kalerkantho

পরিবর্তনের ঝাঁকুনি প্রোটিয়া ক্রিকেটে

৫ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পরিবর্তনের ঝাঁকুনি প্রোটিয়া ক্রিকেটে

ফুটবলে সব ক্ষমতাই ম্যানেজারের হাতে। ক্রিকেটে সেটা সীমিত। ফুটবলের সেই পেশাদারিত্ব এবার আসতে চলেছে দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটেও। এ জন্য প্রোটিয়া ক্রিকেট বোর্ড বা সিএসএ নিয়োগ দিতে যাচ্ছে একজন টিম ম্যানেজার। জাতীয় দলের সব দায়িত্বই থাকবে তাঁর। এমনকি তাঁর পরামর্শেই নিয়োগ হবে নতুন কোচ, অধিনায়ক, চিকিৎসক ও প্রশাসনিক কর্তারা। টিম ম্যানেজার সরাসরি রিপোর্ট করবেন ‘ডিরেক্টর অব ক্রিকেট’কে। গত সপ্তাহে সিএসএর সভায় তৈরি করা হয়েছে নতুন পদটি। আপাতত ভারপ্রাপ্ত ডিরেক্টর অব ক্রিকেটের পদটি কোরি ফন জাইলের। নতুন কাউকে নিয়োগ দেওয়ার আগ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। নব্বইয়ের দশকে বর্ণবৈষম্যে খেলার ওপর নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর দুটি ওয়ানডে খেলেছেন ফন জাইল। ২০০৯ ও ২০১১ সালে ছিলেন প্রোটিয়াদের কোচও।

ক্রিকেটে নতুন এই পেশাদারিত্ব আনতে গিয়ে সিএসএ বাতিল করেছে ওটিস গিবসনসহ সব কোচের চুক্তি। পাশাপাশি মেয়াদ বাড়ানো হয়নি নির্বাচক কমিটিরও। টিম ম্যানেজার ড. মোহাম্মদ মোজাজেও সরে দাঁড়িয়েছেন স্বেচ্ছায়। দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটারদের ভারত সফরের আগে ভারপ্রাপ্ত ডিরেক্টর অব ক্রিকেট কোরি ফন জাইল ও বোর্ডের প্রধান নির্বাহী থাবাং মোরে নিয়োগ দেবেন নতুন নির্বাচকদের। প্রধান নির্বাহী থাবাং মোরে ভালো কিছুর স্বপ্নই দেখছেন এ নিয়ে, ‘এই পরিবর্তনটা দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে রোমাঞ্চকর হবে। পেশাদার ক্রিকেটে আসবে অভিনবত্ব আর জবাবদিহি। আশা করছি ইতিবাচক কিছুই হতে যাচ্ছে। সিদ্ধান্তটা হঠাৎ নেওয়া হয়নি। বোর্ডের সবাই আলোচনা করেই এমন বদলের পক্ষে মত দিয়েছেন। ধন্যবাদ জানাচ্ছি কোচ ওটিস গিবসন আর দীর্ঘদিন আমাদের ম্যানেজার থাকা মোহাম্মদ মোজেজকে।’

এবারের বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা খেলতে যায় ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ের তিনে থেকে। অন্তত সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখছিল ফাফ দু প্লেসিসের দল। তবে শেষ চারের ধারেকাছেও ছিল না প্রোটিয়ারা। শেষ পর্যন্ত তারা বিশ্বকাপ শেষ করে সাত নম্বরে থেকে। এর পরও ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত কোচের দায়িত্বে থাকার আশাবাদ জানান ওটিস গিবসন। অধিনায়ক ফাফ দু প্লেসিস ওয়ানডে থেকে অবসর না নিয়ে জানান খেলতে চান আরো। তবে ব্যর্থতার এই বলয় থেকে বের হতে পুরনোদের ছেঁটে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে সিএসএ। পুরো কোচিং স্টাফ ও নির্বাচকরা চাকরি হারানোর পর ফাফ দু প্লেসিস অধিনায়ক থাকবেন কি না, শঙ্কা আছে যথেষ্টই। এএফপি

মন্তব্য