kalerkantho

কথার খেলা

৭ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কথার খেলা

পয়েন্ট সমান হওয়ার পর আইসিসি হেড টু হেডের হিসাবটাকে আগে ধরলে নিউজিল্যান্ডকে পেছনে ফেলে আমরাই সেমিফাইনালে থাকতাম। অথচ এখন সেই প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে বাজে হারটাই হয়ে গেল ভাগ্য নির্ধারক।

পাকিস্তান কোচ

মিকি আর্থার

 

তখন চুল কাটাচ্ছিলাম আমি। সে সময়ই শুনি বিশ্বকাপ দলে ডাক পাওয়ার খবর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ভারতীয় ‘এ’ দলের খেলার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। অথচ আমি এখন বিশ্বকাপে!

ভারতীয় ব্যাটসম্যান

মায়াঙ্ক আগারওয়াল

 

উইকেট বেশ মন্থর ছিল, বলও বাঁক খাচ্ছিল। খেলাটা সহজ ছিল না। বিশেষত কাটারে সমস্যায় পড়ছিলাম। তাই বেশ বুঝে-শুনে খেলতে হয়েছে। আমি অবশ্য এই লড়াইটা উপভোগ করেছি।

শ্রীলঙ্কার অলরাউন্ডার

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ

 

স্মিথ, ওয়ার্নারের রেকর্ড, পারফরম্যান্সই তাদের হয়ে কথা বলবে। ওই একটা ঘটনা (বল টেম্পারিং) না। লোকে তাদের মনে রাখবে তাদের পারফরম্যান্সের জন্যই।

দক্ষিণ আফ্রিকা অধিনায়ক

ফাফ দু প্লেসিস

 

পাঁচটি বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রতিনিধিত্ব করা অসাধারণ ব্যাপার। এবার সেমিফাইনালে উঠতে না পারা অবশ্যই হতাশার। তবে শেষ পর্যন্ত যে আমি টুর্নামেন্টটিতে ছিলাম—এটিও কম বড় পাওয়া নয়।

ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান

ক্রিস গেইল

 

ফিটনেস আমাদের বড় সমস্যা ছিল। ক্রিকেটে উন্নতি করতে হলে এদিকটাতেই আমাদের উন্নতি করতে হবে সবার আগে। মাঠে আমরা ১০০ ভাগ দিতে পারিনি। সমর্থকদের কাছে সে জন্য ক্ষমাপ্রার্থী।

আফগানিস্তান অধিনায়ক

গুলবাদিন নাইব

মন্তব্য