kalerkantho

মেসির তিন মাসের নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে অর্থদণ্ড

৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেসির তিন মাসের নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে অর্থদণ্ড

কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে গ্যারি মেদেলের সঙ্গে ঘটে যাওয়া ঘটনায় পাওয়া লাল কার্ড দেখে অন্তত এক ম্যাচ বেঞ্চে বসতেই হতো লিওনেল মেসিকে। কিন্তু লাল কার্ড দেখার পর মেসি রেফারি ও দক্ষিণ আমেরিকার মহাদেশীয় ফুটবল সংস্থা কনমেবল কর্তাদের যে ভাষায় আক্রমণ করেছিলেন, তাতে বড় কোনো শাস্তিই যে অপেক্ষা করছে তাঁর জন্য সেটা অবধারিতই ছিল। সেই শাস্তিরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এসেছে কনমেবলের তরফ থেকে। তিন মাসের জন্য জাতীয় দলে নিষিদ্ধ করা হয়েছে মেসিকে, সঙ্গে জরিমানা করা হয়েছে ৫০ হাজার ডলার। এই রায়ের বিপক্ষে সাত দিনের ভেতর আপিল করতে পারবেন মেসি।

ব্রাজিলকে অন্যায়ভাবে জেতার সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে, রেফারি পক্ষপাতদুষ্ট আচরণ করছে—এ রকম অনেক কথাই মেসি বলেছেন কোপা আমেরিকায় খেলার সময়। কনমেবলকে বলেছেন দুর্নীতিগ্রস্ত। জবাবে কনমেবল জানিয়েছে, যে অভিযোগগুলো মেসি পেয়েছেন সেসবের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি বরং এসব অভিযোগের মাধ্যমে সংস্থার প্রতি মেসির অশ্রদ্ধা প্রকাশ পেয়েছে। তাই মেসিকে তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফলে সেপ্টেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিলি এবং মেক্সিকোর বিপক্ষে আর্জেন্টিনার দুটো প্রীতি ম্যাচ এবং অক্টোবরে জার্মানির বিপক্ষে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচে খেলার জন্য বিবেচিত হবেন না মেসি। লাল কার্ডের কারণে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের প্রথম ম্যাচেও দলে থাকবেন না বার্সেলোনার এই তারকা।

মেসি অবশ্য ২০১৮ বিশ্বকাপের পর আর্জেন্টিনার হয়ে প্রীতি ম্যাচগুলোতে খেলছেন না। লিওনেল স্ক্যালোনি দায়িত্ব নেওয়ার পর স্পেনে ভেনিজুয়েলার বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচে অংশ নিয়েছিলেন মেসি, এড়িয়ে গেছেন বাকিগুলো। আগামী তিন মাসে আর্জেন্টিনার যে কয়টি প্রীতি ম্যাচে মেসি নিষেধাজ্ঞার কারণে খেলতে পারবেন না,  নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও এই ম্যাচগুলোতে মেসির খেলার সম্ভাবনা ছিল কমই। মেসির জন্য তাই অর্থদণ্ডটাই মূল শাস্তি, তবে সপ্তাহে ১.৭ মিলিয়ন পাউন্ড বেতন পাওয়া মেসির জন্য ৫০ হাজার ডলার তো সামান্যই! বিবিসি

 

মন্তব্য