kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

ভাঙা ঘরে চাঁদের আলো দেখছেন তামিম

২১ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ভাঙা ঘরে চাঁদের আলো দেখছেন তামিম

কলম্বোয় : প্রায় আড়াই মাসের সফর শেষে সপ্তাহ দুয়েক আগে দেশে ফিরেছিল বাংলাদেশ দল। কাল আবার ছুট। পেশাদার ক্রিকেটের নিয়মটাই যে এমন! তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে খেলার জন্য কাল বিকেলে শ্রীলঙ্কায় পৌঁছে যায় বাংলাদেশ দল। নিয়মিত অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার হঠাৎ ইনজুরিতে দলের নেতৃত্ব এখন তামিম ইকবালের কাছে। নিজের ব্যাটিং ফর্মের পাশাপাশি দল নিয়েও তাই ভাবতে হচ্ছে তাঁকে। নিরাপত্তাহীনতার আশঙ্কায় এ সফর ঘিরে ছিল অনিশ্চয়তা। সে কারণে বাংলাদেশ দল কাল কলম্বো পৌঁছলে কঠোর নিরাপত্তায় জানানো হয় অভ্যর্থনা। ছবি : এএফপি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : তখন তিনি টেস্ট দলের সহ-অধিনায়ক। প্রথম টেস্টে ইনজুরিতে পড়লেন নিয়মিত অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে তাই নেতৃত্ব এসে পড়ে তামিম ইকবালের কাছে। অধিনায়কের অনুপস্থিতিতে সহ-অধিনায়ক নেতৃত্ব পাবেন, এ আর আলাদা কী!

কাল শ্রীলঙ্কা সফরে গেল যে বাংলাদেশ দল, তার অধিনায়কও তামিম। কিন্তু সেটি আলাদা উল্লেখের দাবি রাখে। বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ অধিনায়ক হিসেবে এ ওপেনারের নাম ‘কাটা’ হয়ে গেছে আগেই। টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, সহ-অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ; আর ওয়ানডে ফরম্যাটের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা, সহ-অধিনায়ক সাকিব। উইকেট নিয়ে সমালোচনা করায় এই নেতৃত্বের গ্রুপ থেকে বোর্ড তুলে নেয় তামিমকে। অথচ সেই তাঁর কাছেই কিনা ২৬ জুলাই থেকে শুরু হওয়া তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের নেতৃত্ব!

কারণ দেশ ছাড়ার আগে পরশুর শেষ অনুশীলনে ইনজুরিতে পড়ে সিরিজ থেকে ছিটকে গেছেন মাশরাফি। ওয়ানডের সহ-অধিনায়ক সাকিব আগে থেকেই ছুটিতে। সে কারণেই দায়িত্ব এসে পড়েছে তামিমের কাছে। আড়াই বছর আগের ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের পর আবার জাতীয় দলের জার্সিতে টস করতে নামবেন এই ওপেনার।

তাঁর জন্য কাজটি সহজ হবে না। ছুটির কারণে দলে নেই সাকিব ও লিটন দাস। ইনজুরির কারণে ছিটকে গেছেন মাশরাফির পর মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিনও। ওই পেস বোলিং অলরাউন্ডারকে বিশ্রামে থাকতে হবে অন্তত তিন সপ্তাহ। বিশ্বকাপ স্কোয়াড তো বটেই, একাদশের এই চার ক্রিকেটার ছাড়া কাল দুপুরে শ্রীলঙ্কায় উড়াল দিয়েছে বাংলাদেশ দল। কাজটি যে ভীষণ চ্যালেঞ্জিং, সেটিই বলে গেছেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক তামিম, ‘সিদ্ধান্তটা সাধারণত বোর্ড থেকে আসে কে অধিনায়ক হবে বা না হবে। আমার কাছে মনে হয় সিরিজটা আমাদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের যে দল যাচ্ছে, এই দলের প্রমাণ করার অনেক কিছু আছে। ইনজুরি এবং অন্যান্য কারণে দলের অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটার এই সিরিজে যাচ্ছে না। সেসব কারণেই এই সিরিজ অনেক চ্যালেঞ্জিং। ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কাকে ভালো দলের স্বীকৃতি দিয়েও নিজেদের ভালো না করার কারণ দেখছেন না তিনি, ‘শ্রীলঙ্কা তাদের হোম কন্ডিশনে অনেক শক্তিশালী। তবে ওখানে এর আগের সিরিজগুলোতে আমরা অনেক ভালো করেছি। এবারও ভালো না করার কোনো কারণ খুঁজে পাচ্ছি না।’

শ্রীলঙ্কা সফরের এই দলে জায়গা পেয়েছেন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান এনামুল হক ও বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম। মাশরাফি-সাইফ ছিটকে যাওয়ায় শেষ মুহূর্তে স্কোয়াডে এসেছেন ফরহাদ রেজা ও তাসকিন আহমেদ। জাতীয় দলে প্রত্যাবর্তনের সুযোগটি তাঁরা কাজে লাগাবেন বলে আশা অধিনায়ক তামিমের, ‘স্কোয়াডে যারা আছে তারা যদি দুই হাতে সুযোগটি লুফে নেয়, তাহলে সেটা বাংলাদেশ দলের পাশাপাশি তাদের জন্যও ভালো হবে।’

জাতীয় দলের ১৪ জনের স্কোয়াডের মধ্যে কাল শ্রীলঙ্কায় গিয়েছেন অর্ধেক; সাতজন। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে চট্টগ্রামে ম্যাচ খেলার জন্য থেকে গেছেন সাব্বির রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, এনামুল হক ও ফরহাদ রেজা। বিসিবি একাদশের হয়ে ভারতের বেঙ্গালুরু সফরে আছেন তাইজুল ও তাসকিন। জাতীয় দলের সঙ্গে শ্রীলঙ্কায় পরে গিয়ে যোগ দেবেন তাঁরা।

এই দল নিয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে ভালো করাটা চ্যালেঞ্জের। আর নিজের বিশ্বকাপ ভালো না কাটায় তামিমের সামনে চ্যালেঞ্জটা আরো বেশি। তবে কাল দেশ ছাড়ার আগে এসব নিয়ে খুব উদ্বিগ্ন মনে হয়নি অধিনায়ককে, ‘আমি যে ধরনের আশা করেছিলাম সে ধরনের খেলা খেলতে পারিনি। সামনে নতুন চ্যালেঞ্জ। আশা করছি, সেখানে ভালো কিছু হবে। কোনো কিছু খারাপ হলে ওটা নিয়ে যদি সারা দিন চিন্তা করেন, সেটা আপনার জন্য খুবই খারাপ হবে। আমি সামনের কথা মাথায় নিয়ে এগোচ্ছি। ইতিবাচক দিক খুঁজে নেওয়ার চেষ্টা করছি।’

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জয়ের চেয়ে ইতিবাচক আর কী হতে পারে!

মন্তব্য