kalerkantho

শুক্রবার  । ১৮ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৮ সফর ১৪৪১              

উপভোগ্য সিরিজের প্রত্যাশায় উইন্ডিজ-ভারত

৩ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্বকাপ অভিযান ব্যর্থ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছিটকে গেছে সেমিফাইনালের আগে। শিরোপায় চোখ রেখে যাওয়া ভারত খেলতে পারেনি ফাইনালই। সেই হতাশা ভুলে আজ থেকে নতুন শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ভারতের। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটি আজ মাঠে গড়াবে ফ্লোরিডায়। সিরিজ যারাই জিতুক, উপভোগ্য ক্রিকেটের প্রতিশ্রুতি দিলেন ক্যারিবিয়ান কোচ ফ্লয়েড রেইফার, ‘আমাদের দলটি তরুণ। আছে অভিজ্ঞতার মিশেলও। ফ্লোরিডার ম্যাচটির জন্য আমরা মুুখিয়ে। আগামী সপ্তাহ রোমাঞ্চকর হতে যাচ্ছে। নিশ্চিতভাবে সিরিজটি উপভোগ করবে দর্শকরা।’

বিশ্বকাপের দল থেকে বেশ কিছু পরিবর্তন দুই স্কোয়াডেই। সুনীল নারিন, ডোয়াইন ব্রাভোর মতো দুই টি-টোয়েন্টি বিশেষজ্ঞ ফিরেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজে। আছেন বিশ্বকাপে চোট পেয়ে ছিটকে পড়া আন্দ্রে রাসেলও। তবে ক্রিস গেইলের না থাকাটা শূন্যতা তাঁদের জন্য। গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি খেলতে তিনি এখন কানাডায়। ভারতের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ না খেললেও ওয়ানডেতে ফিরবেন গেইল।

ভারত তিন সিরিজেই বিশ্রাম দিয়েছে হার্দিক পাণ্ডেকে। টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডেতে নেই জাসপ্রিত বুমরাহ। বিশ্রামে থাকার কথা ছিল বিরাট কোহলিরও। তবে দলে দ্বন্দ্বের গুঞ্জনে তিন ফরম্যাটের অধিনায়ক হিসেবেই খেলছেন তিনি। রোহিত শর্মার সঙ্গে ওপেন করবেন শিখর ধাওয়ান। বিশ্বকাপে চোট পেয়ে ছিটকে গেলেও এখন পুরো ফিট বাঁহাতি এ ওপেনার। আর বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান করা রোহিত শর্মার চ্যালেঞ্জ ধারাবাহিকতা ধরে রাখা।

বিরাট কোহলির সঙ্গে রোহিতের দ্বন্দ্বও পেয়েছে নতুন মাত্রা। সিরিজ শুরুর আগে রোহিতের ইঙ্গিতপূর্ণ টুইট, ‘শুধু দল নয়, মাঠে নামি দেশের জন্য।’ এরপর সতীর্থদের নিয়ে বিরাট কোহলি একটি ছবি পোস্ট করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। রোহিত শর্মা নেই সেই ছবিতে! তাহলে কি দুজনের দ্বন্দ্ব নিয়ে ছড়িয়ে পড়া গুঞ্জনটাই সত্য। যদিও দেশ ছাড়ার আগে কোহলি নিশ্চিত করেছিলেন পুরোটাই বানানো গল্প।

মহেন্দ্র সিং ধোনি না থাকায় ঋষব পান্টের সুযোগ নিজেকে নতুনভাবে প্রমাণের। লোয়ার অর্ডারে ধোনির মতো ফিনিশার হওয়ার চ্যালেঞ্জ তাঁর সামনে। ৪ নম্বর নিয়ে সমস্যা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি ভারত। লোকেশ রাহুল টি-টোয়েন্টি খেলবেন সেই জায়গায়, দেখা যাক তিনি সমস্যার সমাধান হয়ে আসতে পারেন কি না। শ্রেয়ার আইয়ার গত বছর নভেম্বরে আর মনীশ পাণ্ডে গত বছরের ফেব্রুয়ারির পর ফিরেছেন জাতীয় দলে। তাঁদেরও চ্যালেঞ্জ নিজেদের মেলে ধরার। চ্যালেঞ্জটি বেশি হয়তো বদলে যাওয়া নতুন বোলিং লাইনআপের। নবদ্বীপ সাইনি, খলিল আহমেদ, ওয়াশিংটন সুন্দররা কি পারবেন প্রত্যাশা মেটাতে? পিটিআই

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা