টি-টোয়েন্টির রেকর্ডবইতে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির নাম অ্যাকারম্যান।

সাকিব আল হাসান, লাসিথ মালিঙ্গার মতো টি-টোয়েন্টির অভিজ্ঞ বোলাররাও পারেননি সাত উইকেট নিতে, আটকে গেছেন ছয়ে। সিপিএলে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টের হয়ে খেলে সাকিব নিয়েছিলেন ৬ রানে ৬ উইকেট, বিগব্যাশে মালিঙ্গার আছে ৭ রানে ৬ উইকেট। গোটা বিশ্বে, বিভিন্ন টি-টোয়েন্টি আসরে ৩০ জনের বেশি বোলার এক ম্যাচে ৬ উইকেট নিয়েছেন। কিন্তু কেউই ছয় পেরিয়ে সাতে পৌঁছতে পারেননি। অ্যাকারম্যান ভেঙেছেন সেই বৃত্ত। ম্যাচের তৃতীয় ওভারে প্রথম উইকেটটি পান অ্যাকারম্যান, এরপর ১৫তম ওভারে বল করতে এসে এক ওভারেই পেয়ে যান ৩ উইকেট। বোল্ড, কট অ্যান্ড বোল্ড আর বোল্ড। ১৭তম ওভারে বল করতে এসেও ৩ উইকেট! তবে একটা দিকে খানিকটা দুর্ভাগ্য তাঁর, দুটো ওভারে ৩টি করে উইকেট পেলেও হ্যাটট্রিক করতে পারেননি। সেটা না হলেও প্রথম বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে ৭ উইকেট নেওয়াটা অবিশ্বাস্য বলছেন অ্যাকারম্যান নিজেই, ‘আমাকে কেউ যদি বলত তাহলে লাখো বছরেও বিশ্বাস করতাম না! আমি তো নিজেকে ব্যাটিং অলরাউন্ডার মনে করি। আমি চেয়েছি উইকেটের বাউন্সটা একটু কাজে লাগাতে আর গতির হেরফেরে ব্যাটসম্যানদের মাঠের সবচেয়ে লম্বা অংশ দিয়ে মারতে প্রলুব্ধ করতে। বাকি কাজটা উইকেট আর বাতাস মিলে করে দিয়েছে।’ ক্রিকইনফো

মন্তব্য