kalerkantho

বারবার নিয়ম বদলের বিরুদ্ধে মুডি-মাহেলা

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বারবার নিয়ম বদলের বিরুদ্ধে মুডি-মাহেলা

বিশ্বের বহু টি-টোয়েন্টি লিগের সঙ্গে জড়িত থেকে এটা বলতে পারি যে একটা ভালো আসরের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ম্যাচ পরিচালনা ও ফ্র্যাঞ্চাইজিদের জন্য তৈরি নিয়মগুলো। কোচ, রংপুর রাইডার্স

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বিপিএলের পুরনো অনেক রোগ সেরেছে। ক্রিকেটাররা পাওনা ঠিকঠাকমতো বুঝে পাচ্ছেন। অবসরে যাওয়া বুড়োদের বদলে সাম্প্রতিক সময়ের শীর্ষ বৈশ্বিক তারকা ক্রিকেটাররা খেলতে আসছেন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে। আস্তে আস্তে প্রতিযোগিতাটি যখন বিদেশিদের কাছে আস্থার জায়গায় যেতে শুরু করেছে, তখনই বারবার নিয়ম বদলের ঠেলায় গুডবুক থেকে কাটা পড়ছে বিপিএলের নাম। এখন বিশ্বে কানাডা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বহু জায়গায় ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ হচ্ছে। নামি কোচরা একাধিক ফ্র্যাঞ্চাইজির কোচের দায়িত্ব পালন করার সুবাদে দেখেছেন আয়োজন। বিপিএলে বারবার নিয়ম বদলকেই নিয়ম বানিয়ে ফেলাটাকে অশুভ সংকেত হিসেবেই দেখছেন দুই সাবেক ক্রিকেটার এবং কোচ, মাহেলা জয়াবর্ধনে ও টম মুডি।

মাহেলা জয়াবর্ধনের কোচিংয়ে এবার আইপিএল জিতেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। ২০১৭ সাল থেকে এই ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে জড়িত মাহেলা। বিপিএলের সময় মাহেলা কোচিং করান খুলনা টাইটানসকে। ভারতে মাহেলার সাফল্য অনূদিত হয়নি বাংলাদেশে। এর পেছনে মাহেলা মনে করেন বিপিএলের নিয়মের অস্থিতিশীলতাই দায়ী, ‘একটি দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা থাকাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু যখন আমি দেখলাম প্রতিবছর নিয়ম করে নিয়ম বদলাচ্ছে, সেটা কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের জন্যই ভালো কিছু নয়। বিশ্বের অন্য দেশগুলোর ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট আসরগুলোর দিকে দেখুন। তাদের একটা নির্দিষ্ট নিয়ম আছে, যেটা সবাই মানে এবং সেটা সবার জন্যই সমান। আমরা যদি জানতে পারি এই খেলোয়াড়রা তিন বছরের জন্য এই দলের সঙ্গে থাকবে, তাহলে একটা ধারাবাহিকতা আর ভারসাম্য ধরে রাখা সম্ভব হয়।’ টম মুডিও অখুশি এই নিয়ম পরিবর্তনে, ‘গত ১২ বছর ধরে, বিশ্বের বহু টি-টোয়েন্টি লিগের সঙ্গে জড়িত থেকে এটা বলতে পারি যে একটা ভালো আসরের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে ম্যাচ পরিচালনা ও ফ্র্যাঞ্চাইজিদের জন্য তৈরি নিয়মগুলো। এটা শুধু মালিকদের জন্যই নয়, সমর্থকদের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। কারণ স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সমর্থকরা কারা খেলছে সেসব মাথায় রেখেই দল সমর্থন করে। সব কিছুই যদি ঘন ঘন পরিবর্তন হয়, তাহলে টুর্নামেন্টের উদ্দেশ্য নিয়ে ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য।’

মন্তব্য