kalerkantho

জিয়া জেতালেন জামালকে

১৫ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জিয়া জেতালেন জামালকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ঢাকা প্রিমিয়ার বিভাগ টি-টোয়েন্টি লিগের চ্যাম্পিয়ন তারা। তাতে ৫০ ওভারের আসল লিগের অন্যতম ফেভারিট হিসেবেও নিজেদের ঘোষণা করে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব। কিন্তু সেখানে তো প্রথম দুই ম্যাচেই হেরে যায় দলটি। কাল তৃতীয় ম্যাচে শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে যখন ১০৬ রানে অল আউট, টানা তৃতীয় পরাজয় চোখ রাঙাচ্ছিল প্রবলভাবে।

ওই ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে দাঁড়িয়ে দারুণ এক জয় পায় শেখ জামাল। আর তা জিয়াউর রহমানের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে। ব্যাটিংয়ে সাত নম্বরে নেমে তিনি ৫৮ বলে ৪১ রান না করলে দলের স্কোর এক শর অনেক আগেই আটকে যেত। এরপর ১০ ওভারের মিডিয়াম পেসে মাত্র ২৩ রান খরচায় নেন ৫ উইকেট। সতীর্থ সালাউদ্দিন শাকিলও ৪ উইকেট নিলে প্রতিপক্ষকে ৯৪ রানে অল আউট করে ১২ রানের স্মরণীয় জয় পায় শেখ জামাল।

মিরপুরে ইয়াসির আলী অমনই স্মরণীয় জয় এনে দিতে পারতেন ব্রাদার্সকে। আবাহনীর করা ৬ উইকেটে ২৩৬ রানের জবাবে দলের আশা টিকে ছিল তাঁর ব্যাটেই। কিন্তু অপরাজিত ১০৬ রানের ইনিংস খেলেও দলের হার ঠেকাতে পারেননি।

বিকেএসপির ম্যাচে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের এনামুল হকের সেঞ্চুরি অবশ্য বিফলে যায়নি। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে ১৬৩ রানে গুটিয়ে দিয়ে দলের ৯ উইকেটের জয়ে ওই ওপেনারের ১১১ বলে অপরাজিত ১০০ রানের ভূমিকাই মুখ্য।

শেখ জামাল-শাইনপুকুর : শেখ জামাল ৩৫.১ ওভারে ১০৬ (জিয়াউর ৪১; সাব্বির ৪/২৮)। শাইনপুকুর ২৯ ওভারে ৯৪ (সাব্বির ২৬; জিয়াউর ৫/২৩, সালাউদ্দিন ৪/২১)। ফল : শেখ জামাল ১২ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : জিয়াউর রহমান।

আবাহনী-ব্রাদার্স : আবাহনী ৫০ ওভারে ২৩৬/৬ (সাইফউদ্দিন ৫৯*, মোসাদ্দেক ৫৪; নাঈম ২/২৮)। ব্রাদার্স ৫০ ওভারে ২২২/৮ (ইয়াসির ১০৬*; সাব্বির ২/২১)। ফল : আবাহনী ১৪ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন।

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ-প্রাইম ব্যাংক : লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ৪৬.১ ওভারে ১৬৩ (নাঈম ৫২; কাপালি ২/১২)। প্রাইম ব্যাংক ৩১.৩ ওভারে ১৬৬/১ (এনামুল ১০০*; নাবিল ১/৩৬)। ফল : প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব ৯ উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা : এনামুল হক।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা