kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৪ রবিউস সানি     

যে কারণে এগিয়ে হেসন

৯ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



যে কারণে এগিয়ে হেসন

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোচ হিসেবে মাইক হেসনের ফেরা নিশ্চিত হলো আরো। গত বছর জুনে নিউজিল্যান্ডের দায়িত্ব ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে। বছর না যেতেই দুই বছরের সেই চুক্তিরও ইতি টেনেছেন কাল। সাক্ষাৎকার দিতে ঢাকায় আসার অপেক্ষায় থাকা এই কিউই নিজেই সেটি ‘টুইট’ করে নিশ্চিত করেছেন।

জাতীয় দলের হেড কোচ হিসেবে তাঁকে নিশ্চিত করার অপেক্ষায় আছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও (বিসিবি)। আগের দিনই দক্ষিণ আফ্রিকার জাতীয় দলের সাবেক কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সাক্ষাৎকার নেওয়ার পর বোর্ডের মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জানিয়েছিলেন, সম্ভব হলে ঈদের আগেই এই নিয়োগ প্রক্রিয়া সেরে ফেলতে চান তাঁরা। আর ভালো কোচের আকাল এবং বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক দলের হেড কোচের পদ শূন্য হয়ে যাওয়া মিলিয়ে এখন জলদি কাউকে নিশ্চিত করাও জরুরি হয়ে পড়েছে। কারণ এতে করে একজনকে নিয়ে একাধিক দলের টানাটানি পড়ে যাওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে। বাংলাদেশের কোচ হওয়ার দৌড়ে সবচেয়ে এগিয়ে থাকা নাম হেসনও সেই ঝুঁকিমুক্ত নন। তেমন খবরই দিয়েছে নিউজিল্যান্ডের দৈনিক স্টাফ। তাদের দাবি, হেসনের দিকে চোখ আছে ভারত এবং পাকিস্তানেরও। ওদিকে বাংলাদেশের সাবেক কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহের সঙ্গে নিজ দেশের ক্রিকেট বোর্ডের চলমান ঘটনাপ্রবাহে পরিষ্কার যে শ্রীলঙ্কা দলও হন্যে হয়ে ভিনদেশি কোনো উঁচু দরের কোচ খুঁজছে।

অবশ্য অধিনায়ক বিরাট কোহলির চাহিদা অনুযায়ী রবি শাস্ত্রীরই ভারতীয় দলের কোচ হিসেবে থেকে যাওয়ার সম্ভাবনার কথাই আপাতত শোনা যাচ্ছে বেশি। তবে পাকিস্তান ইতিমধ্যে চাকরিচ্যুত করেছে হেড কোচ মিকি আর্থারকে। ভারতীয় উপমহাদেশেই তাই একসঙ্গে অনেক কোচের চাহিদা তৈরি হয়ে গেছে। যে কারণে হেড কোচ হিসেবে কাউকে নিশ্চিত করার তাড়াও কম নয় কারোরই। এই অবস্থায় বিসিবিও এর ব্যতিক্রম নয়। এবার অবশ্য পরামর্শক নিয়োগ করে কোচ খুঁজতে হচ্ছে না। যেমনটি হয়েছিল চন্দিকা হাতুরাসিংহে চলে যাওয়ার পর স্টিভ রোডসকে খুঁজে পেতে। এবার অনেকেই যোগাযোগ করেছেন, আবার বিসিবিও শরণাপন্ন হয়েছে অনেকের।

যদিও ইংল্যান্ডের সাবেক সহকারী কোচ পল ফারব্রেস এবারও বাংলাদেশের প্রস্তাবে রাজি হননি বলে খবর। হাতুরাসিংহের উত্তরসূরি হিসেবে তাঁকে প্রস্তাব দেওয়া হলেও গত বছর তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন তিনি। বিশ্বকাপ-পরবর্তী সময়ে হেড কোচ হতে আবার প্রস্তাব যায় তাঁর কাছে। কিন্তু দ্বিতীয়বারের মতো তিনি বিসিবিকে ফিরিয়ে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। আবার অতীতে কারো থেকে মুখ ফিরিয়ে রাখা বিসিবি এবার প্রয়োজনের সময় কারো কারো দরজায়ও টোকা দিয়েছে। হাতুরাসিংহের সময়ে জাতীয় দলের ব্যাটিং কোচ হিসেবে যখন আরেক শ্রীলঙ্কান থিলান সামারাবীরাকে আনা হয়, তখন গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ারকে আনার প্রস্তাবও ছিল। কিন্তু সংশ্লিষ্টরা তখন ব্যাটিং কোচ হিসেবে এই জিম্বাবুইয়ানকে তেমন যোগ্য মনে করেননি। অথচ এখন? ব্যাটিং কোচ হিসেবে উপেক্ষিত সেই গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ারই এখন বিসিবির সম্ভাব্য হেড কোচের সংক্ষিপ্ত তালিকায় ঠাঁই করে নিয়েছেন। বাংলাদেশ ‘এ’ কিংবা এইচপি দলের কোচ হতে চাওয়া রাসেল ডমিঙ্গোও তাঁর প্রত্যাশার চেয়ে বড় পদে চাকরির সাক্ষাৎকারের জন্য ডাক পেয়েছেন। এতে কোচ খুঁজতে গিয়ে বিসিবির মরিয়া ভাবই ফুটে উঠেছে। তাদের ভাবনার বাইরে নেই সাবেক কোচ হাতুরাসিংহেও। তবে তাঁকে নিয়ে দ্বিধাবিভক্তি আছে বিসিবির নেতৃস্থানীয়দের মধ্যেই। যদিও এই মুহূর্তে সবার চেয়ে এগিয়ে থাকা নাম হেসনই। একসময় আর্জেন্টিনা ও কেনিয়া ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবেও কাজ করেছেন তিনি। তবে দীর্ঘ সময় নিউজিল্যান্ড দলকে সামলানো হেসন দেশটির ইতিহাসের সফলতম কোচও। দীর্ঘ অভিজ্ঞতার সঙ্গে সাফল্য বিবেচনায় অন্যদের চেয়ে বাংলাদেশের কোচ হওয়ার দৌড়ে অগ্রবর্তী তিনিই। সেই সঙ্গে ২০২০-র টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সামনে রেখে বিসিবির মাথায় আছে অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশনও। কাছাকাছি অঞ্চলের মানুষ হেসনেরও সে ধারণা বেশ স্পষ্ট থাকার কথা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা