kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ জুলাই ২০১৯। ৪ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৫ জিলকদ ১৪৪০

প্রিভিউ

ভারতের সামনে প্রোটিয়ারা

৪ জুন, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ভারতের সামনে প্রোটিয়ারা

সেনাবাহিনী নিয়ে ভারতের আবেগ কম নয়। পুলওয়ামায় নিহতদের আত্মার শান্তি কামনায় সেনাবাহিনীর ক্যাপ পরে খেলেছিলেন বিরাট কোহলি, মহেন্দ্র সিং ধোনিরা। অনিল কুম্বলে কোচ থাকার সময় ড্রাম বাজিয়ে একাত্ম হওয়ার চেষ্টা করতেন খেলোয়াড়রা। গত বিশ্বকাপের ঠিক আগেও অস্ট্রেলিয়া সফরে ‘টিম ইন্ডিয়া’ মাতে নকল যুদ্ধে। ব্যতিক্রম হলো না এবারও। বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর আগে পারস্পরিক সমঝোতা বাড়াতে ‘টিম বন্ডিং সেশন’ করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। সবার গায়ে ছিল সেনাবাহিনীর আদলে তৈরি পোশাক।

বিশ্বকাপটা ভারতের জন্য ‘যুদ্ধ’ই, যার শুরুটা হচ্ছে আগামীকাল সাউদাম্পটনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। তবে লম্বা টুর্নামেন্টে সতেজ থাকতে খোশমেজাজে পুরো দল। অনুশীলনে মাঠেই পালন করা হয়েছে দীনেশ কার্তিকের জন্মদিন। নকল যুদ্ধের আবহ তৈরি করে ক্রিকেটাররা খেলেছেন পেন্টাবল। রোজই বিসিসিআইয়ের ওয়েবসাইটে আপলোড করা হচ্ছে কোনো না কোনো ভিডিও। মাঠে যে এমন উৎসবের মেজাজ থাকবে না এরই মধ্যে বুঝিয়ে দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার কাগিসো রাবাদা। ভারতের সেরা তারকা বিরাট কোহলিকে ‘অপরিণত’ বলে আক্রমণ করেছেন তিনি, ‘কোহলিকে কিছু বললে ব্যাপারটা হজম করতে পারে না। ও একদম অপরিণত।’ রাবাদার এমন তোপ কোহলিকে আরো তাতিয়ে দেবে নিশ্চিত।

সাম্প্রতিক ফর্ম ফাফ দু প্লেসিসের দলের বিপক্ষে আত্মবিশ্বাসী করবে বিরাট কোহলিদের। কেননা দুই দলের সব শেষ সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার ডেরায় দাপট ভারতেরই। দু প্লেসিসদের অসহায় বানিয়ে সিরিজ জিতেছিল ৫-১ ব্যবধানে। সেই সিরিজে ৫৫৮ রান করেছিলেন বিরাট কোহলি। এটা দ্বিপক্ষীয় কোনো সিরিজে সর্বোচ্চ রানের কীর্তি। ডেল স্টেইন ও কাগিসো রাবাদা অবশ্য খেলেননি সেই সিরিজ। আগামীকাল রয়েছেন দুজনই। রাবাদাকে নিয়েও অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকা এই বিশ্বকাপ শুরু করেছে চরম বাজেভাবে। ইংল্যান্ডের পর বাংলাদেশের কাছেও হেরে ভারতের বিপক্ষে চাপে থাকবে তারা ভীষণভাবে।

জ্যাক ক্যালিস অবশ্য বলেছেন ভারতকেও চাপে ফেলার সুযোগ আছে প্রোটিয়াদের, ‘এটা হবে ভারতের প্রথম ম্যাচ। আর আমরা হারলেও এরই মধ্যে দুই ম্যাচ খেলে ফেলেছি। ভারত প্রথম ম্যাচ খেলতে নামায় স্বাভাবিক ওদের মধ্যে কিছুটা জড়তা কাজ করবে। সেই সুযোগটা নেওয়া যেতে পারে।’ শেষ পর্যন্ত বোলিংই মূল শক্তি প্রোটিয়াদের। স্টেইন, রাবাদা, এনগিডি, মরিসদের সঙ্গে লেগ স্পিনার ইমরান তাহির। বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে প্রথম ওভারেই জনি বেয়ারস্টোকে ফিরিয়ে তাহির বুঝিয়েছেন নিজের মান। বাংলাদেশের বিপক্ষেও নিয়েছেন ২ উইকেট। তারায় ঠাসা ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সামনে কঠিন পরীক্ষা তাদের। আত্মবিশ্বাস জোগাতে পারে নিউজিল্যান্ডের বোলাররা। প্রস্তুতি ম্যাচে ট্রেন্ট বোল্ট, টিম সাউদিদের গতি আর সুইংয়ে কাবু হয়ে পড়েছিলেন কোহলিরা। স্টেইন, রাবাদাদের কি সামলাতে পারবেন কোহলি-রোহিত শর্মারা? প্রথম দুই ম্যাচ মাঠের বাইরে কাটানো স্টেইনের আজ ফেরারই কথা। যদিও গতকাল পর্যন্ত এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে এনগিডি যে খেলতে পারবেন না তা নিশ্চিত। বাংলাদেশের বিপক্ষে হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছেন এই পেসার। প্রথম ম্যাচে মাথায় আঘাত পাওয়া হাশিম আমলা অবশ্য ফেরার মতো ফিট বলেই জানানো হয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে।

ভারতীয় বোলিংও সময়ের অন্যতম সেরা। মোহাম্মদ সামি, জাসপ্রিত বুমরাহ, ভুবনেশ্বর কুমারদের প্রশংসায় অস্ট্রেলিয়ান তারকা ব্রেট লি জানিয়েছেন মুগ্ধতা, ‘গর্ব করার মতো পেস আক্রমণ ভারতের। ভালো লাগছে ওদের বোলিং আক্রমণ এখন পেস-নির্ভর।’ স্পিনও হেলাফেলার নয়। আফগানিস্তানের পর ভারতের স্পিনারদের সবচেয়ে বৈচিত্র্যপূর্ণ মনে করেন শচীন টেন্ডুলকার, ‘কুলদীপ যাদব, যুযবেন্দ্র চাহালের মতো দুই রিস্ট স্পিনার যেকোনো দলের জন্য আতঙ্কের। রবীন্দ্র জাদেজার স্পিন সামলানোও সহজ নয়।’ পিটিআই

মন্তব্য