kalerkantho

মিডল অর্ডার এগিয়ে দিল অস্ট্রেলিয়াকে

৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রথম ইনিংসে স্টিভেন স্মিথের সঙ্গে ব্যাট হাতে যাঁরা অবদান রেখেছিলেন, তাঁদের মূল কাজ ছিল বোলিং। পিটার সিডলের সঙ্গে ৮৮ ও নাথান লায়নের সঙ্গে ৭৪ রানের জুটি গড়ে স্মিথ অস্ট্রেলিয়াকে দিয়েছিলেন লড়াইয়ের পুঁজি। দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার টপ অর্ডার ব্যর্থ হলেও মিডল অর্ডারে ট্রাভিস হেড ও ম্যাথু ওয়েডকে নিয়ে হাল ধরেছেন সেই স্মিথই। দ্বিতীয় ইনিংসেও শতরান স্মিথের, তিন অঙ্কের জাদুকরী স্কোর ছুঁয়েছেন ওয়েডও আর হাফসেঞ্চুরি হেডের। তাঁদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে চতুর্থ ইনিংসে ইংল্যান্ডের সামনে জয়ের জন্য ৩৯৮ রানের কঠিন লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। স্মিথ ও হেডের শতরানে ৭ উইকেটে ৪৮৭ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে সফরকারীরা। অস্ট্রেলিয়ার লিড তখন ৩৯৭ রানের। জয়ের জন্য কঠিন মিশনে নেমে ৭ ওভারে ১৩ রান করেছেন ইংল্যান্ডের দুই ওপেনার রোরি বার্নস ও জেসন রয়।

৩ উইকেটে ১২৪ রান নিয়ে দিন শুরু করেছিল অস্ট্রেলিয়া। দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান স্মিথ ও হেড খেলছিলেন স্বাচ্ছন্দ্যেই। চতুর্থ উইকেট জুটিতে তাঁরা যোগ করেন ১৩০ রান। ৫৩তম ওভারের শেষ বলে, হাফসেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার একটু পরেই ৫১ রানে আউট হন হেড, মধ্যাহ্ন বিরতির আধঘণ্টা আগে। হেডের বিদায়ে আসা ওয়েডও দারুণ সঙ্গ দিয়ে গেছেন স্মিথকে। তবে মধ্যাহ্ন বিরতিতে নিশ্চয় খুব ছটফটই করেছেন স্মিথ, ৯৮ রানে অপরাজিত থেকেই যে খাবারটা খেতে যেতে হয়েছে তাঁকে। বিরতির পর খেলা শুরুর প্রথম বলটাই স্মিথ ফাইন লেগে ঠেলে দিয়ে ১ রান নিয়ে ব্যাটিং প্রান্তে পাঠিয়ে দেন ওয়েডকে। পুরো ওভারটাই কাটিয়ে দেন ওয়েড। ওভার শেষে প্রান্ত পরিবর্তন, স্মিথকে বল করতে আসেন স্টুয়ার্ট ব্রড। ওভারের প্রথম বলটা দেখেশুনে সাবধানে খেললেও পরের বলেই চার মেরে ম্যাচে দ্বিতীয় শতক নিশ্চিত করেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক। এই নিয়ে ক্যারিয়ারে ২৫ ও অ্যাশেজে ১০টি শতরান হয়ে গেল স্মিথের। প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ১৪৪ রান, দ্বিতীয় ইনিংসে আউট হয়ে গেছেন ১৪২ রানে। অফ স্টাম্পের বাইরের একটি বল তাড়া করে খেলতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে। বোঝাই গেছে, ক্লান্তি ভর করেছে স্মিথের পায়ে। ১৪ বাউন্ডারিতে সাজানো ২০৭ বল স্থায়ী ইনিংসটা শেষ হয়েছে চা বিরতির খানিক আগে। এরপর অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসটা টেনে নেন ওয়েড। স্টোকসের বোলিংয়ে ডেনলির তালুবন্দি হওয়ার আগে ১৪৩ বলে ১৭ বাউন্ডারিতে ১১০ রানের কার্যকর ইনিংস খেলেন ওয়েড। এরপর জেমস প্যাটিনসনের ৪৭*, টিম পাইনের ৩৪ এবং প্যাট কামিন্সের ২৬*-এ ভর করে পাঁচ শ ছুঁই ছুঁই বিশাল স্কোর গড়ে অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকইনফো

মন্তব্য