kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নেইমারের কান্না

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘জন্মদিনের সেরা উপহার হতে পারে নতুন মেটাটারসাল। কেউ কি এটা দিতে পারো আমাকে’—কদিন আগে জন্মদিনের পার্টিতে আক্ষেপ নিয়ে বলেছিলেন নেইমার। বারবার সেই ডান পায়ের পঞ্চম মেটাটারসালে চোট পাওয়াতেই এমন চাওয়া ব্রাজিলিয়ান অধিনায়কের। কিন্তু এ তো আর সম্ভব নয়। চোট সারাতে ভরসা অস্ত্রোপচার কিংবা উন্নত চিকিৎসা। গত বছর বিশ্বকাপের আগে পঞ্চম মেটাটারসালে চোট পেয়ে করিয়েছিলেন অস্ত্রোপচার। গত ২৩ জানুয়ারি স্ট্রাসবুর্গের বিপক্ষে ফ্রেঞ্চ কাপের ম্যাচে আবারও একই জায়গায় চোট পাওয়াটা তাই মানতে পারছিলেন না কোনোভাবে। ক্যারিয়ার নিয়ে শঙ্কা আর যন্ত্রণায় বাড়িতে কেঁদেছিলেন দুদিন।

ব্রাজিলের গ্লোবো টিভিকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে দুঃসহ সেই যন্ত্রণার বর্ণনা দিয়েছেন নেইমার। সাক্ষাৎকারটি সম্প্রচারিত হবে ৩ মার্চ। এর আগে বেরিয়েছে এর চুম্বক অংশ। সেখানে নেইমার জানাচ্ছেন, ‘‘এবারের চোটটা বেশি জটিল ছিল। প্রথমবার নিজেকে বলেছিলাম, ‘অস্ত্রোপচার হচ্ছে। দ্রুত সেরে যাবে এটা। ভাবনার কিছু নেই।’ খুব বেশি ভেঙে পড়িনি। তবে এবার খুব কষ্ট পেয়েছি (বারবার একই জায়গায় চোট পাওয়ায়)। বাড়িতে কেঁদেছিলাম দুই দিন।’’

চোটের জন্য পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগটা নেইমার খেলতে পারেননি ম্যানইউর বিপক্ষে। ম্যাচটা দেখেছিলেন টিভিতে। পিএসজির দুটি গোল আর জয়ের পর নিজের উচ্ছ্বাসের একটি ভিডিও নিজেই আপলোড করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। তাঁর উদ্‌যাপনই বলে, পিএসজিকে হৃদয়ে ধারণ করছেন কতটা। আগামী মৌসুমে প্যারিস ছেড়ে অন্য কোথাও যাওয়ার গুজবও কিছুদিন আগে উড়িয়ে দিয়েছেন তাঁর বাবা, ‘নেইমারের বর্তমান পিএসজি। ভবিষ্যৎও পিএসজি। এখানেই থাকছে ও। তবে ফুটবলে ভবিষ্যৎ বদলে যায় মুহূর্তেই, কেউ জানে না সেটা।’

ম্যানইউর সঙ্গে শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগ খেলার সম্ভাবনা নেই নেইমারের। পিএসজি অ্যাওয়ে ম্যাচে ২-০ গোলে এগিয়ে থাকায় তাদের কোয়ার্টার ফাইনালে দিয়ে রেখেছে একটা পা। আর দল শেষ আটে গেলে এপ্রিলে হতে চলা সেই ম্যাচে নিজেকে মেলে ধরার প্রতীক্ষায় আছেন নেইমার। এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা