kalerkantho

মুখোমুখি প্রতিদিন

গেমসের আগের এই সময়টাই কাজে লাগাতে হবে

৬ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গেমসের আগের এই সময়টাই কাজে লাগাতে হবে

কয়েক দিন আগেই সাঁতার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিয়েছেন জুয়েল আহমেদ। ব্যাক স্ট্রোকের এই সাঁতারু সেখানে নিজের সেরা টাইমিংটাও করতে পারেননি। সামনের এসএ গেমসের প্রস্তুতিতে তাই নতুন করেই ঝাঁপিয়ে পড়তে হয়েছে তাঁকে। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে জুয়েল কথা বলেছেন সে প্রসঙ্গেই

 

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেওয়ার অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

জুয়েল আহমেদ : দক্ষিণ এশীয় গেমসের আগে এমন একটা আসরে অংশ নেওয়াটা অবশ্যই আমাদের জন্য ভালো অভিজ্ঞতা। গেমসে নিশ্চয় তা কাজে লাগবে। যদিও নিজের টাইমিং নিয়ে আমি বেশ হতাশ। ৫০ বা ১০০ মিটার ব্যাক স্ট্রোক কোনোটিতেই নিজের সেরা টাইমিং করতে পারিনি। ৫০ মিটার ব্যাক স্ট্রোকে গত জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপেই ২৮.১২ সেকেন্ডে সাঁতরে নতুন রেকর্ড গড়েছিলাম, সেখানে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে টাইমিং হয়েছে ২৯.৩৩। ১০০ মিটারেও তা-ই। জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে ১.০০:৭৬ সেকেন্ডে সাঁতরেছিলাম, সেটাও ছিল রেকর্ড। কিন্তু গুয়াংজুতে আমার সময় লেগেছে ১.০৫:০০ সেকেন্ড।

প্রশ্ন : প্রস্তুতির ঘাটতি ছিল?

জুয়েল : বলা যায়, জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপের আগে সাড়ে চার মাসের মতো টানা অনুশীলন করেছি। কিন্তু  এর পর এক মাস ছুটি দেওয়া হয়। ফিরে কিছুদিন অনুশীলন করেই আবার ঈদের ছুটি। ফলে প্রস্তুতিটা নিরবচ্ছিন্ন হয়নি। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নেওয়া অন্য দুই সাঁতারু আরিফুল ইসলাম ও জুনায়না তো দেশে নেই। আরিফ আইওসির বৃত্তি নিয়ে ফ্রান্সে অনুশীলন করছে, সেখান থেকেই ও গুয়াংজুতে গেছে, জুনায়না গেছে লন্ডন থেকে। ঢাকায় আমার একার জন্য বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের অনুশীলন চালিয়ে যাওয়াটা কঠিন ছিল।

প্রশ্ন : এই মুহূর্তে তো এসএ গেমসের ক্যাম্পে আছেন, আপনার রেকর্ড টাইমিংয়েও তো সেখানে পদক নিশ্চিত নয়, তাও আবার পেছালেন...

জুয়েল : হ্যাঁ, এখন যে সময়টুকু আছে সেটাই ভালোভাবে কাজে লাগাতে হবে। এখন থেকে নিরবচ্ছিন্ন ক্যাম্প হলে ভালো করা সম্ভব।

প্রশ্ন : গতবার রিলেসহ পাঁচটি ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন কোরিয়ান কোচ পার্ক তে গুনের অধীনে, এবার তো তিনিও নেই।

জুয়েল : শুনছি একজন জাপানি কোচ আসবেন। সেটা হলে মন্দ হবে না। যদিও গেমসের আগে মাস তিনেকের অনুশীলনও যথেষ্ট না। দেখতে হবে তিনি কিভাবে অনুশীলন করান।

মন্তব্য