kalerkantho

বুধবার । ২৩ অক্টোবর ২০১৯। ৭ কাতির্ক ১৪২৬। ২৩ সফর ১৪৪১                 

ঈদের পরেই শেখ কামাল কমপ্লেক্সের বাকি স্থাপনা

আবাহনী প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী

৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : শোকের মাসেও এই একটি দিন আবাহনীর জন্য খুব আনন্দের। সেই আনন্দের বার্তা দিয়েই আবাহনী লিমিটেডের ডিরেক্টর ইনচার্জ কাজী নাবিল আহমেদ অনুষ্ঠান শুরু করেন, ‘শোকাবহ আগস্টের মাঝেও এই একটি দিন আমাদের জন্য খুব আনন্দের। কারণ এই ৫ আগস্টে শেখ কামালের জন্ম হয়েছিল, যিনি তারুণ্যের আবাহনে তৈরি করেছিলেন আবাহনী ক্লাব।’ এই প্রতিষ্ঠাতার ৭০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল ক্লাব প্রাঙ্গণে আয়োজিত হয় এক স্মরণসভার। ক্লাব প্রেসিডেন্ট সালমান এফ রহমানসহ অন্য পরিচালকরা শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

 

প্রতিষ্ঠাতাকে স্মরণ করে আবাহনী পরিচালক ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘শেখ কামালের মতো মানুষ কখনো হারিয়ে যেতে পারে না, তিনি সব সময় আমাদের অনুপ্রেরণা হয়ে আছেন।’ এরপর নিজের আবাহনীতে যোগ দেওয়ার প্রসঙ্গ টেনে তিনি এই ক্লাবের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এভাবে, ‘হারুন ভাইয়ের হাত ধরে আমি আবাহনীতে এসেছি। ক্লাবে আমি ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান ছিলাম, সেই সুবাদে বিসিবির প্রেসিডেন্ট হয়েছি, এরপর এসিসি ও আইসিসির প্রেসিডেন্ট হয়েছি। আজকের মন্ত্রিত্ব, সেটার পেছনেও আছে এই ক্লাব।’ ক্লাবের প্রথম সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ ঘৃণ্য ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের পর ক্লাবের দুর্দশার কথা তুলে ধরেন এবং সেই দুর্দিনে যাঁরা ‘পাঁচ শ, এক হাজার টাকা দিয়ে’ সহযোগিতা করেছেন তাঁদের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এই ক্লাব সংগঠক শেখ কামালের হাতে গড়া ভবনের শুরুর অংশটুকুকে ঐতিহ্য হিসেবে ধরে রাখার প্রস্তাব করেন।

তবে ক্লাব প্রেসিডেন্ট সালমান এফ রহমান রাখেন বিকল্প প্রস্তাব, ‘মাঠের পশ্চিম অংশে কমপ্লেক্সের যে নকশা হয়েছে, সেখানে শুরুর অংশটুকু না ভেঙে উপায় নেই। পুরনো ভবনের একটা মডেল তৈরি করে আমরা বরং কমপ্লেক্সে রাখতে পারি আর তাকে কেন্দ্র করেই লেখা থাকবে ক্লাবের পুরো ইতিহাস। ঈদের পরপরই এই অংশের কাজ শুরু হয়ে যাবে আর কাজ শেষ হতে আড়াই বছরের মতো সময় লাগবে।’ আবাহনী মাঠকে ঘিরে শেখ কামাল ক্রীড়া কমপ্লেক্স তৈরির পরিকল্পনার বয়সই হয়ে গেছে প্রায় এক যুগ। এত দিনে মাঠের উত্তর-পূর্বদিকে কিছু আবাসন ও গ্যালারি তৈরি হয়েছে। তাই কমপ্লেক্স নিয়ে নতুন ঘোষণা শোনার অপেক্ষায় ছিলেন স্মরণসভায় আগতরা। ঈদের পরেই কমপ্লেক্সের বাকি কাজ শুরুর ঘোষণা দেওয়ার আগে আবাহনী প্রেসিডেন্ট বন্ধু শেখ কামালের সঙ্গে তাঁর স্মৃতিকথার ঝাঁপি মেলে ধরেন। সেসব গল্প শুনেই কাটিয়ে দিলেন আরেক পরিচালক ও বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন, ‘বলার চেয়ে এসব গল্প শুনতেই বেশি ভালো লাগছে।’ আরেক পরিচালক ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহিরয়ার আলম শেখ কামাল উত্তর প্রজন্মকে ‘ভুল সময়ের প্রজন্ম আখ্যা’ দিয়ে চক্রান্ত ও মিথ্যা রটনায় গা না ভাসিয়ে নির্জলা সত্যকে জেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এ ছাড়া স্মরণসভায় অন্যান্য ক্লাব পরিচালকদের মধ্যে ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, কাজী এনাম, জাহাঙ্গীর আলম ও সায়ান ফজলুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা