kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এমন মাঠে পেশাদার ফুটবল লিগ!

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এমন মাঠে পেশাদার ফুটবল লিগ!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামে ফুটবল খেলা খুব কঠিন। এই মাঠে প্রথম ম্যাচ খেলে তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছিল সাইফ স্পোর্টিংয়ের। গতকাল সেই তিক্ততার মুখে পড়েছে বসুন্ধরা কিংস। তারাও বলছে, ‘এই মাঠে ফুটবল খেলা যায় না।’

বসুন্ধরা কিংস-বিজেএমসির ড্র ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে খেলা ছাপিয়ে মাঠের দুর্দশাই মুখ্য হয়ে ওঠে। বসুন্ধরা কিংসের ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজের আক্ষেপ, ‘এই মাঠে পাস খেলা বড় কঠিন। বল মাটিতে পড়ে কোন দিকে যাবে, সেটা বোঝা মুশকিল। বল নিয়ন্ত্রণই করা যায় না এখানে। তাই যারা বিল্ড-আপ ফুটবল খেলে, তাদের জন্য এই মাঠ একটা দুঃস্বপ্ন।’

পাঁচ ম্যাচ জেতার পর কিংস এই মাঠে গিয়ে হোঁচট খেয়েছে গতকাল বিজেএমসির সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করে। তাদের খেলতে হয়েছে স্বভাববিরুদ্ধ লং পাসে। নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামকে হোম ভেন্যু হিসেবে নিয়েছে বিজেএমসি ও নোফেল স্পোর্টিং ক্লাব। কিন্তু বলার মতো নয় মাঠের শ্রী। কোথাও ঘাস আছে, কোথাও ধুলো ওড়ে। পাড়ার মাঠের চেয়েও খারাপ এর অবস্থা। ‘মাঠ উঁচু-নিচু, বল পড়ে কোন দিকে যাবে কেউ বুঝতে পারে না। মাঝখানে আছে ক্রিকেট পিচ। তা ছাড়া এই মাঠে পানিও বোধ হয় দেওয়া হয় না, মাঠে পড়লেই খেলোয়াড়দের বড় ইনজুরির আশঙ্কা থাকে। এ রকম মাঠেই হচ্ছে আমাদের পেশাদার লিগ’—আক্ষেপ করেছেন কিংসের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর বায়েজীদ যোবায়ের নিপু।

ম্যাচের আগের দিনই কিংস কোচ অস্কার ব্রুজোন বিস্ময় প্রকাশ করেন নোয়াখালীর এই মাঠ দেখে, ‘এ রকম মাঠে খেলে ফুটবলের উন্নতি করা যাবে না।’ গতকাল ম্যাচ শেষে তৌহিদুল আলমও অফসোস করেছেন, ‘এই মাঠে দেশের শীর্ষ লিগের খেলা মানায় না। এত টাকা খরচ করে ক্লাবগুলো দল গড়ে অথচ ভালো খেলার মাঠের নিশ্চয়তা দিতে পারে না বাফুফে। এটা কেমন কথা!’

কিন্তু কে শোনে কার কথা। লিগ কমিটি বছরজুড়ে দফায় দফায় সভা করে, সেখানে যে কী আলোচনা হয় কে জানে! নোয়াখালীর এই মাঠ গোড়া থেকেই এ রকম, এর পরও এটিকে পেশাদার লিগের ভেন্যু করাটা বিস্ময়কর। গত ২৪ জানুয়ারি এই মাঠে প্রথম খেলে এসে সাইফ স্পোর্টিংয়ের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া বলেছিলেন, ‘ভালো ফুটবল খেলার জন্য অনুপযোগী এই মাঠ। কোনো বড় দল এখানে খেলতে চাইবে না।’ নোয়াখালীর শহীদ ভুলু স্টেডিয়াম আসলে বড় দলের মরণফাঁদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা