kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

লিস্টারে শেষ দিন

আজ আবার সেই ক্রিকেট তীর্থে

২৩ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আজ আবার সেই ক্রিকেট তীর্থে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : একসময় বড় দলকে হারানোর সাফল্য বাংলাদেশের কাছে ছিল ‘ধূমকেতু’র মতো। লম্বা বিরতি দিয়ে আসা একেকটি সাফল্যের দিনও পেরিয়েছে বহু আগে। এখন বড় দলকে হারানো অভ্যাসে পরিণত হলেও বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই দিন আর সেই দিনে একই রকম গুরুত্ব নিয়ে আছে যে জায়গাটি, সেটি কার্ডিফ। এখানেই তো ভিন্ন ভিন্ন দুই সময়ের বড় দুটি সাফল্য বাংলাদেশের। সেই ২০০৫ সালে এখানেই অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে  হৈচৈ ফেলে দেওয়া দল সেখানেই পেয়েছে এ যাবৎ নিজেদের সেরা সাফল্যের দেখাও। ২০১৭-র চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে কার্ডিফে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েই প্রথমবারের মতো আইসিসি পরিচালিত কোনো আসরের সেমিফাইনালে উঠেছিল মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। কাজেই কার্ডিফের মর্যাদা বাংলাদেশের কাছে শুধুই একটি ভেন্যুর নয়, সেটি যেন এক তীর্থস্থানও। সেই তীর্থেই আজ আবার পা রাখতে চলেছে মুশফিকুর রহিম-সাকিব আল হাসানরা।

ওভালে ১ জুন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরুর আগে এখানেই নির্ধারিত আছে বাংলাদেশের দু-দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ। যার প্রথমটি ২৬ মে, পাকিস্তানের বিপক্ষে। ২৮ মে পরেরটির প্রতিপক্ষ ভারত। তার আগে আজই আইসিসির ব্যবস্থাপনায় ঢুকে পড়তে যাওয়া দল গতকাল লিস্টারে করেছে শেষ অনুশীলন। সেখান থেকে আজ বাংলাদেশ দল কার্ডিফে গেলেও অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা যোগ দেবেন আরো পরে। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দিন রাতেই দেশে ফেরার ফ্লাইট ধরেছিলেন তিনি। দেশে পরিবারকে সময় দেওয়ার পাশাপাশি এই সংসদ সদস্য নড়াইলে তাঁর নিজ এলাকার নানা বিষয় নিয়েও ব্যস্ত ছিলেন। কয়েক দিনের ছুটি শেষে গতকাল সকাল ১০টা ৩০ মিনিটের ফ্লাইটে আবার উড়াল দিয়েছেন তিনি। কালই স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় লন্ডনের পৌঁছে যাওয়ার কথা তাঁর। তবে কার্ডিফে দলের সঙ্গে যোগ দিতে একটু বিলম্ব হবে মাশরাফির। লন্ডনে একটু বেশি সময় অবস্থানের কারণ এখানেই আজ বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর অধিনায়কদের নিয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন আছে আইসিসির।

কাল দেশ ছাড়ার আগে অধিনায়ক বিশ্বকাপে ভালো কিছু করার জন্য দেশবাসীর দোয়াও চেয়ে গেছেন। বিমানবন্দরে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের সঙ্গে খুব বেশি কথা না বললেও গত কয়েক দিনে দলের বিশ্বকাপ সম্ভাবনা নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখও খুলেছেন। ত্রিদেশীয় সিরিজের শিরোপা জিতলেও ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ অভিজ্ঞতা অন্য রকম হবে বলেই মন্তব্য করে গেছেন মাশরাফি। বিশেষ করে নিজেদের প্রথম তিনটি ম্যাচকে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে তাঁর, ‘খুবই কঠিন হবে। কারণ আমাদের প্রথম তিনটি ম্যাচের প্রতিপক্ষই ভীষণ শক্তিশালী।’ ওভালে সবার আগে সামনে প্রোটিয়ারা। একই জায়গায় ৫ জুন প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড। এরপর আবার তাদের ফিরতে হবে সেই ক্রিকেট-তীর্থে। ৮ জুন কার্ডিফেই স্বাগতিক ইংল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচ। যাদের কাছে এখন সাড়ে তিন শ ছাড়ানো স্কোর রীতিমতো দুধ-ভাত। যেজন্য মাশরাফি বলে রেখেছেন, ‘এদের বিপক্ষে ইতিবাচক ফল পাওয়াটা সহজ ব্যাপার নয়।’ তাই বিশ্বকাপে ভিন্ন মেজাজে খেলতে নামার তাগিদও শোনা গেছে তাঁর কণ্ঠে, ‘আমি এটা বলতে পারি যে বিশ্বকাপে খেলা হবে একেবারেই অন্য রকম। সম্প্রতি ইংল্যান্ডে হওয়া খেলাগুলোর দিকে যদি তাকান, তাহলে দেখবেন সেখানে প্রচুর রান হচ্ছে। কাজেই সেখানে ভিন্নভাবেই নিজেদের মেলে ধরা প্রয়োজন।’ সতীর্থদের সঙ্গে না নিয়ে আলোচনার আগে বাংলাদেশের প্রথম অধিনায়ক হিসেবে আজই দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বমঞ্চে উঠে পড়ছেন মাশরাফি, অধিনায়কদের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হওয়ার মধ্য দিয়েই। মাশরাফির মতো কাল একই দিনে লন্ডনে উড়াল দিয়েছেন তাঁর আরেক সতীর্থ তামিম ইকবালও। অধিনায়ক ঢাকায় ফিরলেও এই বাঁহাতি ওপেনার ছুটি নিয়ে গিয়েছিলেন দুবাইতে।

মন্তব্য